বুধবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মার্চের তৃতীয় সপ্তাহেই বিএনপির কাউন্সিল

2015_08_21_22_00_52_Yxv32QEkYAk5HLjsU1xAObUVreFhHo_originalসব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ছয় বছর পর অবশেষে দলের ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। আগামী মার্চে এ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। কাউন্সিলের জন্য রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র, ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান পেতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাছে অনুমতি চাওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। সোমবার বিএনপির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ডিএমপিকে চিঠি দেয়া হতে পারে।

ডিএমপির অনুমতি সাপেক্ষেই বিএনপির এ কাউন্সিলের সুনির্দিষ্ট তারিখ নির্ধারিত হবে। তবে মার্চের তৃতীয় সপ্তাহকে ঘিরে চূড়ান্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করছে বিএনপি। দেশব্যাপী অসমাপ্ত জেলাগুলোর কমিটি গঠন, কাউন্সিলর ও ডেলিগেটদের তালিকা প্রস্তুতসহ অন্যান্য কার্যক্রমও চলছে দ্রুতগতিতে। বিএনপির প্রবীণ নেতা তরিকুল ইসলামকে আহ্বায়ক করে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হচ্ছে।

এছাড়া দলের চেয়ারপারসন নির্বাচনের জন্য সম্মেলনের পূর্বেই গঠিত হবে নির্বাচন কমিশন। কমিশনের প্রধান হিসেবে বিএনপির প্রবীণ নেতা অ্যাডভোকেট টি এইচ খান, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার ও অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেনের নাম আলোচনায়। তবে এখনো কাউকে চূড়ান্ত করা হয়নি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে শনিবার রাতে অনুষ্ঠিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে কাউন্সিল নিয়ে এসব বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। রাত সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এ বৈঠক চলে।

বৈঠক সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে যেসব উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছিল সেগুলো বহাল রাখা হবে। তবে ওই কমিটির যেসব নেতা মারা গেছেন কিংবা দেশে নেই তাদের পবিবর্তে অন্যদের অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

দীর্ঘ ১৬ বছর পর ২০০৯ সালের ৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় বিএনপির পঞ্চম কাউন্সিল। সর্বশেষ ওই কাউন্সিলে দলটির গঠনতন্ত্রে বেশকিছু পরিবর্তন আনা হয়। নির্বাহী কমিটির সদস্য ২৫১ থেকে বাড়িয়ে ৩৮৬ করা হয়। এছাড়া ‘সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান’ নামে নতুন পদ সৃষ্টি করা হয়। তারেক রহমানের প্রতি সম্মান দেখিয়ে সৃষ্টি করা হয় ওই পদ। গঠনতন্ত্র অনুসারে, চেয়ারপারসনের অনুপস্থিতিতে শুধু সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসনের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। মূলত কোনো কারণে খালেদা জিয়া দায়িত্ব পালন করতে না পারলে পরবর্তী সময়ে যেন তারেক রহমান সেই দায়িত্ব পালন করতে পারেন, এমন চিন্তাভাবনা থেকেই ওই পদ সৃষ্টি করা হয়েছিল। এর আগে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০০২ সালের ২২ জুন দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব পদ দেয়া হয় তারেক রহমানকে।

বিএনপির গঠনতন্ত্রে প্রতি তিন বছর পরপর কাউন্সিল করার বিধান রয়েছে। সে অনুযায়ী, বিএনপির পক্ষ থেকে ২০১৩ সালে কাউন্সিলের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়। কিন্তু রাজনৈতিক পরিবেশ অনুকূলে না থাকায় শেষ পর্যন্ত কাউন্সিল করতে পারেনি দলটি।

বিএনপির এবারের কাউন্সিলকে ঘিরে অনেক বিষয় আলোচিত হচ্ছে। বিশেষ করে কেন্দ্রীয় নেতাদের একাধিক পদ গ্রহণের বিষয়টিকে নেতাকর্মীরা নেতিবাচকভাবে দেখছেন। এতে করে নতুন নেতৃত্বের বিকাশ ঘটছে না। ফলে চূড়ান্তভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দল। বিষয়টি উপলব্ধি করতে পেরেছেন দলীয় প্রধানও।

বৈঠকে তাই ‘এক ব্যক্তির এক পদ’র পক্ষে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা মতামত দিলে খালেদা জিয়াও তাতে সম্মতি দেন। এছাড়া স্থায়ী কমিটির শূন্যপদ পূরণ, বয়সের ভারে নূহ্য হয়ে পড়াদের স্থলে নতুনদের জায়গা করে দেয়া এবং নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়া নেতাদের স্থলে সক্রিয় ও পরীক্ষিতদের অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টিও সভায় গুরুত্ব পায়। দলের যেসব নেতা সংসদ সদস্য পদে নির্বাচন করবেন তাদের আগামীতে জেলা ও উপজেলা কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে না থাকার বিষয়টিতে স্থায়ী কমিটির অধিকাংশ সদস্য একমত পোষণ করেন। বিষয়টিতে ইতিবাচক মনোভাব দেখান বেগম খালেদা জিয়াও।

বৈঠকের এক পর্যায়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের জানান, আগামী মার্চ মাসের মধ্যেই ঢাকায় জাতীয় কাউন্সিল করবে বিএনপি। তবে নির্ধারিত হওয়া সাপেক্ষে তারিখ ও ভেন্যু পরে জানানো হবে।

কাউন্সিল প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বাংলামেইলকে বলেন, ‘দল পুনর্গঠনে কাউন্সিল একটি গুরুত্ব বিষয়। আমরা অনেক আগেই কাউন্সিল করার প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিলাম। কিন্তু রাজনৈতিক পরিবেশ অনুকূলে না থাকায় এবং সরকারি প্রতিবন্ধকতার কারণে নির্ধারিত সময়ে কাউন্সিল করা সম্ভব হয়নি। আশা করছি, আগামী মার্চের মধ্যেই ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল সম্পন্ন হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যে সারা দেশের দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। আশা করি, বিএনপির কাউন্সিল অনুষ্ঠানে সরকার কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে না।’