বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

চলনবিলে প্রস্তুত পর্যাপ্ত শুঁটকি, বিক্রি কম

news-image

অনলাইন ডেস্ক : নাটোর, সিরাজগঞ্জ, নওগাঁ, বগুড়া জেলার বিভিন্ন উপজেলা জুঁড়ে মৎস ভাণ্ডার খ্যাত চলনবিল অবস্থিত। চলতি বছর বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পরে খাল ও নদীতে প্রচুর পরিমাণ দেশি মাছ পাওয়া যাচ্ছে। বেশি দেশি মাছের পাওয়ার কারণে বিলের বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠেছে মাছ শুকিয়ে শুঁটকি তৈরির চাতাল।

নাটোর জেলার চলনবিলজুড়ে বিভিন্ন উপজেলার অন্তত ৪০টি অস্থায়ী শুঁটকি চাতাল গড়ে উঠেছে।

মৎস বিভাগের তথ্যমতে, অন্তত তিনশ’ নারী-পুরুষ শুঁটকি চাতালে কাজ করছে। জেলায় ৫০০ মেট্টিক টনের অধিক শুটকি উৎপাদন লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত চারশ’ মেট্রিক টন শুটকি প্রক্রিয়াজাত করা হয়েছে। এ অঞ্চলের শুঁটকি দেশের প্রতিটি জেলার মানুষের আস্থা অর্জন করে এখন ভারতেও রপ্তানি হচ্ছে বলে জানান শুটকি ব্যবসায়ীরা।

সরজমিনে চলনবিলের সিংড়ার নিঙ্গইন শুঁটকি চাতালে গিয়ে দেখা যায়, সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চাতালে মাছ কাটা-বাছাইয়ে ব্যস্ত সময় পার করেন শ্রমিকরা। বাঁশের মাচায় স্তুপ করে রাখা রয়েছে আধা-শুকনো চিংড়ি, টেংরা, পুটি, খলসে, বাতাসী, চেলা, মলা, টাকি, বাইম, শোল, বোয়াল, গজার, মাগুর, শিং, কৈসহ বাহারি দেশি প্রজাতির মাছের শুঁটকি।

শুঁটকি চাতালের মালিক নাসির উদ্দীন জানান, কয়েক বছর আগের তুলনায় এবার মাছ ও শুঁটকির চাহিদা বেশি। এবার চলনবিলে ব্যাপক মাছের উৎপাদন হয়েছে।

শ্রমিকরা দিনপ্রতি ১৫০ টাকা মজুরিতে আধাবেলা মাছ কাটেন। কেউবা মাছ কাটার পর কিছু বাড়তি টাকার বিনিময়ে চাতালের মাচাগুলোতে শুঁটকি রোদে শুকাতে দেন। ঘণ্টায় ঘণ্টায় উল্টে-পাল্টে শুঁটকি বাছাই করেন তারা।

শুটকি চাতালের মালিক আব্দুল মান্নান বলেন, মাছভেদে প্রতিকেজি শুঁটকির দাম সাড়ে ৪০০ টাকা থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত। রুপচাঁদা মাছের শুঁটকি প্রতিকেজি ২০০০ টাকা, লইট্টা ৭০০ টাকা, ছুঁরি ১১০০ টাকা, ইলিশ আকারভেদে ৭০০ থেকে ১৬০০ টাকা, মলা ও কাচকি ৭৫০ টাকা, শৈল ১৫০০ টাকা, টাকি ৭০০ টাকা, পুঁটি ২৫০ টাকা, খলসে ও বাতাসি ৩০০ টাকা, বাইম ৮০০ টাকা, কই ৬০০ টাকা ও টেংরা ৮০০ টাকা দামে বিক্রি হয়। তবে শুঁটকি প্রক্রিয়াজাতকরণে কোনও প্রকার কেমিক্যাল ব্যবহার না করায় স্বাদ ঠিক থাকে।

আব্দুল মান্নান আরও বলেন, করোনার কারণে এখন শুটকি ভারতে যাচ্ছে না। এবার মাছের আমদানি বেশি। শুটকিও উৎপাদন বেশি। কিন্তু রপ্তানি না থাকায় মোকামে দম কম হচ্ছে। তাছাড়া প্রতিদিন চাতাল থেকেই ১০ থেকে ১৫ মণ শুঁটকি বিক্রি হয় এবং রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, দিনাজপুর, কক্সবাজার, রাজশাহী, কুষ্টিয়াসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকাররা এসে শুঁটকি কিনে নিয়ে যান।

শুঁটকির সাথে সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, মাছ সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা থাকলে বর্ষা মৌসুমে মাছগুলো ধরে রেখে শীতের শুরুতে শুঁটকি তৈরি করা যেত। একটি মাছ সংরক্ষণাগার তৈরি হলে চলনবিলের মাছকেন্দ্রিক অর্থনীতির নতুন দিগন্ত হবে বলে জানায় স্থানীয়রা।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লাহ ওয়ালীউল্লাহ বলেন, চলনবিলে মাছের উৎপাদন বিগত দিনের চেয়ে ভালো। এবার উৎপাদন আরও বাড়বে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে ভারতেও রপ্তানি হচ্ছে শুঁটকি।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, শুঁটকি শ্রমিক ও মালিকদের আমরা প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছি। মৎস্য বিভাগ এ বিষয়ে সজাগ আছে। সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল

 

এ জাতীয় আরও খবর