শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাকিবের মতো ‘ভুল’ করে নিষিদ্ধ হচ্ছেন টেলর

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : ২০১৯ সালের ২৮ অক্টোবর, রাত থেকেই খবর ছড়িয়ে পড়ে আইসিসির নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হতে চলেছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। পরদিন আইসিসি আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করার আগেই সমকালের প্রতিবেদনে দেশবাসী জানতে পারেন সাকিবের নিষিদ্ধের খবর। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারে ক্যারিয়ারে যোগ হয়েছে একটি কালো স্পট। সব ধরনের ক্রিকেট থেকে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন বাংলাদেশের সেরা এই ক্রিকেটার।

সাকিবের মতো একই অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে চলেছে জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটপ্রেমীরা। সাকিবের মতো একই ভুলে নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হতে চলেছেন জিম্বাবুয়ের সাবেক অধিনায়ক ব্রেন্ডন টেলর। সাকিবের মতো তিনিও জুয়ারিদের প্রস্তাব গোপন রেখে নিষিদ্ধ হতে চলেছেন। সম্প্রতি টুইটারে এই প্রসঙ্গে নিজের বক্তব্য জানিয়েছেন তিনি।

সোমবার নিজের অফিশিয়াল টুইটার একাউন্ট থেকে টুইট করে নিজের বিবৃতিতে টেলর জানান, টেলরের বক্তব্য অনুযায়ী, ‘আমি আসলে কিছুটা চিন্তিত ছিলাম, না করতে পারছিলাম না। সে সময় জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট (জেডসি) ৬ মাস ধরে আমাদের পারিশ্রমিক দিতে পারছিল না এবং জিম্বাবুয়ে আর কখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে পারবে কিনা তা নিয়েও শঙ্কা ছিল। যার ফলে আমি চলে যাই (ভারতে)। সেখানে আলোচনা হয়েছিল এবং শেষ রাতে হোটেলে ব্যবসায়ী এবং তার সহকর্মীদের সাথে আমাকে ডিনারেও নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।’

সেই ব্যবসায়ীর সাথে আলোচনা করার জন্য ভারতে যেতে ১৫০০০ হাজার মার্কিন ডলার পেয়েছিলেন টেলর।

টেলর আরও জানান, ‘আমরা সেখানে পান করেছিলাম এবং তারা আমাকে কোকেইন নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল, যা আমি বোকার মত গ্রহণ করেছিলাম। পরদিন সকালে সেই লোক আমার হোটেল রুমে ঢুকে আমাকে ভিডিও (মাদক গ্রহণের) দেখিয়ে বলে আমি যদি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তাদের হয়ে স্পট ফিক্সিং না করি তখন তা ছড়িয়ে দেওয়া হবে। সেখানে ৬ জন মানুষ ছিল, আমি নিজের নিরাপত্তার কথা ভেবে বেশ ভয় পেয়ে যাই। সেখানে বলা হয় কাজ শেষ হলে আরো ২০০০০ মার্কিন ডলার দেওয়া হবে। আমি সেই টাকা নিতে বাধ্য হই কারণ আমাকে প্লেনে চড়ে ভারত ত্যাগ করতে হবে, আমার হাতে অন্য কোনো উপায় ছিল না।’

ঘটনার ৪ মাস পর আইসিসিকে সবকিছু জানান টেলর। তবে এতকিছুর পরেও তিনি কোনো প্রকার ফিক্সিংয়ের সাথে জড়িত ছিলেন না বলেই জানিয়েছেন। তবে এই ঘটনার জেরে আইসিসি তাকে একাধিক বছরের জন্য নিষিদ্ধ করতে পারে বলে জানিয়েছেন টেলর।

টেলর জানান, ‘আমি জানাতে চাই আমি কোনো প্রকার ম্যাচ ফিক্সিংয়ের সাথে জড়িত ছিলাম না। আমি প্রতারক নই। ক্রিকেটের প্রতি আমার ভালোবাসা অনেক বেশি।’

গত বছরের সেপ্টেম্বরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন টেলর। প্রায় ১৭ বছরের ক্যারিয়ার ছিল তার, ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়ের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান-সংগ্রাহক তিনি।

এ জাতীয় আরও খবর