সোমবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সারাদেশে শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরণ শুরু

news-image

নিউজ ডেস্ক : সারাদেশে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন হয়েছে। করোনা মহামারির কারণে এবার উৎসব করে নতুন বই বিতরণ করা হচ্ছে না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদের হাতে বই পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। তবে উৎসব না হলেও নতুন বই হাতে পেয়ে অনেক খুশি শিক্ষার্থীরা। বছরের প্রথম দিন শুক্রবার (১ জানুয়ারি) শুরু হওয়া এই কার্যক্রমের আওতায় পর্যায়ক্রমে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বই পৌঁছে দেওয়া হবে। দেশের বিভিন্ন স্থানে বই বিতরণ কর্মসূচি নিয়ে বিস্তারিত প্রতিনিধিদের পাঠানো রিপোর্টে-

কুমিল্লা প্রতিনিধি জানান, শুক্রবার সকালে কুমিল্লা মহানগর ও জেলার ১৭টি উপজেলার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আংশিক বই বিতরণ করা হয়েছে। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবদুল মজিদ বলেন, ‘কুমিল্লার মহানগর ও ১৭টি উপজেলার সব প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বই বিতরণ করা হয়েছে। বিতরণ কয়েক দিন চলবে। করোনার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বই দেওয়া হচ্ছে।’

এদিকে এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছিল কুমিল্লা হাইস্কুল। কুমিল্লা শহরতলির চাঁনপুর এলাকায় ভ্যানে করে শিক্ষার্থীদের বাড়িতে বই নিয়ে হাজির হন কুমিল্লা হাইস্কুলের একদল শিক্ষক। তারা তালিকা ধরে বাড়ি বাড়ি বই পৌঁছে দেন। যেসব এলাকায় ভ্যান নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি, সেসব এলাকায় হাতে করে বই নিয়ে যান শিক্ষকরা। বই পেয়ে বিদ্যালয়টির শিক্ষার্থী আবুল হাসান বলে, ‘অন্যবার নিজেরা বই আনতে যেতাম। এবার স্যারেরা বাড়ি এসে বই দিয়ে গেলেন।’ একই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাতেমাও পেয়েছে বই। সে বলে, ‘বাড়িতে থেকে নতুন বই পেয়ে ভালো লাগলো।’

বাড়ি বাড়ি গিয়ে বই দেওয়ার বিষয়ে কুমিল্লা হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. হুমায়ুন কবির বলেন, ‘করোনার কারণে এবার বই উৎসব সেভাবে করা গেলো না। তাই আমরা শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি বই পৌঁছে দিচ্ছি।’

সকালে নগরের নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধান শিক্ষক রোকসানা ফেরদৌস মজুমদার। এ বিদ্যালয়ে নবম, অষ্টম ও চতুর্থ শ্রেণির বই দেওয়া হয়। কুমিল্লা জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক রাশেদা আক্তার ষষ্ঠ শ্রেণির বই বিলি করেন।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নগরের আওয়ার লেডি অব ফাতিমা গালর্স হাইস্কুলে গিয়ে দেখা গেলো, বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক সিস্টার গ্রাসিয়া বই বিতরণ করছেন। সঙ্গে অন্য শিক্ষকেরাও রয়েছেন।

নীলফামারী প্রতিনিধি জানান, নীলফামারী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে মাধ্যমিক পর্যায়ের এবং বেলা ১২টার দিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বই বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমার চৌধুরী।উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মাধ্যমিক পর্যায়ে নবম শ্রেণির ২০ জন এবং প্রাথমিক পর্যায়ের ১০০ জন শিক্ষার্থীর মাঝে নতুন বই বিতরণ করা হয়।

জেলায় মাধ্যমিক পর্যায়ে দুই লাখ ৭৩ হাজার ৭৮৪ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ৩৫ লাখ ২ হাজার ৬৫৭টি বই এবং প্রাথমিক পর্যায়ে এক লাখ ৮৯ হাজার ৭৬০ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ১৭ লাখ ২৫০টি বই বিতরণ করা হবে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নবিজ উদ্দিন সরকার বলেন, ‘বছরের প্রথম দিন নতুন বই বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে। এটি চলবে আগামী ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত। এ সময়ের মধ্যে শিক্ষার্থী অথবা অভিভাবক বিদ্যালয়ে গিয়ে বই সংগ্রহ করতে পারবেন।’

পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুক্রবার সকাল ১০টায় পঞ্চগড় জেলার প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বই বিতরণ করা হয়। জেলা প্রশাসক ড. সাবিনা ইয়াসমিন ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে কয়েকটি বিদ্যালয়ে বই উৎসবের উদ্বোধন করেন।

