মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হাটে চরম অব্যবস্থাপনা দুর্ভোগে বেপারিরা

news-image

কালো পলিথিন কিনে এনে বাঁশের খুঁটি দিয়ে সেটা আটকানোর চেষ্টা করছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গার মনসুর বেপারি। তার ১২টি গরু বৃষ্টিতে ভিজে একাকার। ভিজছেন নিজেও। গাবতলী হাটের প্রবেশমুখের পশ্চিম পাশে বৃষ্টির মধ্যে গরু নিয়ে গলদঘর্ম অবস্থা তার। আক্ষেপ করে বলেন, ‘ভাই হাটে গরু এইনে এরাম কষ্ট জীবনে পাইনি। অনেকবার হাটে গরু এইনেছি। মেঘের লাগি না পারছি নিজে দাঁড়াতি, না পারছে গরু দাঁড়াতি।’ তিনি আরও জানান, হাটে পর্যাপ্ত টয়লেট নেই, নেই থাকার ব্যবস্থা। খেতে হয় হাটের ভেতরের অস্থায়ী দোকানে। মনসুর বেপারির কথার সত্যতা পাওয়া গেল একটু ঘুরেই। বৃষ্টি থেকে গরুকে নিরাপদে রাখার জন্য ত্রিপলের ব্যবস্থা নেই, বেপারিদের থাকারও নির্দিষ্ট কোনো জায়গা নেই। এছাড়া একদিকে গরুর খাবারের সংকট অন্যদিকে গোবরসহ আবর্জনা সরানোর ব্যবস্থাও নেই বললেই চলে। হাটজুড়েই এমন চরম অব্যবস্থাপনা। ফলে গরু বেপারিদের এখন মাথায় হাত। বেশি লাভের আশা বাদ দিয়ে চালান তোলা নিয়েও শংকিত অনেকে।


গাবতলী হাটের মতোই অবস্থা রাজধানীর আফতাবনগর, গোলাপবাগ মাঠ, মেরাদিয়া, রায়েরবাজার, বনরূপা, বারিধারা জে-ব্লকসহ অন্যান্য হাটের। অথচ এসব হাট থেকে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আয় করছে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এবং ঢাকা জেলা প্রশাসন। মোটা অংকের লাভ করেন ইজারাদাররাও। কিন্তু যে বেপারিদের উপলক্ষ করে এত আয়, এত আয়োজন সেই বেপারিদের থাকা-খাওয়া ও গরুগুলোকে রোদ-বৃষ্টি থেকে রক্ষা করতে কার্যকর উদ্যোগ নেয়নি কেউ। অব্যবস্থাপনা ও বেপারিদের দুর্ভোগের কথা স্বীকার করলেন গাবতলী হাটের পরিচালক রাকিব ইমরান। তিনি বলেন, আমাদের হাট স্থায়ী অংশে ছাউনি আছে। কিন্তু হাট অনেক এলাকজুড়ে ছড়িয়ে গেছে। এত বিশাল এলাকাজুড়ে ত্রিপলের ছাউনি দেয়া সম্ভব নয়। তার দাবি হাটে অনেক গরু এসেছে। ক্রেতা নেই। কিছু গরু বিক্রি হয়ে গেলে জায়গা খালি হবে। হঠাৎ বৃষ্টির কারণে আমাদের এই সর্বনাশ হয়েছে। বেপারিরাও কষ্ট পাচ্ছে। বেপারিদের থাকা-খাওয়া সমস্যা আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, হাটে খাবারের অস্থায়ী দোকান বসেছে প্রচুর। তাই বেপারি ও গরুর খাবারের সংকট নেই। থাকার সংকট কিছুটা আছে বলে স্বীকার করেন তিনি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সম্পত্তি কর্মকর্তা খালিদ আহমদ বলেন, হাটে নিরাপত্তা ও জনদুর্ভোগের বিষয়ে দেখার জন্য কর্পোরেশনের মনিটরিং টিম ও মোবাইল কোর্ট আছে। কিন্তু পুলিশের অসহযোগিতায় মোবাইল কোর্টগুলো কার্যকর করা যাচ্ছে না। দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ১০টি হাটের অব্যবস্থাপনা দেখার জন্য মোবাইল কোর্টগুলো কাজ করছে বলে তিনি দাবি করেন।


