সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নিখোঁজের ৯ দিন পর ঢামেক হাসপাতাল মর্গে মিললো ঢাবি শিক্ষার্থীর লাশ

news-image
কসবা প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার খাড়েরা মৌলভীবাড়ীর হাফেজ মজিবুর রহমানের দ্বিতীয় ছেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী শিক্ষার্থী হাফিজুর রহমান মাসুদ। বরাবরের মতো এবারও পরিবারের সাথে ঈদুল ফিতর উদযাপন করেন। পরদিন ১৫ মে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্ধুদের কাছে চলে যান। ওইদিনই বাড়ীতে ফেরার কথা থাকলেও আর যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। এরপর নানাভাবে নানানজায়গায় সন্ধান করেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলো না। অবশেষে ঢাকা মেডিকেলের মর্গে পাওয়া গেলো তার লাশ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী বলেন, আমাদের নিখোঁজ শিক্ষার্থী হাফিজের লাশ ঢামেক হাসপাতালের মর্গে পাওয়া গেছে। লাশটি তার বড় ভাই ও বন্ধুরা শনাক্ত করেছেন। এ ঘটনায় আমরা খুবই মর্মাহত।জানা যায়, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পিছনে পাওয়া যায় হাফিজুরের লাশ। সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেলের মর্গে রাখা হয়। পরে ছবির সঙ্গে মিলিয়ে লাশ শনাক্ত করা হয়।
এর আগে গত ১৫ মে ঈদুল ফিতরের পরদিন দুপরে বন্ধুদের সাথে দেখা করতে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আসেন হাফিজুর। বিশ্ববিদ্যালয় কার্জন হল এলাকায় বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা শেষে রাত ৮-৯ টার দিকে তার নিজ বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া চলে যাওয়ার জন্য উদগ্রীব হয়ে উঠে। পরে তার বন্ধুরা তাকে বিদায় দিলে তারপর থেকে তাকে আর পাওয়া যায়নি।
হাফিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগের ১৫-১৬ সেশনের শিক্ষার্থী। তার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা থানায়। এর আগে নিখোঁজের ঘটনায় তার মা সামছুন নাহার গত শুক্রবার কসবা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। জিডি ন. ১২৮৩।তার মৃত্যুর সংবাদে গোটা এলাকায় ও বিশ্ববিদ্যালয়ে নেমে আছে শোকের ছায়া।