জেলার পাঁচ উপজেলায় প্রাথমিক পর্যায়ে এক লাখ ৭৭ হাজার ৯শ’ জন শিক্ষার্থীর হাতে দেওয়া হয় ৭ লাখ ১৫ হাজার ৭৭৫টি নতুন বই। বই উৎসবের জন্য জেলার প্রতিটি বিদ্যালয়ে নতুন বই পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হয়। জেলায় সরকারি প্রাথমিক ও কিন্ডারগার্টেনসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে এক হাজার ১১৭টি।

নেত্রকোনা প্রতিনিধি জানান, জেলায় বছরের প্রথম দিনে জেলার প্রাথমিক, ইবতেদায়ি, কারিগরি ও মাধ্যমিক পর্যায়ে ৪৭ লাখ ২৬ হাজার ৫৭৪টি বই বিতরণ করা শুরু হয়েছে। সকালে জেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক ও শিক্ষা অফিসের উদ্যোগে বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু।

প্রাথমিক পর্যায়ে বিতরণ অনুষ্ঠান শুরু হয় শহরের কালিবাড়ী মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এখানে শিশুদের হাতে বই তুলে দেন জেলা প্রশাসক কাজি আব্দুর রহমান। পরে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে মাধ্যমিক পর্যায়ে বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। নতুন বই পেয়ে খুশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি জানান, সকাল ১০টায় হিলির ডলি মেমোরিয়াল স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের মাঝে বই বিতরণ করেন বিদ্যালয়ের সভাপতি আলহাজ মতিউর রহমান। এবার হাকিমপুর উপজেলায় ৪৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৩৪টি মাধ্যমিক, ৪টি ইবতেদায়ি মাদ্রাসা ও ৪টি কিন্ডারগার্ডেন স্কুলের মোট বইয়ের চাহিদা রয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার। তবে এখন পর্যন্ত উপজেলায় বই এসছে ৬৫ হাজার, যা ইতোমধ্যেই উপজেলার বিভিন্ন স্কুলে বিতরণ করা হয়েছে। পরবর্তীতে অন্য বই আসলে শিক্ষার্থীদের মাঝে সেগুলো বিতরণ করা হবে বলেও জানায় প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস।

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, জেলা প্রশাসন ও জেলা শিক্ষা অফিসের আয়োজনে শুক্রবার বেলা সাড়ে ১২টায় সাতক্ষীরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে বই উৎসবের উদ্বোধন করেন সদর আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি।সাতক্ষীরা জেলা মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, এবার জেলায় মাধ্যমিক স্তরে চাহিদা অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে ৩২ লাখ ৫০ হাজার এবং প্রাথমিক স্তরে ৯ লাখ ৫০ হাজার বই বিতরণ করা হবে।

রংপুর প্রতিনিধি জানান, নতুন বছরের প্রথম দিনে রংপুরের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নতুন বই বিতরণ করা হয়েছে। তবে এবার করোনা মহামারির কারণে অল্প কিছু শিক্ষার্থীকে স্কুলে এনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নতুন বই দেওয়া হয়েছে। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবার রংপুরের ১২শ’ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর মাঝে প্রায় ১৯ লাখ বই বিতরণ করা হবে। স্কুল কর্তৃপক্ষ জানায়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে কয়েকদিনের মধ্যে সব শিক্ষার্থীকে নতুন বই দেওয়া হবে।

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানান, সকালে শহরের সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে বই উৎসবের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ। জেলা প্রশাসক জানান, আগামী ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত জেলার ৬ উপজেলায় প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে ৩৪ লাখ ৯১ হাজার ৮শ’ ৩০টি বই বিতরণ করা হবে।

রাজশাহী প্রতিনিধি জানান, করোনাভাইরাসের কারণে অন্যান্য বছরের মতো বই উৎসব ছাড়াই স্বাস্থ্যবিধি মেনে শ্রেণিকক্ষেই এ বই বিতরণ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজশাহী জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন জানান, মাধ্যমিকের সব স্তরের শিক্ষার্থীর জন্য বরাদ্দ হয়েছে প্রায় ৪৪ লাখ। এর মধ্যে ১২ লাখ বই রাজশাহীতে এসেছে। প্রথম দিনেই ২০ শতাংশ বই বিতরণ করা হয়েছে। বাকি বই পর্যায়ক্রমে বিতরণ করা হবে।

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি জানান, সারাদেশের মতো শুক্রবার থেকে কুড়িগ্রামে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে নতুন পাঠ্য বই বিতরণ শুরু হয়েছে। সকাল ১০টা থেকে জেলার এক হাজার ৮৩৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৬ লাখ শিক্ষার্থীর মধ্যে ধাপে ধাপে বই বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়।