সোমবার, ৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৩২ মণ ওজনের ‘লাল বাদশা’, দাম ৮ লাখ টাকা

news-image

পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুর সদর উপজেলায় ঈদুল আজহা উপলক্ষে বিক্রির জন্য প্রায় ৮ হাজার গরু ও ছাগল-ভেড়া প্রস্তুত রয়েছে। যা উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্য উপজেলায়ও বিক্রি হবে বলে আশা করছেন স্থানীয় খামারিরা। তবে সব কিছু ছাড়িয়ে সবার নজর কাড়ছে সদর উপজেলার কদমতলা ইউনিয়নের ভোরা গ্রামের ‘লাল বাদশা’ নামের এক গরু।

শাহীওয়াল জাতের ‘লাল বাদশা’র ওজন ৩২ মণ। ঈদ উপলক্ষে লাল বাদশার দাম হাঁকা হয়েছে ৮ লাখ টাকা। কোরবানিতে গরুটিকে বিক্রি করে নিজের জীবন-সংসারকে আলোকিত করার স্বপ্ন দেখছেন মালিক সাখাওয়াত হোসেন।

‘লাল বাদশা’ বর্তমানে পিরোজপুরের জেলার সবচেয়ে বড় গরু বলে জানিয়েছেন পিরোজপুর সদর উপজেলার প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শুভঙ্কর দত্ত।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দৈহিক উচ্চতা ও গড়নে যেমন, তেমনই চলাফেরা ‘লাল বাদশা’র। মেজাজ প্রচণ্ড গরম। তাকে নড়াচড়া করানোর জন্য প্রয়োজন হয় ৭-৮ জন লোক। প্রতিদিনই তাকে ২-৩ বার গোসল করাতে হয়। বর্তমানে এই গরুটিকে ভরণ-পোষণে হিমশিম খাচ্ছেন মালিক সাখাওয়াত হোসেন। প্রায় সাড়ে ৫ ফুট উচ্চতার লাল রঙের লাল বাদশাকে নিয়ে ইতোমধ্যে এলাকায় আলোড়নের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকায় গরুটিকে দেখতে অনেক দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসছেন।

গরুটির মালিক সাখাওয়াত হোসেন বলেন, লাল বাদশা’র খাদ্য তালিকায় রয়েছে দেশি ঘাস, খৈল, ভুষিসহ সব দেশীয় খাদ্য। ‘লাল বাদশা’র ওজন প্রায় ৩২ মণ হয়েছে। এ বছর কোরবানি ঈদে বিক্রির জন্য লাল বাদশার দাম হাঁকা হয়েছে ৮ লাখ টাকা।

তিনি বলেন, ‘শাহীওয়াল জাতের এই গরুটিকে আমি বাছুর অবস্থায় কিনেছিলাম। প্রাকৃতিকভাবে আমরা স্বামী-স্ত্রী মিলে ঘাস, খড়-কুটো খাইয়ে গরুটিকে এই ৪ বছর ধরে লালন-পালন করছি। এখন আর তার সঙ্গে শক্তিতে পারি না। ৮ লাখ টাকায় গরুটিকে বিক্রি করতে পারলে আমার খরচ উঠবে।’

কদমতলা ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘গরুর মালিক মালিক সাখাওয়াত নিজ প্রচেষ্টায় কৃত্রিম কোনো কিছু ছাড়া সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে গরুটিকে গত কয়েক বছর ধরে অনেক কষ্ট করে লালন-পালন করেছেন।’

পিরোজপুর সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শুভঙ্কর দত্ত বলেন, ‘‘আমরা গরুটির সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিয়ে জানতে পেরেছি, ‘লাল বাদশা’ বর্তমানে পিরোজপুর জেলার সব থেকে বড় গরু। ‘লাল বাদশা’ ছাড়াও এই উপজেলায় ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে বিক্রির উদ্দেশ্যে ৩ হাজার ৩৮০টি গরু ও ৪ হাজার ৫৪৫ টি ছাগল-ভেড়া প্রস্তুত রয়েছে। যা আমাদের উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্য উপজেলায় বিক্রি হবে বলে আশা করছি।’

 

এ জাতীয় আরও খবর