রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাসপোর্ট বাণিজ্য : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভেরিফিকেশন ছাড়াই পুলিশ ছাড়পত্র

dfed0432455f85aaf82e63707ac5fa7c_XLনিজস্ব প্রতিবেদকপাসপোর্ট তৈরির নিয়ম অনুযায়ী পাসপোর্ট তৈরি করার সময় পুলিশ ভেরিফিকেশন (ছাড়পত্র) দরকার হয়। এসময় পুলিশ খতিয়ে দেখেন পাসপোর্টের আবেদনকারীর বিভিন্ন বিষয়। তবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পাসর্পোট তৈরির জন্য পুলিশ ভেরিফিকেশনের ক্ষেত্রে টাকা নিয়ে ছাড় দেওয়ার অভিযোগ ওঠেছে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার বিরুদ্ধে। কোন প্রকার নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে টাকা পেয়ে যেকোন ব্যক্তিকেই ছাড়পত্র দিচ্ছেন তারা। এতে অনেক সময় পার পেয়ে যাচ্ছেন জেলার শীর্ষ সন্ত্রাসীরা। আর পাসপোর্ট থেকে আয় হওয়া টাকা ভাগ হয় জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার বিভিন্ন কর্তাব্যক্তিদের পকেটে।

পাসপোর্ট অফিস ও জেলা পুলিশের বিশেষ শাখা ঘুরে জানা যায়, নিয়ম অনুযায়ী যেকোন ব্যাক্তি পাসপোর্ট তৈরির জন্য আবেদন করতে পারেন। পাসপোর্টের আবেদনকারী পাসপোর্ট অফিসে আবেদনপত্র জমা দেওয়ার পরপর এই অফিস থেকে আবেদনকারীর বিভিন্ন বিষয়ে তদন্ত করার জন্য জেলা পুলিশের বিশেষ শাখা (ডিএসবি) কে দায়িত্ব দেওয়া হয়। তদন্তে আবেদনকারীর বিরুদ্ধে কোন প্রকার তথ্য বিভ্রাট, দেশদ্রোহীতা বা জেলার কোন থানায় মামলা আছে কিনা এবং নাম ঠিকানায় কোন ভূল আছে কিনা তা খতিয়ে দেখার জন্য বলা হয়। আবেদনকারীর বিরুদ্ধে কোন প্রকার তথ্য গোপন, মামলা এবং রাষ্ট্রদোহীতার কোন অভিযোগ থাকলে পুলিশ ছাড়পত্র দেওয়া হয়না। আর পুলিশের ছাড়পত্র না পাওয়া পর্যন্ত কোন ব্যক্তি পাসপোর্ট পাওয়ার জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবে না।
এসব বিষয়ে সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, বেশির ভাগ আবেদনকারী পাসপোর্ট তৈরি করেন দালালের মাধ্যমে। দালাল পুলিশ ছাড়পত্র লাগবে না বলে অনেক বেশী টাকা নিয়ে পাসপোর্ট করেন। এসময় দালালের সাথে আবেদনকারীর চুক্তি থাকে দেরি করা ও বাড়িতে পুলিশি তদন্ত যাবে না। এই চুক্তিতে আবেদনকারীর কাছ থেকে বেশী নেওয়া হয় প্রায় ১ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা। পরে দালাল এই টাকার একটা অংশ পুলিশকে দেয় বাড়িতে না যাওয়া কিংবা ছাড়পত্র তাড়াতাড়ি দেওয়ার জন্য। এই ক্ষেত্রে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখা (ডিএসবি) তদন্ত না করেই যেকোন ব্যক্তিকে টাকার বিনিময়ে পুলিশের ছাত্রপত্র দিচ্ছে। এতে করে পাসপোর্টের আবেদনকারী ব্যক্তি যত বড় অপরাধী-ই হোক না কেন শুধু টাকা খরচ করলেই পেয়ে যাচ্ছে পাসপোর্ট। অনেক সময় আবেদনকারী নাম-ঠিকানা ভূল ব্যবহার করেও টাকার মাধ্যমে করে নিচ্ছে পাসপোর্ট। আর এসব টাকা জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার সহকারী পুলিশ সুপার সহ বিভিন্ন কর্মকর্তাদের মধ্যে ভাগ বাটোয়ারা হয় বলে জানা যায়।
পৌর এলাকার মলফত আলীর ছেলে শাহ আলম মিয়া জানান, তিনি জেলা শহরের পাসপোর্ট দালাল শরিফের মাধ্যমে তার পাসপোর্ট করেছেন। এক্ষেত্রে বেশী দিতে হয়েছে প্রায় ৩ হাজার টাকা। দালালের সাথে তার চুক্তি থাকে পুলিশ ছাড়পত্র তারা নিবেন এবং দ্রুত পাসপোর্ট করে দিবেন। তাই হয়েছে। পরে আর পুলিশ তার বাড়িতে কিংবা এলাকায় তদন্ত করতে যায়নি।
জেলার আশুগঞ্জের শরীফপুর গ্রামের মৃত শহীদ মিয়ার ছেলে জয়নাল মিয়া জানান, পুলিশ তদন্ত করলে পাসপোর্ট পেতে অনেক দেরী হয়। তাই দালালের মাধ্যমে পুলিশকে টাকা দিয়ে তদন্ত না করেই পাসপোর্ট পেয়েছি।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে জেলার একজন পাসপোর্ট দালাল জানান, জেলা পুলিশের বিশেষ শাখায় টাকা না দিলে পাসপোর্ট করতে দেরি হয় এবং পাসপোর্টে বিভিন্ন ভ’ল ধরে তারা। তাই তাদের টাকা দিয়ে তারাতারি পাসপোর্টের ছাড়পত্র নিতে হয়। আর এসব টাকা ডিএসবির সকারী পুলিশ সুপার সহ তাদের কর্তাব্যক্তিদের কাছে পৌছে। আমরা টাকা না দিলে বিপদ। কারন পরে আর এইভাবে পাসপোর্ট করতে পারব না।
এসব বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ডিএসবি’র (জেলা বিশেষ শাখা) সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ মাহবুব আলম খানের সাথে কথা হলে তিনি সকল অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি জানান, কোন পাসপোর্টের ছাড়পত্র তদন্ত ছাড়া দেওয়া হয়না। পাসপোর্ট অফিস থেকে আমাদের কাছে তদন্তের জন্য পাঠানো হলে আমরা সংশ্লিষ্ট থানায় আবেদনটি পাঠিয়ে দেই। সেখান থেকে তদন্ত প্রতিবেদন আসার পর আমরা পাসপোর্ট অফিসে পাঠাই। টাকা দেওয়ার বিষয়টি মিথ্যা।