সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য নিরসনে চার প্রস্তাব যাত্রী কল্যাণ সমিতির

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় গণপরিবহনগুলোতে নেওয়া হচ্ছে নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অতিরিক্ত ভাড়া। গাড়িতে যাত্রীদের সঙ্গে কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনাও ঘটছে। এই নৈরাজ্য বন্ধে আজ বৃহস্পতিবার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে চারটি প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

চিঠিতে ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরী এবং দূরপাল্লার বিভিন্ন রুটে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার সরেজমিন চিত্র তুলে ধরে সমিতি। যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরীর পক্ষ থেকে চিঠিটি পাঠানো হয়।

প্রস্তাবগুলো হলো- দেশে অযৌক্তিকভাবে বাড়ানো গণপরিবহন ভাড়া বাতিল করে ন্যায্য ও গ্রহণযোগ্য ভাড়া নির্ধারণ করা, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে দেশে সব ধরনের যানবাহনের সামনে সেটি কোন ধরনের জ্বালানি তা উল্লেখ করে স্টিকার লাগানো, রাজধানীর বাসগুলোতে ওয়েবিল পদ্ধতি বাতিল করা, গণপরিবহনে টাকা তুলতে মালিকদের চাপানো দৈনিক টার্গেট বাতিল করা।

সমিতি জানিয়েছে, ডিজেলচালিত বাস-মিনিবাসে ভাড়া বাড়ার কথা থাকলেও সিএনজি, পেট্রল ও অকটেনচালিত সব ধরনের বাস-মিনিবাস, হিউম্যান হলার, টেম্পো, অটোরিকশা, প্যাডেলচালিত রিকশা ও মোটরসাইকেলে যাতায়াতে ভাড়া বেড়েছে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরী এবং শহরতলিতে চলাচল করা গণপরিবহনে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে কয়েক গুণ বাড়তি ভাড়া মানুষের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে।

চিঠিতে বলা হয়, গুলিস্তান থেকে শাহবাগের দূরত্ব সাড়ে ৩ কিলোমিটার। এ পথে আগে যেসব বাসে ১০-২৫ টাকা ভাড়া আদায় করা হতো, এখন ১৫-৩৫ টাকা আদায় করা হচ্ছে। অথচ এ পথে সরকারনির্ধারিত ভাড়া ১০ টাকা। চট্টগ্রাম মহানগরীর শাহ আমানত সেতু থেকে পটিয়া ২০ কিলোমিটার পথে ৩৫ টাকা ভাড়ার জায়গায় আগে ৬০ টাকা নেওয়া হতো। এখন ৮০ থেকে ১০০ টাকা আদায় করা হচ্ছে।

বাস-মিনিবাসের ভাড়া বাড়ার সঙ্গে সব ধরনের যানবাহনের ভাড়া অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছে যাত্রী কল্যাণ সমিতি। এসব বাহনের ৯৮ শতাংশ সিএনজিচালিত হলেও বাসভাড়া বৃদ্ধির অজুহাতে তারা অন্যায়ভাবে ভাড়া বাড়িয়েছে বলে উল্লেখ করেছে সংগঠনটি।