বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নিরন্ন মানুষের জন্য সাংবাদিকের ‘মেহমান খানা’

news-image

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ‘হামরা ভিক্ষুক বারে, একবেলা খাই তো একবেলা না খায়ে থাকি। দিনের খাওয়া যোগার করা হামার তানে কষ্টের সেইঠে মাছ-মাংস দিয়া পেট ভরে ভাত খাবা পারিমো এইটা তো স্বপ্নেও ভাবু নাই মুই। যায় হামাক খাওয়াছে আল্লাহ ওর ভালা করিবে।’

‘মেহমান খানা’য় খেতে খেতে কথাগুলো বলছিলেন খদেজা বেওয়া (৬০)। ভিক্ষা করে কোনরকম খেয়ে না খেয়ে জীবন কাটছে খদেজা বেওয়ার। কোন একজনের কাছে খবর পেয়ে মেহমান খানায় এসেছেন খাবার খেতে।

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় বাজারের পাশে প্রতি শুক্রবার জুম্মা’র নামাজ শেষে ‘মেহমান খানা’র আয়োজন করা হয়। নিরন্ন মানুষদের জন্য বিনামূল্যে একবেলা উন্নতমানের খাবার খাওয়ানো হয় এখানে। বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ৮ ইউনিয়নসহ পাশ্ববর্তী রাণীশংকৈল ও সদর উপজেলা থেকে ভিক্ষুক, মানসিক ভারসাম্যহীন, নিম্নআয়ের মানুষ এখানে একবেলা মাংস ও মাছ দিয়ে ভাত খাচ্ছেন। এ কর্মযজ্ঞ শুরুতে কম মানুষ আসলেও দিন দিন মেহমানদের ভিড় বাড়ছে। প্রথমে ৩০/৪০ জন হলেও এখন প্রতি শুক্রবার এখানে ১৫০/২০০শ’ জন মানুষের পেট ভরে ফ্রিতে খেতে পারে।

স্থানীয় সিনিয়র সাংবাদিক হারুন অর রশিদ ব্যক্তিগত উদ্যোগে উপজেলার মাছ বাজার সংলগ্ন বিডিও স্যানিটেশন ফার্মের মাঠে এ মেহমান খানার আয়োজন করেন। গত শুক্রবার ষষ্ঠ সপ্তাহে ২৫০ জন নিরন্ন মানুষ এখানে খেয়েছেন বিনামূল্যে। এবার ৭ম সপ্তাহে প্রায় ৩শ’ জন মানুষ খেতে এসেছে মেহমান খানায়।

শুক্রবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক সকাল থেকে চেয়ার ও টেবিল সাজাচ্ছেন। বাবুর্চি রান্না করছেন। বেলা গড়িয়ে জুম্মার আযান পড়লেই মেহমান খানায় শুরু হয় ভিক্ষুক ও নিম্নআয়ের মানুষদের উপস্থিতি। নামাজ শেষে কয়েক দফায় চলে খাওয়া-দাওয়া।

মেহমান খানার স্বেচ্ছাসেবকরা জানান, এক দফায় ১০০ জন মানুষ বসে খেতে পারবেন। তিন দফায় ৩০০ জন। তবে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ২৭৫ জন মেহমান পেয়েছেন তারা। আশা করা হচ্ছে আগামী কয়েক সপ্তাহ গেলে ৫ শতাধিক মেহমান পাওয়া যাবে।

জিয়াখোর গ্রামের মনসুর আলী ও ফুলতলা গ্রামের আক্তারুল ইসলাম নামে দুই বাবুর্চি সকাল থেকে ব্যস্ত সময় পার করছেন রান্নার কাজে। জানতে চাইলে তারা জানান, মেহমান খানা চালুর পর থেকে কোন পারিশ্রমিক না নিয়ে রান্না করে দিচ্ছেন তারা। ৮ বছরের বাবুর্চি পেশায় রান্না করে যতটা তৃপ্তি পেয়েছেন, গত ৬ সপ্তাহে তার চেয়ে বেশি আনন্দ পেয়েছেন তারা। আগামী সপ্তাহগুলো থেকে শুক্রবার কোন অনুষ্ঠানের রান্নার দায়িত্ব নেবেন না বলেও জানান তারা।

বিশাল এই কর্মযজ্ঞের আয়োজক সাংবাদিক হারুন অর রশিদ বলেন, দু’মাস আগের কথা। শুক্রবার দুপুরে এক ভিক্ষুক এসে আমার নিকট খাবার চেয়ে বসে। জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, ৫ জনের বাড়িতে খাবার চাওয়ার পরও তাকে কেউ খাবার দিতে রাজি হয়নি। সেদিন মনস্থির করেছিলাম সপ্তাহে অন্তত একবার এমন নিরন্ন মানুষের জন্য একবেলা খাবার আয়োজন করার। স্ত্রী ও সন্তানদের সাথে পরামর্শ করে কাজে নেমে পড়ি।

তিনি জানান, ফেসবুকে হতভাগা সেন্টার নাম দিয়ে নিরন্ন মানুষদের খাবারের আয়োজন করার ঘোষণা দেই। আর প্রথম শুক্রবার বাজারে আসা ভিক্ষুক, মানসিক ভারসাম্যহীন ও নিম্নআয়ের মানুষকে একবেলা খাওয়ার জন্য দাওয়াত দেই। প্রথম সপ্তাহে ১১৫ জন এসেছিল। এরপর এটির নাম পরিবর্তন করে ‘মেহমান খানা’ রাখা হয়।

কতদিন কার্যক্রম চলবে- এমন প্রশ্নের জাবাবে হারুন অর রশিদ জানান, আমার ইচ্ছা এটি চলমান থাকবে সারাজীবন। আমি ব্যক্তিগত ব্যয়ে ৬ সপ্তাহ পরিচালনা সম্পন্ন করেছি। ইতোমধ্যে অনেকেই সহযোগিতা করার ইচ্ছা পোষণ করেছেন ও অনেকে সহযোগীতা করেছেন। আশা করছি সমাজের বিত্তবান লোকজন এগিয়ে আসলে এটি আরও বৃহৎ আকারে করা সম্ভব হবে।

স্থানীয় সংবাদিক আল মামুন জীবন শুক্রবার মেহমান খানায় কার্যক্রম দেখতে এসে জানান, পারিবারিক ও সামাজিক অনুষ্ঠানে ভিক্ষুক চলে এলে আমরা প্রচুর বিরক্তির সাথে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যে করি। কেউ হয়তো উচ্ছিষ্ট কিংবা সামান্য খাবার দিয়ে থাকি। কিন্তু এখানে ওইসব মানুষদের অতিথির মর্যাদায় আপ্যায়ন করা হচ্ছে। নিঃসন্দেহে ভালো উদ্যোগ ও প্রশংসার দাবিদার।

বালিয়াডাঙ্গী প্রেসক্লাবের সভাপতি রমজান আলী বলেন, সপ্তাহে ২শ’ মানুষকে বিনামূল্যে খাওয়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করতে বিরাট সাহসের প্রয়োজন। প্রচুর টাকা খরচ আছে এটিতে। নিঃসন্দেহে এটি একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। কার্যক্রমটি চলমান রাখার জন্য সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।