শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিডিএর জেনারেটর বিক্রি করেছিলেন পাহারাদার

news-image

হামিদ উল্লাহ,চট্টগ্রাম : নগরীর আমিন জুটমিল এলাকায় অভিযানকালে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) ভ্রাম্যমাণ আদালত একটি জেনারেটর জব্দ করেন। প্রায় এক বছর আগে তৎকালীন স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল আলম চৌধুরী ওই অভিযানের নেতৃত্ব দেন। তিনি বদলির নয় মাস পর জানা গেল মালখানায় ওই জেনারেটর নেই। অভিযোগ ওঠে, নিরাপত্তা কর্মকর্তা নাসির খান সেটি বিক্রি করে দিয়েছেন।

তবে এ নিয়ে চাপাচাপির পর ঠিকই মালখানায় ফেরত আনা হয়েছে জেনারেটরটি। এ যেন কাজির গরুর খাতা থেকে গোয়ালে ফিরে আসা।

সিডিএ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, জানাজানি হওয়ার পর প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা সিডিএর সিকিউরিটি অফিসার নাসির খানকে ডেকে পাঠান। তিনি জেনারেটরটি বিক্রির কথা স্বীকার করে বলেন, সাবেক স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল আলম চৌধুরী সেটি নাসিরকে বিক্রি করতে বলেছেন। সিডিএর একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বর্তমান স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট তাহ্মিনা আফরোজ চৌধুরী আগের স্পেশ্যাল ম্যাজিস্ট্রেটের সাথে কথা বলে নিশ্চিত হন জেনারেটর বিক্রির জন্য নাসির খানকে বলা হয়নি। এই কথা নাসির খানকে বলার পর রাতে জেনারেটরটি পুনরায় মালখানায় ফিরিয়ে আনা হয়। মালখানা থেকে বের হওয়া এবং পুনরায় ফিরিয়ে আনার সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে জানিয়ে সিডিএর পুল বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, কর্তৃপক্ষ তদন্ত শুরু করলে আলামত হিসেবে তা দেওয়া হবে।

গত ১২ সেপ্টেম্বর সিডিএর ভ্রাম্যমাণ আদালত থেকে সিডিএ চেয়ারম্যান বরাবর একটি চিঠি লিখে জেনারেটর চুরির বিষয়টি অবগত করা হয়। সে সময় চেয়ারম্যান এম জহিরুল আলম দোভাষ ঢাকায় ছিলেন। চট্টগ্রাম ফিরে তিনি এ সম্পর্কে জানতে পারেন। এরপর এটি নিয়ে স্পেশ্যাল ম্যাজিস্ট্রেটের দপ্তর মামলার উদ্যোগ নিলে এক রাতে জেনারেটরটি ফিরিয়ে দেন নাসির খান। মালখানা থেকে জেনারেটর বের করা ও ফিরিয়ে দেওয়ার দুই দৃশ্যই সিসি টিভি ফুটেজে ধরা পড়ে।

সিডিএর একজন কর্মকর্তা বলেন, মূলত ভাবমূর্তি রক্ষার তাগিদ থেকে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। ফলে নিরাপত্তা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে চালাচালি করা সব চিঠিই ধামাচাপা দেওয়া হয়।

সিডিএর স্পেশ্যাল ম্যাজিস্টেট তাহ্মিনা আফরোজ চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আপনি চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলুন।

সিডিএ চেয়ারম্যানের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি ঢাকায় আছি। সিডিএ ভবনের বিষয়াদি নির্বাহী প্রকৌশলী আ হ ম মেজবাহউদ্দিন দেখভাল করেন। তার সাথে কথা বলুন।

আ হ ম মেজবাহউদ্দিন আমাদের সময়কে বলেন, আমাকে এ বিষয়ে কোনো দায়িত্ব দেওয়া হয়নি। নিরাপত্তার বিষয়টি আমি দেখি না।

নিরাপত্তা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) নাসির খানকে এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য তার দুটি মোবাইল নম্বরেই যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু তিনি কোনো ফোনই ধরেননি।