বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সালমানের ছবি থেকে বাদ পড়ে রেগে কী করলেন শেহনাজ?

news-image

অনলাইন ডেস্ক : বলিউড সুপারস্টার সালমান খান এবং ‘বিগ বস’ তারকা শেহনাজ গিলকে নিয়ে গতকাল সোমবার থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় চলছে ব্যাপক চর্চা। শেহনাজ সোশ্যাল মিডিয়া থেকে হঠাৎই আনফলো করে দেন তার প্রিয় সালমানকে। তার পরই রটে যায় সালমানের ‘কাভি ঈদ কাভি দিওয়ালি’ ছবি থেকে নাকি বাদ পড়েছেন শেহনাজ।

গতকাল রাতেই এ বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের প্রতিক্রিয়া জানান শেহনাজ। ইনস্টাগ্রামে তিনি লেখেন, ‘গত কয়েক সপ্তাহ ধরে এই গুজবগুলো আমার বিনোদনের খোরাক। দর্শক ছবিটি কবে দেখবেন, এটা ভেবেই আমি আর অপেক্ষা করতে পারছি না। আর অবশ্যই ছবিতে আমাকে দেখা যাবে।’

অর্থাৎ শেহনাজ আছেন ‘কাভি ঈদ কাভি দিওয়ালি’তে। অবশ্য সালমান খান সম্পর্কে একটা কথাও লেখেননি অভিনেত্রী। এমনকি সালমানকে তিনি কেন আনফলো করেছেন, সেটা নিয়েও কিছু বলেননি।

সালমান খানের পরের ছবি ‘কাভি ঈদ কাভি দিওয়ালি’ দিয়ে বলিউডে পা রাখছেন শেহনাজ গিল। এর আগে পাঞ্জাবি ছবিতে কাজ করেছেন। মিউজিক ভিডিওতেও তাকে দেখা গেছে। হিন্দি ছবিতে এই প্রথম। তাই সালমানের ছবি থেকে শেহনাজের বাদ পড়ার খবর শুনে অনেকেই বেশ অবাক হন। তবে শেহনাজ জানালেন, তিনি আছেন ছবিতে।

গত ঈদুল ফিতরে সালমানের ছোটবোন অর্পিতা খানের বাড়ির পার্টিতে শেহনাজের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা সবার নজর কাড়ে। পার্টি শেষে শেহনাজকে গাড়িতে তুলে দিতে নিজেই এসেছিলেন সালমান। তাদের একে-অপরকে জড়িয়ে ধরা, সালমানকে দেওয়া শেহনাজের চুমু- সবই ভাইরাল হয়েছিল।

কিছুদিন আগেও ‘সালমান স্যার’ বলতে পাগল ছিলেন শেহনাজ। হঠাৎ কী হলো যে তাকে ইনস্টাগ্রামে আনফলো করে দিলেন! অনেকে ধারণা করছেন, ‘কাভি ঈদ কাভি দিওয়ালি’ নিয়ে দর্শকদের বেশি আগ্রহ সৃষ্টির জন্যই পরিকল্পিতভাবে এমন কাণ্ড করেছেন শেহনাজ। তবে সত্যিটা আসলে কী, তা জানা যাবে সালমান বা শেহনাজ মুখ খুললেই।