বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সেই দীঘিতে এবার মিলল ১৬ কেজির কাতলা

news-image

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাঘায় শুক্রবার দ্বিতীয় দিন বিকালে ঐতিহাসিক দীঘিতে (পুকুর) পাওয়া গেছে ১৬ কেজি ওজনের একটি কাতলা মাছ। ৬০০ টাকা কেজি হিসেবে ৯ হাজার ৬০০ টাকায় বিক্রি করা হয়েছে। স্থানীয় কয়েকজন মিলে মাছটি ক্রয় করেছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার ১৩ কেজি ওজনের একটি সিলভার কার্প মাছ ৫০০ টাকা কেজি হিসেবে ৬ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি করা হয়েছিল। জাল দিয়ে ধরে দীঘির পাড়ে রুই, কাতলা, সিলভার কার্প, বোয়াল, চিতল মাছ বিক্রি করা হচ্ছে।

জানা যায়, বাঘা ওয়াকফ এস্টেটের কাছে থেকে স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ী ওয়াহেদ সাদিক কবীর ৫২ বিঘার দীঘি ৫৬ লাখ টাকায় লিজ নেন। জাল দিয়ে ধরে এই দীঘির মাছ বিক্রি করেন। ১০ কেজি ওজনের নিচে সিলভার কার্প মাছ বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৪০০ টাকা। ১০ কেজি ওজনের উপরে প্রতি কেজি মাছ বিক্রি হয়েছে ৫০০ টাকায়। এছাড়া ১০ কেজি ওজনের নিচে রুই, কাতলা, বোয়াল, চিতল মাছ বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৫০০ টাকা। ১০ কেজি ওজনের উপরে প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ৬০০ টাকায়।

এ বিষয়ে বাঘা পৌর মেয়র আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এই দীঘিতে বিরল প্রজাতির মাছ রয়েছে যা নদীর মাছের মতোই স্বাদ। দীর্ঘ প্রায় ৫ বছর পর এই দীঘির মাছ ধরা হচ্ছে। এখানে বড় বড় মাছ রয়েছে। মাছ ধরা দেখতে দূরদূরান্ত থেকে দেখতে আসছেন। দীঘির মাছ সুস্বাদু বলে স্থানীয়সহ অনেকেই ক্রয় করতে দেখা গেছে। পাশাপাশি ঢাকায়ও নিয়ে যাওয়া হয়।

এ বিষয়ে স্থানীয় আশরাফুল হক বলেন, খুব ইচ্ছা ছিল দীঘির একটি বড় মাছ ক্রয় করব। কয়েকজন মিলে ৯ হাজার ৬০০ টাকা দিয়ে একটি কাতল মাছ ক্রয় করেছি।

দীঘির ইজারাদার স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ী ওয়াহেদ সাদিক কবীর বলেন, ওয়াকফ এস্টেটের শর্ত অনুযায়ী কিছু দিন আগে দীঘি ইজারা নিয়েছিলাম। নিয়ম অনুযায়ী মাছ ধরে বিক্রি করছি। তবে দুই দিনে ২ কেজি থেকে ১৬ কেজি ওজনের মাছ পাওয়া গেছে। বড় মাছগুলো স্থানীয়রা ক্রয় করছেন।

বাঘা ওয়াকফ এস্টেটের মোতয়ালি খন্দকার মুনসুরুল ইসলাম রইশ বলেন, নিয়ম অনুযায়ী দীঘি লিজ দেওয়া হয়েছে। লিজকৃত ব্যক্তি জাল দিয়ে ধরে মাছ বিক্রি করছেন। যেহেতু তিনি লিজ নিয়েছেন, মাছ তো বিক্রি করবেনই। কয়েক বছর থেকে মাছ না ধরায় বড় বড় মাছ পাওয়া যাচ্ছে।