সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পরকীয়ার বলি সজীব, স্বর্ণ চালানের তথ্য না দেওয়ায় খুন হন আলম

news-image

চট্টগ্রামপ্রতিবেদক : গত ২৭ অক্টোবর চট্টগ্রাম নগরের পাহাড়তলীর একটি জমি থেকে উদ্ধার করা হয় অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তির মরদেহ। এর দুদিন পর ২৯ অক্টোবর বাঁশখালীর একটি ধানক্ষেত থেকে উদ্ধার করা হয় অজ্ঞাতপরিচয় আরেক ব্যক্তির অর্ধগলিত মরদেহ। ঘটনাস্থলে পৌঁছেই প্রযুক্তির সহায়তায় মরদেহ দুটির পরিচয় শনাক্ত করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

তদন্ত সংশ্লিষ্টদের ভাষ্য মতে, পাহাড়তলী এলাকায় উদ্ধার হওয়া মরদেহটি মো. সজীবের। তিনি খুন হন পরকীয়ার জেরে। অন্যদিকে বাঁশখালী থেকে উদ্ধার হওয়া মরদেহ শাহ আলমের। তিনি খুন হন স্বর্ণ চালানের তথ্য না দেওয়ায়। এ দুটি হত্যাকাণ্ডের আসামিদের গ্রেফতার করেছে পিবিআই।

সজীব নোয়াখালীর চাটখিল থানা এলাকার বাসিন্দা আবদুল হক স্বপনের ছেলে। তাকে হত্যায় গ্রেফতার হয়েছেন নুরুল আমিন ও শাহজাহান নামে দুজন। এদের মধ্যে আমিন পেশায় টাইলস মিস্ত্রি। তিনি হবিগঞ্জের বানিয়াচং থানার ইদ্রিস আলীর ছেলে। শাহজাহান পেশায় রং মিস্ত্রি। তিনি কুমিল্লার দেবিদ্বার থানার বাসিন্দা আবুল হোসেনের ছেলে।

অন্যদিকে শাহ আলম চট্টগ্রাম নগরের ডবলমুরিং থানার বেপারীপাড়া এলাকার চান মিয়ার ছেলে। তাকে হত্যায় গ্রেফতার হয়েছেন শহিদুল ইসলাম ওরফে বেলাল ও নুরুল আমিন ওরফে রনি নামে দুজন। এদের মধ্যে বেলাল নগরের ডবলমুরিং থানার চৌমুহনী এলাকার বাসিন্দা জামাল উদ্দিন মাস্টারের ছেলে এবং নুরুল আমিন বরিশালের উজিরপুর থানার নুরুজ্জামানের ছেলে।

সজীবকে হত্যার নেপথ্যে
তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, হবিগঞ্জের নুরুল আমিনের (২৭) সঙ্গে দ্বন্দ্ব চলছিল তার স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসের। এর জেরে জান্নাত আরেক যুবক সজীবের (২৭) সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। বিষয়টি জেনে স্ত্রীকে তালাক দেন নুরুল আমিন। কিছুদিন পর জান্নাতকে আবার ফিরে পেতে মরিয়া হন নুরুল। কিন্তু পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়ান সজীব। তাই পরিকল্পনা করে সজীবকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেন তিনি।

ঘটনার পরদিন সজীবের ভাই মো. ইকবাল হোসেন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে পাহাড়তলী থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্তভার পায় পিবিআইয়ের চট্টগ্রাম মেট্রো ইউনিট। ইউনিটের সুপার নাইমা সুলতানার নির্দেশনায় তদন্তের জন্য একটি টিম গঠন করা হয়। এরপর ২৭, ২৮ ও ২৯ অক্টোবর টানা অভিযান চালিয়ে হবিগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করা হয় নুরুল আমিনকে। আর চট্টগ্রামের আকবর শাহ এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় শাহজাহানকে।

এরই মধ্যে গত শনিবার (৩০ অক্টোবর) নুরুল আমিন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার জাহানের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, নুরুল আমিন তার জবানবন্দিতে জানিয়েছেন, হত্যাকাণ্ডের শিকার সজীব পিকআপচালক ছিলেন। আর তিনি (নুরুল আমিন) তার স্ত্রী জান্নাতকে নিয়ে চট্টগ্রাম শহরে থাকতেন। কিন্তু দেশে লকডাউনের সময় আর্থিক অনটনে পড়ে স্ত্রীকে নিয়ে হবিগঞ্জ বানিয়াচংয়ের গ্রামে চলে যান নুরুল আমিন। ওই সময় তাদের মধ্যে সাংসারিক নানা বিষয় নিয়ে মনোমালিন্য দেখা দিতো। একদিন নুরুল আমিন তার স্ত্রীকে মারধর করেন।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে জান্নাত চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিশ্বরোড এলাকায় এসে চট্টগ্রামগামী একটি পিকআপে ওঠেন তিনি। ওই পিকআপে জান্নাতের সঙ্গে পরিচয় হয় সজীবের। এরপর তাদের মধ্যে ফোনালাপ থেকে প্রেমের সম্পর্ক হয়। বিষয়টি জেনে স্ত্রীকে তালাক দেন নুরুল আমিন। তালাক দেওয়ার পর সজীবের সঙ্গে জান্নাতের সম্পর্ক আরও বেড়ে যায় এবং এক পর্যায়ে তারা বিয়ের পরিকল্পনা করেন।

