বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম ও এর লক্ষণ

news-image

নিউজ ডেস্ক ; পি সি ও এস হলো পলি সিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম, যা কিনা একটি এন্ডোক্রিন সিস্টেম ডিসঅর্ডার। এই অবস্থায় ওভারিতে প্রচুর এন্ডোজেন তৈরি হয় যা ডিম্বাণু তৈরি ও নিঃসরণে বাধা সৃষ্টি করে। এই ডিম্বাণুগুলির কয়েকটা তরল পূর্ণ সিস্টে পরিণত হয়ে ওভারিতে জমা হয় ও একে ফুলিয়ে দেয়, একাধিক সিস্টকে একসঙ্গে বলা হয় পলিসিসিস্ট। এই সিস্টগুলো ওভারির অরগ্যানগুলোর স্বাভাবিক কার্যক্ষতা কমিয়ে দেয়।

অনিয়মিত পিরিয়ড-

অনিয়মিত ঋতুচক্র পলিসিস্টিক ওভারির বড় একটি লক্ষণ। হরমোনের তারতম্যের ফলে অনিয়মিত পিরিয়ড হয়। তারতম্য বেশি হলে বছরে দুই-তিনবার বা তারও কম পিরিয়ড হয়। বিবাহিতাদের সন্তান ধারণে সমস্যা হয় অনিয়মিত পিরিয়ডের জন্য। এটি আপনার গর্ভবতী হওয়ার ক্ষমতাতেও হস্তক্ষেপ করতে পারে।

অত্যধিক রক্তপাত-

যখন আপনার জরায়ুর আস্তরণ সময়ের সাথে তৈরি হয়, আপনি খুব ভারী রক্তপাতের সাথে পিরিয়ড অনুভব করতে পারেন। পিসিওএস-এ আক্রান্ত অনেকেরই পরপর একাধিকবার পিরিয়ড মিস হয়। ফলে তাদের পিরিয়ড যখন হয়, তখন রক্তপাত স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক বেশি হয়।

স্থূলতা-

পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম গ্লুকোজ অসহিষ্ণুতা সৃষ্টি করতে পারে, যার ফলে ওজন বৃদ্ধি পেতে পারে। প্রায় ৮০ শতাংশ মহিলা যাদের পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম আছে তাদের ওজন বেশি বা স্থূল।

ব্রণ-

যদি আপনার পুরুষ হরমোনের স্বাভাবিক উৎপাদনের চেয়ে বেশি থাকে, তাহলে আপনার ত্বক তৈলাক্ত হয়ে উঠতে পারে, যার ফলে আপনার মুখ, পিঠ এবং বুকে ব্রেকআউট হতে পারে।

অবাঞ্ছিত চুল বৃদ্ধি-

লোমের আধিক্য: পিসিওএস-এ নারীর শরীরে পুরুষ হরমোনের পরিমাণ স্বাভাবিক মাত্রার থেকে অনেকটাই বেড়ে যায়। এই হরমোনের জন্যই মুখ, পেট ও বুকের বিভিন্ন অংশে লোমের বৃদ্ধি হতে থাকে।

মাথাব্যথা-

হরমোনের ভারসাম্যহীনতার ফলে তীব্র মাথাব্যথা হতে পারে।

টাক-

আপনার শরীরের পুরুষ হরমোনগুলি আপনাকে পুরুষ-প্যাটার্ন টাক অনুভব করতে পারে, যার ফলে আপনার মাথার ত্বকের কিছু অংশের চুল পাতলা হয়ে পড়ে এবং পড়ে যায়।

ত্বকের বিবর্ণতা-

পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম এর কারণে আপনার ত্বকে আপনার ঘাড়, কুঁচকি বা আপনার স্তনের নিচে কালো দাগ তৈরি হতে পারে।

 

এ জাতীয় আরও খবর