সোমবার, ১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সাত কলেজের সব পরীক্ষা স্থগিত

news-image

ঢাবি প্রতিনিধি : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত রাজধানীর সাতটি বড় সরকারি কলেজের পরীক্ষার স্থগিত করা হয়েছে। যেসব পরীক্ষা চলমান ছিলো সেগুলোও স্থগিত করা হয়েছে। সাত কলেজে একাধিক বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষা চলছিলো। সামনে আরও কয়েকটি পরীক্ষা নেয়ার কথা ছিলো, কিন্তু নতুন করে পরীক্ষা নেয়ার আর সুযোগ থাকছে না।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাত কলেজের অধ্যক্ষ ও সংশ্লিষ্ট তিনজন ডিনকে নিয়ে পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য সভা করেন সাত কলেজের প্রধান সমন্বয়ক অধ্যাপক এ এস এস মাকসুদ কামাল। সভা শেষে তিনি বাংলাদেশ জার্নালকে একথা জানান।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খোলার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণার পর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের চলমান পরীক্ষাগুলো পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত স্থগিত করেছে। এ অবস্থায় সাত কলেজের পরীক্ষার কী হবে, সে বিষয়টি সামনে আসে।

এদিকে পরীক্ষা স্থগিত করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষার্থীরা। এ বিষয়ে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী রাসেল রানা বলেন, এমনিতেই আমরা সেশন জটে আটকে আছি এরপর করোনায় এক বছর শিক্ষাজীবন ধ্বংস করে দিয়েছে। এমন সিদ্ধান্ত সত্যিই শিক্ষাবান্ধব নয়।

এর আগে সোমবার বেলা সোয়া দুইটায় অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানান, পবিত্র ঈদুল ফিতরের পর ২৪ মে থেকে দেশের সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে আবারও শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হবে। তার আগে ১৭ মে আবাসিক হলগুলো খুলবে। তবে হলের ওঠার আগেই আবাসিক শিক্ষার্থীদের করোনাভাইরাসের টিকা নিতে হবে। আর খোলার আগে কোনো পরীক্ষা হবে না। যেসব বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষা ও হল খোলার ঘোষণা দিয়েছিলো, সেই সিদ্ধান্তও বাতিল হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হয় ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজ ও সরকারি তিতুমীর কলেজ। এগুলোতে মোট শিক্ষার্থী প্রায় দুই লাখ।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর চাপ কমিয়ে শিক্ষার মান বাড়াতে কলেজগুলোকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত করা হলেও এখনো সমস্যাগুলো দূর হয়নি। শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, কলেজগুলোর বড় সমস্যা হলো ঠিক সময়ে পরীক্ষা না নেয়া এবং দেরীতে ফল প্রকাশ করা। এই সমস্যা নিরসনের দাবিতে বিভিন্ন সময়ে আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা।