সোমবার, ১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চাঁদের বোন মঙ্গলের উল্টো পাশে!

news-image

অনলাইন ডেস্ক : সৌরজগতের অনেক গ্রহের একাধিক উপগ্রহ থাকলেও আমাদের বাসস্থান পৃথিবীর উপগ্রহ একটিই, চাঁদ। ইতিমধ্যে মানুষ পৃথিবীর এই ধূসর উপগ্রটি থেকে ঘুরে এলেও এত দিন এর কোনো ‘ভাই-বোন’ থাকার তথ্য পায়নি। তবে অতিসম্প্রতি একদল গবেষক দাবি করেছেন, চাঁদের একটি ‘বোন’ লুকিয়ে আছে আমাদের প্রতিবেশী গ্রহ মঙ্গলের উল্টো পাশে।

আয়ারল্যান্ডের আর্মাগ অবজারভেটরি অ্যান্ড প্লানেটারিয়াম (এওপি) জানিয়েছে, চিলির আটকামা মরুভূমি থেকে স্পেক্টোস্কোপিক অবজারভেটরির প্রযুক্তির বিশাল এক টেলিসকোপে ধরা পড়েছে নতুন এই গ্রহাণু।

গবেষকরা দেখেছেন, গ্রহাণুটির গতি-প্রকৃতি অনেকটা চাঁদের মতোই। এ ছাড়া চাঁদ গঠনের উপাদানের সঙ্গে এর উপাদানেরও মিল রয়েছে। গবেষকদের ধারণা, এর প্রধান উপাদান হচ্ছে পাইরোজেন ও লোহা।

তারা প্রায় ৪৫০ কোটি বছর আগে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া গ্রহাণুটির নাম দিয়েছেন, দ্য মুন সিস্টার বা চাঁদের বোন। অবশ্য এর কোড নেম (১০১৪২৯) ১৯১৮ ভিএফ ৩১।

নতুন এই গবেষণার প্রধান গবেষক ও এওপির জ্যোর্তিবিদ ড. অ্যাপোসটোলস ক্রিসটউ বলেছেন, গ্রহাণুটির রং একেবারের চাঁদের মতো। তবে আমি নিশ্চিত নই এটা আসলে চাঁদেরই কোনো বিচ্ছিন্ন অংশ কি না। আমার আগে কখনো মনে হয়নি চাঁদের এমন কোনো ভাই বা বোনটাইপের কিছু থাকতে পারে। কারণ এটি সম্ভবত সৃষ্টির পর থেকেই চাঁদের পেছনে লুকিয়ে আছে।

তিনি জানান, আসলে (১০১৪২৯) ১৯১৮ ভিএফ ৩১ নামের এই গ্রহাণুটি তাদের নজরে আসে ১৯৯৮ সালেই, মঙ্গলে সংক্ষিপ্ত একটি কক্ষপথে। তাদের ধারণা, চাঁদ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার পর এটি মঙ্গলের ওই ছোট্ট কক্ষপথে আটকে গিয়ে সেখানেই ঘুরপাক খাচ্ছে। সূর্য আর মঙ্গলের মাধ্যাকর্ষণই তাকে সেখানে আটকে রেখেছে। হয়তো অনন্তকালই সেখানে থাকবে। তবে পৃথিবীর কক্ষপথে তাকে ফিরিয়ে আনা কঠিন হলেও অসম্ভব নয়। সেই ক্ষীণ সম্ভাবনা একেবারে নেই বললেই চলে। মানুষ যদি কোনো দিন মঙ্গলে বসতি গড়তে পারে, তখন হয়তো যাওয়া-আসার পথে তাকে দেখা যাবে মঙ্গলের কাছাকাছি ঘুরতে।