বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাছ ধরার ফাঁদ ( আনতা) বেচা-কেনার ধুম

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : বর্ষা মানেই খাল -বিলে থৈ থৈ পানি, নদী-নালা খাল-বিল নতুন পানিতে টইটুম্বুর হয়ে যাওয়া। আর নতুন পানিতে ছুটে আসে নানা প্রজাতির মাছ। তাই গ্রামাঞ্চলে নানা কৌশলে মাছ ধরা হয়। বাঁশ দিয়ে তৈরি আনতা , চাই ,খৈলশুন (বৃত্তি), ভাঁইড় (চোকা) এ রকম মাছ ধরার যন্ত্র/ফাঁদ তৈরি এবং কেনা-বেচায় ধুম পড়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরসহ বিভিন্ন উপজেলায়। মাছ ধরার অপেক্ষাকৃত সহজ কৌশল হল মাছ চলাচলের পথে এ ফাঁদ পেতে রাখা। দেশীয় মাছের স্বাদ নিতে  গ্র্রামের খালে, বিলে এবং উম্মুক্ত জলাশয়ে এ ফাঁদ পেতে মাছ ধরেন গ্র্রামের সকল শ্রেণি -পেশার মানুষ। তাই এখানকার হাট-বাজারগুলোতে এখন মাছ ধরার ফাঁদ কেনা-বেচার ধুম পড়েছে।
জানা যায়, উপজেলার মাঝিয়ারা, শ্রীঘর বাজার, শ্যামগ্রাম, ভোলাচং, বাঙ্গরা বাজার, শিবপুর, বিটঘর , বাইশমৌজা প্রভৃতি হাট-বাজারগুলোতে মাছ ধরার এ দেশী যন্ত্রগুলো বেশি বিক্রি হয়। এ ফাঁদ তৈরির নির্মাতারা এখন ব্যস্ত সময় পাড় করছেন। তারা বাঁশ কেনা, বাঁশ কাটা, শলাকা তৈরি করা, ফাঁদ বোনার কাজ করেন। এ নিয়ে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ব্যস্ত থাকে তাদের পরিবারগুলো। আনতা প্রস্তুতকারী সোহেল মিয়া জানান, এখন আনতা/চাই তৈরিতে আমরা ব্যস্ত। পরিবারের সবাই মিলে এই কাজ করি। এই আয় দিয়েই সংসার চলে। দেশীয় বাঁশ দিয়ে এসব উপকরণ তৈরি করা হয়।
আরেক প্রস্তুতকারী মাহফুজ হোসেন জানান, একটি ভালো বাঁশ থেকে ৩টি আনতা তৈরি করা যায়। প্রতিটি আনতা বিক্রি হয় ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত।
এ ছাড়া ও আনতা/চাই প্রস্তুতকারী সুমন মিয়া, ইছু মিয়া, সুবল দাস জানান. একটি বড় বাঁশের দাম পড়ে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। ধারালো দা দিয়ে বাঁশের শলাকা তৈরি করা হয়, প্রতিটি শলাকা  বা কাঠি নিখুঁত ভাবে বুনন করে বেত /সুতা  দিয়ে বেঁধে তৈরি করা হয় আনতা/চাই নামক মাছের ফাঁদ। বাঁশ কেটে, শলাকা তৈরি করে একজন মানুষের পক্ষে দিনে ৩টি আনতা তৈরি করা সম্ভব। উপজেলার টিয়ারা গ্রাম থেকে আনতা কিনতে আসা আক্কাস আলী জানান, প্রতি বছর শখের বসে আমি ৩/৪টি আনতা ক্রয় করি। বাড়ির পাশে খালে/ড্রেনে (নালাতে) এ গুলো ব্যবহার করে চিংড়ি, পুঁটি, চান্দা, বৈচা, খৈলশা, ডানকানা, মলা, বাইম/গুতুম, শিং, টেংরা, ছোট টাকি প্রভৃতি মাছ ধরি। এতে বাজার থেকে আর মাছ কিনতে হয় না।
বাইশমৌজা বাজারের ইজারাদার জানান, বছরের এই সময় প্রতি সপ্তাহের হাটে চলে কেনা-বেচার ধুম। প্র্রয়োজনের তুলনায় বাজারে আনতা/চাইয়ের সরবরাহ কম থাকায় দাম একটু বেশি। কয়েক দিন পর সরবরাহ বাড়বে বলে জানান তিনি।

এ জাতীয় আরও খবর