সোমবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

উৎপাদন খরচ উঠছে না, ৫০ হাজার লবণ চাষি লোকসান গুনছে

news-image

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি : কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাঁও চৌফলদন্ডী এলাকার লবণ চাষি এম এন আবছার তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লবণের ন্যায্য মূল্য পেতে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। তিনি লিখেন, ‘আমার এক কানি (৪০ শতক) জমিতে লবণ চাষ করতে খরচ হয়েছে ৮০ হাজার টাকা। ওই পরিমাণ জমিতে উৎপাদিত লবণ বিক্রি করে পাচ্ছি ৫৪ হাজার টাকা। লোকসান গুনতে হচ্ছে ২৬ হাজার টাকা। মৌসুমের শেষ দিকেও দাম না বাড়লে পথে বসা ছাড়া আমার আর কোন উপায় থাকবে না’।

আরও কয়েকজন চাষি জানান, মাঠ পর্যায়ে এক মন লবণ উৎপাদন করতে ব্যয় হয় ৩ শ টাকা। সে লবণ এখন বিক্রি হচ্ছে ১৭০ থেকে ২০০ টাকায়। এতে লাভ তো দূরের কথা, উল্টো গুনতে হচ্ছে লোকসান। আর এ ক্ষতির জন্য চাষিরা দায়ী করছেন অসাধু মিল মালিকদের সিন্ডিকেট ও বিদেশ থেকে লবণ আমদানিকে। এ অবস্থায় লবণ চাষি ও মালিকদের দাবি লবণের মূল্য আগের মতোই রাখা হোক। যাতে করে লবণ শিল্প বেঁচে থাকে আর এই শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা রক্ষা পায়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিগত বছরের প্রায় ৪ লাখ মেট্রিক টনসহ চলতি মৌসুমে উৎপাদিত লবণ মাঠে থাকার পরও বিদেশ থেকে লবণ আমদানিসহ নানা কারণে দিন দিন মূল্য কমে যাচ্ছে লবণের। ধস নেমেছে লবণ বিক্রিতে। এতে করে সংকটে পড়েছেন লবণ চাষিরা। ফলে চরম হতাশায় রয়েছেন এ শিল্পের ওপর নির্ভরশীল কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের ৫০ হাজার চাষি ও এর সঙ্গে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ ভাবে জড়িত ৫ লাখ মানুষ।

প্রায় ৬০ হাজার একর এলাকাজুড়ে অবস্থিত এই শিল্প কক্সবাজারের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখলেও ভালো নেই লবণ শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা। লাগামহীনভাবে লবণের দাম কমে যাওয়ায় খুবই ক্ষতিগ্রস্ত লবণ চাষিরা। লবণের ন্যায্য মূল্য পাওয়ার দাবিতে চাষিরা ইতিমধ্যে মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি পালন করেছে।

লবণ চাষি সংগ্রাম কমিটির সভাপতি মোর্শেদুর রহমান জানান, এক কানি বা ৪০ শতক জায়গায় লবণ উৎপাদনে খরচ হচ্ছে ৮০ থেকে ৮৫ হাজার টাকা। কিন্তু লবণ বিক্রি করে চাষিরা পাচ্ছেন ৪৫ থেকে ৫৫ হাজার টাকা। এছাড়া প্রতিমণ লবণ উৎপাদনে খরচ হচ্ছে ৩০০ টাকা। কিন্তু তা বিক্রি করতে হচ্ছে ১৭০ থেকে ২০০ টাকায়।

তিনি আরও জানান, ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে মণ প্রতি লবণের দাম ছিল ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা। ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৪০০ টাকায়। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে তা আরও কমে দাঁড়িয়েছে ১৭০ টাকা থেকে ১৬০ টাকায়। ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে প্রতি মণ বিক্রি হয় ৩৫০-৪৫০ টাকা। এই অর্থবছরে চাষিরা লাভের মুখ দেখায় চলতি মৌসুমে লবণ চাষের পরিমাণ বাড়িয়ে দেন। কিন্তু উৎপাদন শুরু হওয়ার পর থেকে হঠাৎ দাম কমে প্রতি মণ ১৭০-২০০ টাকায় এসে দাঁড়ায়। কিন্তু মাঠে মণ প্রতি লবণ উৎপাদনে খরচ পড়ছে ৩শ টাকা।

বদরখালীর চাষি জসিম উদ্দীন বলেন, মন প্রতি ৫০০ টাকা থাকা লবণ ১৭০-২০০ টাকায় নেমে যাওয়ায় আমরা খুব কষ্টে আছি। আমি ঋণ নিয়ে এ চাষ শুরু করছিলাম। কিন্তু এখনো পর্যন্ত ঋণ শোধ করতে পারিনি। তার মতে এর জন্য দায়ী পটিয়া ও নারায়ণগঞ্জের কিছু অসাধু মিল মালিক। যারা সিন্ডিকেট করে লবণের দাম কমিয়ে ফেলেছে। আর চাহিদা পূর্ণ থাকার পরেও বেশি লাভের আশায় বিদেশ থেকে লবণ আমদানি করে দেশি লবণের সাথে মিশিয়ে দিচ্ছে।

বাংলাদেশ লবণ চাষি সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট শহিদুল্লাহ চৌধুরী জানান, আগের বছরের লবণের দামের ওপর নির্ভর করে চাষিরা অগ্রিম টাকা নিয়ে লবণের মাঠ করছে। এই অবস্থায় যদি ৫০০ টাকার লবণ সর্বোচ্চ ২০০ টাকা হয়, তাহলে চাষিদের মজুরির টাকা পর্যন্ত উঠবে না।

বিসিক কক্সবাজারের সূত্র জানায়, গত মৌসুমের ৩.৪৮ লাখ মেট্রিক টন লবণ মজুত রয়েছে। এবার চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের ৬০ হাজার একর জমিতে লবণ চাষ হয়েছে। এ বছর দেশে লবণের চাহিদা দেখানো হয়েছে ১৯ লাখ ৪৩ হাজার মেট্রিক টন, উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৯ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন। বিষয়টি মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।