বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিলুপ্তির পথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের ঐতিহ্যবাহী গ্রে হাউন্ড কুকুর 

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের গ্রে-হাউন্ড কুকুরের খ্যাতি বিশ্ব জুড়ে। চেহারার আকৃতি, আচার-আচরণে অন্যসব কুকুর থেকে একেবারেই আলাদা। কথিত আছে, প্রায় ২শ বছর আগে তদানীন্তন জমিদার দেওয়ান মজতুবা
আলী একজন ব্রিটিশের কাছ থেকে একটি হাতির বিনিময়ে চৌকস এই কুকুরটি সংগ্রহ করেন। ৮০’র দশক পর্যন্ত এই গ্রে হাউন্ড জাতের কুকুরে উপজেলার বিভিন্ন স্হানে সমৃদ্ধ থাকলেও বর্তমানে এর অস্তিত্ব অনেকটাই হুমকীর মুখে। প্রয়োজনীয় সংরক্ষণ ও পরিচর্যার অভাবে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে গ্রে হাউন্ড কুকুর। এক সময় উপজেলার প্রায় বাড়িতে ছিল দেশ বিদেশে খ্যাত এই কুকুরের আনাগোনা। চৌকস অনুভূতি, সাহস আর রণকৌশলের কারণে এর ব্যাপক চাহিদা থাকলেও কালের বির্বতনে বিরল প্রজাতির এই প্রাণিটি এখন আর তেমন চোখে পড়ে না। প্রয়োজনীয় উদ্যোগ ও অর্থাভাবে হারিয়ে যেতে বসেছে সরাইলের ঐতিহ্যবাহী এই গ্রে হাউন্ড কুকুর।
সরেজমিনে ঘুরে আর খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই কুকুর পালনে এক সময় বেশ কিছু পরিবার জড়িত থাকলেও প্রয়োজনীয় পৃষ্টপোষকতার অভাবে এখন মাত্র উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের দুটি পরিবার পূর্ব পুরুষদের এই ঐতিহ্য ধরে রেখেছেন।প্রতিটি বাচ্চা কুকুর ১৫ থেকে ২০
হাজার টাকা এবং বড় কুকুর গুলো আকার, রং এবং লিঙ্গভেদে ৫০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে।
নোয়াগাঁও গ্রামের যতন লাল রবিদাস বলেন,কুকুর লালন পালন করতে গিয়ে তাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে আমাদের। প্রতিটি কুকুরের খাবার বাবদ প্রতিদিন ২/৩ শ টাকা খরচ হয়। প্রয়োজনীয় খাদ্যের যোগান দিতে না পাড়ায় ব্যয়বহুল এই কুকুর পালন দিনে দিনে হারিয়ে যাচ্ছে। তিনি আরোও বলেন, ধারদেনা ও কুকুরের বাচ্চা বিক্রী করে অনেক কষ্টে ধরে রেখেছেন হাউন্ডের ঐতিহ্য। সুদমুক্ত ঋণ ছাড়াও এটি সংরক্ষণে সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
স্হানীয় বাসিন্দা ইদ্রিস মিয়া বলেন, খাদ্যের অভাবে ঐতিহ্যবাহী এই কুকুর হারিয়ে যাচ্ছে। যারা এই কুকুর লালন-পালনের সাথে জড়িত তারাতো নিজেরাই আর্থিক অভাব অনটনের মাঝে আছে। কুকুরের খাবার কোথায় থেকে জোগাড় করবে।
এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা এবিএম সাইফুজ্জামান বলেন, যারা এই জাতের কুকুর লালন-পালন করছেন তাদের সাথে কথা বলে এর সমাধান বের করতে হবে।