বুধবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ইন্দোনেশিয়ায় ভ্যাকসিনে অগ্রাধিকার পাবে তরুণরা

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দুনিয়া জুড়ে করোনা ভাইরাসের টিকা পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রবীণেরা অগ্রাধিকার পেলেও উল্টো ঘটনা ঘটছে ইন্দোনেশিয়ায়। গতকাল বুধবার (১৩ জানুয়ারী) সেই দেশে টিকাদান কর্মসূচির শুরুতে অগ্রাধিকার পাচ্ছেন তরুণরা। ইন্দোনেশীয় সরকারের এই নীতি নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে।

করোনাভাইরাসের মহামারীতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ দেশ ইন্দোনেশিয়া। দেশটির ৮ লাখ ৩৬ হাজারেরও বেশি মানুষের সংক্রমিত হওয়ার পাশাপাশি মৃত্যু হয়েছে ২৪ হাজার ৩৪৩ জনের। মহামারী মোকাবিলায় চীনা প্রতিষ্ঠান সিনোভ্যাকের তৈরি টিকা করোনাভ্যাক প্রয়োগ শুরু করছে এই দেশ।

গতকাল বুধবার থেকে শুরু হওয়া ইন্দোনেশিয়ার টিকাদান কর্মসূচি চলবে মার্চের শেষ পর্যন্ত। ১৩ লাখ স্বাস্থ্যসেবা কর্মীর পাশাপাশি ১ কোটি ৭৪ লাখ সরকারি কর্মী, পুলিশ, সেনা সদস্য, শিক্ষক বিনামূল্যে টিকা পাবেন। তারপরে দেশটির প্রাপ্তবয়স্করা টিকা পাবেন।
দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ড. নাদিয়া উইকেকু জানিয়েছেন, ইন্দোনেশিয়া বয়স্কদের পরিবর্তে ১৮ থেকে ৫৯ বছরের উৎপাদনক্ষমদের টার্গেট করছে। কারণ এর বেশি বয়সের মানুষদের উপর সিনোভ্যাক ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা সম্পন্ন হয়নি। ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের ওপর টিকাটি নিরাপদে ব্যবহার করা যায় কিনা তা ইন্দোনেশিয়ার খাদ্য ও ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ পর্যালোচনা করে দেখছে বলে জানান তিনি।

ইন্দোনেশিয়ার বহু নাগরিক সরকারের এই নীতিকে সমর্থন করছেন। ৫৬ বছর বয়সি এক নারী ব্যবসায়ী জানান, ইন্দোনেশিয়ার বয়স্ক মানুষেরা বেশিরভাগ বাড়িতেই থাকেন। কমবয়সী কর্মরতদের চেয়ে তাদের সংক্রমিত হওয়ার সুযোগ কম। তাই তরুণরা যদি প্রথমে টিকা পায়, তাহলে তারা প্রবীণদের নিরাপদে দেখতে পারবে।

তবে বিশেষজ্ঞরা এই মত মানতে রাজি নন। লন্ডন স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিক্যাল মেডিসিনের ভ্যাকসোনোলোজির প্রফেসর কিম মুলহলান্দ বলেন, তারা জানেন চীন এবং মধ্যপ্রাচ্যে ইতিমধ্যে যেসব বয়স্করা টিকা নিয়েছেন তারা তরুণদের মতোই ভালোই সাড়া দিয়েছেন। ফলে যুক্তি হিসেবে যা বলা হচ্ছে যে, ইন্দোনেশিয়ায় ট্রায়ালের সময় বয়স্কদের যুক্ত করা হয়নি বলে তাদের প্রথমে টিকা দেওয়া হচ্ছে না, সেই যুক্তি গ্রহণযোগ্য নয়।

 

এ জাতীয় আরও খবর