মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ট্রাম্পের মেয়াদেই আরো মুসলিম দেশের সঙ্গে সম্পর্কের আশা ইসরায়েলের

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই আরেকটি মুসলিম দেশের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে আশাবাদী ইসরায়েল। গতকাল বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) ইসরায়েলের মন্ত্রী ওফির অ্যাকুনিস ওয়াইনেট টিভিকে একথা জানান। খবর রয়টার্সের।

আগামী জানুয়ারি মাসে শেষ হতে যাওয়া ডোনাল্ড ট্রাম্পের পৃষ্ঠপোষকতায় ইতিমধ্যে চারটি আরব দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করে। আরব আমিরাত, বাহরাইন, সুদান ও মরক্কো সম্পর্ক স্বাভাবিক করেছে। গত মঙ্গলবাল মরক্কো স্বাভাবিক সম্পর্ক চুক্তিকে পাকাপোক্ত করেছে।

ইসরায়েলের আঞ্চলিক সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী ওফির অ্যাকুনিসকে ট্রাম্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে পঞ্চম কোনো দেশ সম্পর্ক করবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে নিয়ে ওয়াইনেট টিভিকে তিনি বলেন, আমরা তা নিয়ে কাজ করছি।

তিনি আরো বলেন, ‘আমি আশা করি, শিগগির আমেরিকা ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক গড়া আরেকটি মুসলিম দেশের নাম ঘোষণা দেবে।’

ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দিতে বা ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক করতে তারা কাজ করছে বলে জানায় ইসরায়েল সরকার। প্রধানত দুটি দেশ এবার ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক করতে পারে। তবে দেশ দুটির নাম অবশ্য বলেননি ইসরায়েলের এই মন্ত্রী।

অ্যাকুনিস বলেন, ‘দেশ দুটির একটি উপসাগরীয় দেশ এবং তা ওমান হতে পারে। তবে তা সৌদি আরব নয়। আরেকটিও প্রাচ্যের মুসলিম দেশ। তা মোটেও ছোট কোনো দেশ নয়। এবং তা পাকিস্তানও নয়।’

এদিকে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমের দেশ ইন্দোনেশিয়া গত সপ্তাহে জানিয়েছে, স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র স্বীকৃতির আগে ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দেবে না। তাছাড়া মালয়েশিয়াও একই অবস্থান ব্যক্ত করেছে।

গত বুধবার মালয়েশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী কামারুদ্দিন জাফফর বলেন, ‘ফিলিস্তিন ইস্যুতে মালয়েশিয়ার দৃঢ় অবস্থান পরিবর্তন হবে না। অন্যান্য দেশের মতো ইসরায়েলের সঙ্গে মালয়েশিয়া সম্পর্ক তৈরি করবে না।’

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সূত্রে রয়টার্স জানিয়েছে, ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে বাংলাদেশ ইচ্ছুক নয়। আমাদের অবস্থানে এখনও আগের মতো আছে।’

এদিকে ইসরায়েরের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করা দেশগুলোর প্রশংসা করেছে উপসাগরীয় দেশ ওমান। অবশ্য দেশটি নিজের অবস্থান সম্পর্কে এখনও কিছু জানায়নি।

অপরদিকে ২০১৪ সালে ইসরায়েলের সঙ্গে আলোচনায় বসা ফিলিস্তিনের জনগন সম্পর্ক গড়া দেশের কারণে আড়ালে পড়ে যাওয়ার আশংকা করছে।

সূত্র : রয়টার্স