সোমবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘বাঁচাও বাঁচাও’ চিৎকারের পরও জাহাজটি আমাদের লঞ্চটিকে ডুবিয়ে দেয়

news-image

অনলাইন ডেস্ক : নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যায় কোস্টার জাহাজ ‘এমভি-এসকেএল-৩’ এর বেপরোয়া ধাক্কায় মুন্সীগঞ্জগামী লঞ্চ ‘এম এল সাবিত আল হাসান’ ডুবে ৩৪ জন যাত্রী নিহতের ঘটনায় গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার শীতলক্ষ্যার পশ্চিম তীরে দুর্ঘটনাস্থল সৈয়দপুর কয়লাঘাট এলাকায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটি সকাল ১১টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত এবং জেলা প্রশাসনের কমিটি সকাল ১০টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত পৃথকভাবে গণশুনানি অনুষ্ঠিত করে। দুটি তদন্ত কমিটির কাছে লঞ্চ দুর্ঘটনায় মৃত যাত্রীদের আত্মীয় স্বজন, বেঁচে যাওয়া যাত্রী ও প্রত্যক্ষদর্শী ২৬ জন সেদিনের ভয়াবহ দুর্ঘটনার চিত্র তুলে ধরে সাক্ষ্য প্রদান করেন।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক যুগ্ম সচিব আব্দুছ ছাত্তার শেখের নেতৃত্বে গণশুনানিতে উপস্থিত ছিলেন সদস্যসচিব ও বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) পরিচালক (নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক) মো. রফিকুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ অঞ্চলের নৌ পুলিশের পুলিশ সুপার মিনা মাহমুদা, নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের চিফ নটিক্যাল সার্ভেয়ার মো. জসিম উদ্দিন, বিআইডব্লিউটিসির প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল গফুর, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফিন ও নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (আইসটি ও শিক্ষা) মো. তোফাজ্জল হোসেনের পক্ষে সদর এসিল্যান্ড হাসান বিন আলী।

এ ছাড়া কোস্টগার্ড পাগলা স্টেশনের কমান্ডার মো. আশমাদুল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের উপ-পরিচালক মোবারক হোসেন, উপ-পরিচালক (নৌ নিরাপত্তা) বাবু লাল বৈদ্য।

জানা গেছে, তদন্ত কমিটিকে আগামী ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কমিটিকে দুর্ঘটনাস্থল এবং দুর্ঘটনাকবলিত নৌযান পরিদর্শন করে ১৯৭৬ সালের বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল অধ্যাদেশের ক্ষমতাবলে দুর্ঘটনার কারণ উদঘাটন এবং দুর্ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তি অথবা সংস্থাকে শনাক্ত করতে হবে। এ ছাড়া দুর্ঘটনা প্রতিরোধে করণীয় নির্ধারণ করে সুনির্দিষ্ট সুপারিশ দিতে বলা হয়েছে।

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের ৭ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহেরা ববির নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন সদর ইউএনও নাহিদা বারিক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ডিএসবি মো. শফিউল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নৌ) এর পক্ষে সহকারী পুলিশ সুপার নৌ) আনিসুর রহমান, বিআইডব্লিউটিএর উপ পরিচালক মো. মোবাবরক হোসেন, পাগলা কোস্টগার্ডের স্টেশন অফিসার মো. আশমাদুল ইসলাম, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ আল আরেফিন।

গণশুনানিতে লঞ্চ দুর্ঘটনায় মৃত যাত্রীদের আত্মীয় স্বজন, বেঁচে যাওয়া যাত্রী ও প্রত্যক্ষদর্শী ২৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। লঞ্চ দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া যাত্রী সিরাজদীখান তালতলা এলাকার মুছা শেখের পুত্র মো. জাকির, মুন্সিগঞ্জ নয়াগাঁও এলাকার বাসিন্দা দুই বোন তানজিলা ও মনিরা আক্তার মুন্নি, আলো, লঞ্চের কেরানী মঞ্জুর আলী, মুন্সিগঞ্জ দক্ষিণ কোটগাঁও এলাকার রায়হান সরদার ইফাজ, নিহত রুনা আক্তারের চাচা মুন্সিগঞ্জের নুরুতলি কেওয়ার এলাকার বাসিন্দা মনিরুজ্জামান, প্রত্যক্ষদর্শী নির্মাণাধীন শীতলক্ষ্যা সেতুর শ্রমিক মো. হালিম, পূবালী সল্টের লেবার আলামিন সর্দার, মো. সাঈদ, মো. মামুন বেপারীসহ ২৬ জন দুর্ঘটনার বিবরণী তুলে ধরেন তদন্ত কমিটির কাছে।

সাক্ষ্য দেওয়া লঞ্চের বেঁচে যাওয়া যাত্রী ব্যবসায়ী জাকির হোসেন বলেন, ঘাতক জাহাজটির নীচের অংশ নীল আর উপরের অংশ লাল। আমাদের লঞ্চটির পেছন পেছন জাহাজটি বেপরোয়া গতিতে আসতেই নারী ও শিশুরা বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করছিল। এক পর্যায়ে লঞ্চটিকে ২০ থেকে ৩০ সেকেন্ড পর্যন্ত ধাক্কাতে ধাক্কাতে নির্মাণাধীন তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতুর সন্নিকটে এসে ডুবিয়ে দিয়ে এর উপর দিয়েই চলে যায়।

লঞ্চ দুর্ঘটনায় মৃত দোলা বেগমের বেঁচে যাওয়া ছেলে রায়হান সর্দার জানান, আমি আর মা একসাথেই ছিলাম। আমরা বুঝতে পারছিলাম জাহাজটি আমাদের লঞ্চটিকে ধাক্কা দিতে যাচ্ছে। ধাক্কা দিতেই মা আমাকে ধাক্কা দিয়ে বাঁচিয়ে দেয়। কিন্তু তিনি লঞ্চ থেকে বের হতে পারেনি। পরে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব আব্দুছ ছাত্তার শেখ বলেন, আমরা আজকে গণশুনানি করলাম। এ বিষয়ে আমরা তদন্ত কমিটি পরবর্তীতে বসে নানা দিক পর্যালোচনা করে ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট দেব। কার্গো জাহাজের ধাক্কায় লঞ্চটি ডুবে ৩৪টি মূল্যবান প্রাণ আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে গেছে। আমরা তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করি ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাই। আমরা যে ২৬ জন্য প্রত্যক্ষদর্শীর বক্তব্য পেয়েছি তাদের কাছ থেকে জানার চেষ্টা করেছি কিভাবে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে এবং এ প্রেক্ষিতে ভবিষ্যতে কি করণীয় সে বিষয়েও তাদের কাছ থেকে জানার চেষ্টা করেছি।

জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহেরা ববি বলেন, আমরা সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত মোট ২৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেছি। সাক্ষীগণ দুর্ঘটনার বিষয়ে যা দেখেছে তাই বর্ণনা করেছেন। আমরা তা লিপিবদ্ধ করেছি। আমরা সবার সাক্ষ্য পর্যালোচনা ও বিচার বিশ্লেষণ করে পরবর্তী বিষয়গুলি এগিয়ে নিয়ে যাব যেন ৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে পারি।

সূত্র : কালের কণ্ঠ