রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, চার জেলায় নিহত ৬

news-image

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চলের বাঁশগাড়ি ইউনিয়নে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে ৩ জন নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সকালে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলো বাঁশগাড়ি ইউনিয়নের মৃত হেকিম মিয়ার ছেলে সালাউদ্দিন (৩০), হক মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর (২৬) ও হাজী সিরাজ মিয়ার ছেলে দুলাল (৪৫)। নিহত জাহাঙ্গীর ও সালাহউদ্দিন এর লাশ ময়না তদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে এবং দুলাল মিয়ার লাশ তার বাড়িতে রয়েছে। এই তিন জনই নৌকার প্রার্থী আশরাফুল হকের সমর্থক বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা।

এদিকে কক্সবাজার প্রতিনিধি আয়াজ রনি জানায়, সদর উপজেলার খুরুশকুল ইউপি নির্বাচনের ভোট চলাকালীন সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ হয়ে আক্তারুজ্জামান পুতু (৩৫) নামে একজন নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় আরও ৬ জন আহত হয়। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সকালে খুরুশকুল ইউনিয়নের তেতৈয়ায় ঘটনাটি ঘটে। নিহত আকতারুজ্জামান খুরুশকুল ১ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য প্রার্থী (বর্তমান মেম্বার) শেখ কামালের ছোট ভাই। কক্সবাজার র‍্যাব-১৫ এর সিপিএসসি কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছেন।

কুমিল্লা প্রতিনিধি রুবেল মজুমদার জানান, মেঘনা উপজেলার মানিকারচর ইউনিয়নের আমিরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সংঘর্ষে তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন। হাসপাতালে নেওয়ার পর সেখানে শাওন আহমেদ (২৫) একজনের মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার বল্লভপুর গ্রামের মোবারক হোসেনের ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের চিকিৎসক সালাউদ্দিন মোল্লা। বেলা ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, একদল বহিরাগত ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ করে। এ সময় পুলিশ বাধা দিলে বহিরাগতদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ব্যক্তির নাম- মো. সফি। জানা গেছে, লেলাং ৮ নম্বর ওয়ার্ডের গোপালঘাটা আনন্দ বাজারে ইউপি মেম্বার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে স্থানীয় ব্যবসায়ী মো. সফি নিহত হন। ফটিকছড়ি থানা ওসি (তদন্ত) মো. শামসুদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। বাংলানিউজ

মেহেরপুরের মুজিবনগরের মহাজনপুর ইউনিয়নের কোমরপুর কেন্দ্রে নৌকা এবং আনারস প্রার্থীর মধ্যে বাক যুদ্ধের ঘটনায় পুলিশ ৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করেছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে পুলিশ।বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) সকাল ১০ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

কেন্দ্র আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী রেজাউর রহমান নান্নুর সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আনারস প্রতীকের আমাম হোসেন মিলুর বাক যুদ্ধ শুরু হয়। এক পর্যায়ে উত্তেজনা ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়।

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার চালিয়াভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। এ ঘটনায় প্রায় আধাঘণ্টা ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সকাল ৮টায় ভোট শুরুর আধাঘণ্টা পর উপজেলার চালিয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের রামপ্রসাদেরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলায় কেন্দ্র দখলে নিতে হামলা ও গোলাগুলির ঘটনায় দুই জন আহত হয়েছেন। বুধবার (১০ নভেম্বর) দিবাগত রাতে উপজেলার চরগাজী ইউনিয়নের পূর্ব বয়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এই ঘটনা ঘটে।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়িতে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ইউনিয়ন পরিষদের ভোটগ্রহণ। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) ভোরে এ সংঘর্ষ হয়। এসময় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে একপক্ষের সমর্থকরা।

নারায়ণগঞ্জের বন্দরের ধামগড় ইউনিয়ন পরিষদের জাঙ্গাল এলাকায় নির্বাচনের আগের রাতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (১০ নভেম্বর) দিবাগত রাতে ১২টার সংঘর্ষ শুরু হয়, চলে ঘণ্টাব্যাপী। এতে উভয়পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হন। পুলিশ বলছে, একদল বহিরাগত সন্ত্রাসী কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করছিল। তাদের প্রতিহত করতে শতাধিক রাবার বুলেট, শর্টগানের গুলি ছুড়েছে পুলিশ। তিন জন পুলিশ সদস্য আহত হয়ে ঢাকায় চিকিৎসা নিচ্ছেন। ঘটনাস্থল থেকে পাঁচ জনকে আটক করা হয়।

যশোরের চৌগাছা উপজেলায় ভোটকেন্দ্রে পুলিশের গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় জগদীশপুর ইউনিয়নের মাড়ুয়া স্কুলকেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এছাড়া নৌকা প্রার্থীর সমর্থকদের ছোড়া ইটের আঘাতে অন্তত পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হন। এসময় ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়ে যায়।

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার আন্ডারচর ভোটকেন্দ্রে হামলা, হাতবোমা ও ককটেল বিস্ফোরণে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। মাদারীপুরে ভোটকেন্দ্রে বোমা-ককটেল বিস্ফোরণ বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে আন্ডারচর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে একদল দুর্বৃত্ত এ হামলা চালায়। এ সময় হাতবোমা ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। প্রশাসন জানায়, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে কেন্দ্রটিতে ভোটগ্রহণ সাময়িক স্থগিত করা হয়।

দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে। সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮টি ইউপির তফসিল ঘোষণা করা হলেও ভোট হচ্ছে ৮৩৮ ইউপিতে। কেননা, চারটির ভোট স্থগিত করা হয়েছে। একটির ভোট বাতিল করেছে ইসি। আর পাঁচটিতে সব প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ২৬টি ইউপিতে ভোটগ্রহণ হচ্ছে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে।

তথ্যসূত্র : বাংলা ট্রিবিউন, বাংলানিউজ ও বিডিনিউজ২৪