তালাকের পর নুরুল আমিন তার স্ত্রীকে পুনরায় বিয়ে করতে চান। কিন্তু পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়ান সজীব। তাই স্ত্রীকে ফিরে পেতে সজীবকে হত্যার পরিকল্পনা করেন নুরুল আমিন। বিষয়টি নিয়ে নিজের পরিচিত শাহজাহানের সঙ্গে আলাপ করেন তিনি। এ জন্য পাঁচ হাজার টাকা দাবি করেন শাহজাহান।

পরিকল্পনা মোতাবেক ২৫ অক্টোবর দিনগত রাতে কাজী অফিসে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে সজীবকে কাট্টলী এলাকায় নিয়ে যান নুরুল আমিন, শাহজাহান ও তাদের সহযোগীরা। এক পর্যায়ে সজীব পালানোর চেষ্টা করলে তার গলায় গেঞ্জি পেঁচিয়ে হত্যা করেন আসামিরা। ঘটনার পর নুরুল আমিন পাহাড়তলী থানার অলংকার মোড়ের একটি হোটেলে রাতে থাকেন। পরদিন সকালে উঠে চলে যান হবিগঞ্জে। সেখান থেকে পিবিআইয়ের একটি টিমের হাতে গ্রেফতার হন নুরুল আমিন। এরপর আদালতে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

পিবিআই চট্টগ্রাম মেট্রোর সুপার নাইমা সুলতানা জাগো নিউজকে বলেন, একটি ত্রিভুজ প্রেমের দ্বন্দ্বের জেরে খুন হন সজীব। গ্রেফতার দুই আসামির মধ্যে একজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। অপরদিকে রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে আরেক আসামির জন্য। এছাড়া হত্যাকাণ্ডে জড়িত অন্য আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান এবং মামলাটি তদন্ত করা হচ্ছে।

শাহ আলম খুনের নেপথ্যে
তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, গাড়িতে করে চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিভিন্ন লোকজনের স্বর্ণের বার পরিবহন করতেন শাহ আলম। এসব স্বর্ণ চালানের বিষয়ে তথ্য চাইতেন শহিদুল ইসলাম ওরফে বেলাল। তার উদ্দেশ্য ছিল ছিনতাই করা। কিন্তু শাহ আলম এসব তথ্য দিতে অস্বীকার করলে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। একপর্যায়ে শাহ আলমকে জুসের সঙ্গে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেন বেলাল।

বাঁশখালী উপজেলার ধানক্ষেত থেকে শাহ আলমের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধারের পর তার মেয়ে আয়েশা আক্তার বাদী হয়ে বাঁশখালী থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্ত শুরু করে পিবিআই। এরপর ঘটনাস্থলের পাশে তৈলারদ্বীপ সেতু এবং চট্টগ্রামের শাহ আমানত সেতুর সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়।

এসব ফুটেজ বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২৬ অক্টোবর সকালে একটি প্রাইভেট গাড়িতে করে চট্টগ্রাম থেকে বের হন শাহ আলম। কিন্তু সেদিন বিকেলে তিনি আর বাসায় ফেরেননি। পরদিন বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে একই গাড়িটি নম্বর প্লেটবিহীন অবস্থায় চট্টগ্রাম শহর থেকে বের হয়। এরপর গাড়িটি রাত সাড়ে ৮টার দিকে তৈলারদ্বীপ সেতু হয়ে বাঁশখালী প্রবেশ করে এবং কয়েক মিনিট পর আবার ফিরে আসে। এর কয়েক ঘণ্টা পর গাড়িটি রাত ১০টার দিকে চট্টগ্রাম শহরে প্রবেশ করে।

তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, ২৬ অক্টোবর শাহ আলম গাড়ির মালিককে নিয়ে পটিয়া এলাকায় যান এবং বিকেলে ফেরত আসেন। পরে গাড়ির মালিককে তিনি কোর্ট বিল্ডিং এলাকায় নামিয়ে দেন। একইদিন বিকেলে তিনি পূর্বের বিরোধ মেটাতে বেলালের রড-সিমেন্টের দোকানে যান। সেখানে শাহ আলমকে জুসের সঙ্গে চেতনানাশক ওষুধ খাওয়ান বেলাল। একপর্যায়ে শাহ আলম নিস্তেজ হয়ে পড়লে তাকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে হত্যা করা হয়। এরপর গাড়িতে মরদেহটি একদিন রাখা হয়। ২৭ অক্টোবর নুরুল আমিন ওরফে রনিসহ অন্যান্য আসামিদের সহায়তায় মরদেহ বাঁশখালীর শাকপুরা ইউনিয়নের সড়কের পাশে ফেলে আসেন বেলাল। দুদিন পর মরদেহটি দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা পুলিশে ফোন দেন। এরইমধ্যে শাহ আলমকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে কোতোয়ালি থানায় জিডি করেন স্বজনরা। মরদেহ উদ্ধারের পর হয় হত্যা মামলা।

পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান জাগো নিউজকে বলেন, শাহ আলম হত্যা মামলার তদন্তভার পেয়ে মাত্র ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অর্থাৎ ৩০ অক্টোবর দুই আসামিকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর তাদের দেওয়া স্বীকারোক্তিতে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত প্রাইভেটকার, হাতুড়ি ও চেতনানাশক ওষুধ জব্দ করা হয়।