বেপারিদের থাকা-খাওয়াসহ অন্য কোনো অভিযোগ থাকলে ইজারাদারদের জমা রাখা ৫ শতাংশ জামানত বাজেয়াপ্তসহ আর্থিক দণ্ডের বিধান রয়েছে বলে তিনি জানান। ইজারাদার, করপোরেশন ও পুলিশের মধ্যে সমন্বয়ের অভাবে বেপারি ও ক্রেতাদের দুর্ভোগ বেড়েছে বলে স্বীকার করেন এই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, আমি একজন সাধারণ দর্শক ছাড়া হাটে গিয়ে আমার কিছু করার নেই। আবর্জনা সরানোর বিষয়টি দেখছে কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ। রোববার গাবতলী হাট ঘুরে দেখা গেছে, মুষলধারে বৃষ্টিতে ভিজেও বিক্রেতারা উম্মুখ হয়ে আছেন ক্রেতার আশায়। কিন্তু ক্রেতার দেখা নেই। বৃষ্টি থেকে গরু রক্ষা করতে কেউ পলিথিন দিয়ে, কেউ আবার শামিয়ানা টানিয়েছেন। কিন্তু দমকা বাতাসে পলিথিন ছিঁড়ে যাচ্ছে। গরু ছোটাছুটি করায় ভেঙে পড়ছে খুঁটি। সব মিলে হযবরল অবস্থা।
হাটের ইজারাদারের প্রতিনিধি সানোয়ার হোসেন জানান, এত বিশাল মাঠ ত্রিপল দিয়ে ডেকে দেয়া সম্ভব নয়। গাবতলী হাটে কুষ্টিয়া থেকে গরু নিয়ে আসা জামির হোসেন বলেন, ‘নিজেগের শরীরের চাইতে এই গরুর যত্ন বেশি করি। বিষ্টিত যাতে ভিজতি না পারে সেই চেষ্টাই চালাইয়ে যাচ্ছি। কিন্তু পাইরেছি কই। সব গরু ভিইজে গেল।’ তিনি আরও জানান, ত্রিপলের নিচে গরু রাখতে গেলে তাদের অতিরিক্ত গরুপ্রতি এক হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে হয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে হাট পরিচালনা কমিটির সদস্য সানোয়ার হোসেন বলেন, ‘ত্রিপাল ভাড়া করতে আমাদেরও খরচ হয়েছে। সেজন্য কিছু টাকা তো দিতেই হবে। গরুর সাইজ ও দাম বুঝে এই টাকা নেয়া হয়।’


পাবনার গরু বেপারি জামাল হোসেন বলেন, ‘এই কদিন বৃষ্টির আগে গরম নিয়ে অনেক বেশি চিন্তা করতে হইছে, এহন লাগাতার বৃষ্টিতে চিন্তা। গরম থাকলে তো মানুষ আইতে পারত, ঘুরে ঘুরে দেখত পছন্দ হলে কিনত। কিন্তু এমন বৃষ্টি হইলে গরু নিয়া আমাগো থাকতে সমস্যা, কাস্টমারেরও সমস্যা।’ গাবতলীর পরই রাজধানীর অন্যতম বড় হাট আফতাবনগর। প্রায় ৪ বর্গকিলোমিটার আয়োতনের হাটেও দেখা গেছে চরম অব্যবস্থাপনা। বেপারিদের থাকার জায়গা নেই। খাবারের জন্য অস্থায়ী কিছু দোকানই ভরসা। বৃষ্টি থেকে গরুকে রক্ষা করতে নেই ত্রিপলের ব্যবস্থা। বেপারিরা নিজের খরচে শামিয়ানা, কাপড়, পলিথিন যা পাচ্ছেন টানিয়েছেন। কুষ্টিয়ার মজমপুরের বেপারি আতাহার উল্লাহ জানান, ১৬টি গরু এনেছেন। ৬০০ টাকা দিয়ে পলিথিন ও এক হাজার টাকার বাঁশ কিনে টানিয়েছেন। বাতাসে পলিথিন সরে যায়। এতে গরুগুলো ভিজছে, নিজেরাও ভিজছেন। গরুর পাশেই রাত কাটাতে হয়। কারণ হাটে বেপারিদের থাকার কোনো ব্যবস্থা নেই।


চাঁদপুরের মতলব উপজেলার জসিম বেপারি। ঈদ মৌসুমে কিছু লাভের আশায় ২১ লাখ টাকা খরচ করে ১৮টি গরু এনেছেন রাজশাহী থেকে। জানালেন একটি গরুও বিক্রি করতে পারেননি। ট্রাকে আনার সময় একটি গরুর পা ভেঙে গেছে। ৮০ হাজার টাকা কেনা ওই গরুটি শনিবার সন্ধ্যায় বাড্ডার এক কসাইয়ের কাছে ৬০ হাজার টাকায় বেচেছেন। তিনি বলেন, একটি গরুর দৈনিক ৪-৫শ’ টাকার খৈল, ভুসি, খড় ও কাঁচা ঘাস লাগে। ছোট্ট এক আঁটি খড় কিনতে হয় ৪০ টাকায়। গোবর সরাতে বললে হাটের লোকজন টাকা ছাড়া সরায় না। সব কাজেই টাকা দিতে হয়। জসিম আক্ষেপ করে বলেন, ‘লাভ কিতা কইরতাম, এহন তো চালান আনা বড় কতা।’ হাটে আসা ক্রেতা মহিউদ্দিন বলেন, হাটে টয়লেট ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা অত্যন্ত দুর্বল। বৃষ্টিতে দুর্ভোগের কথা স্বীকার করেন হাটের পরিচালক তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, হাটে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা, বেপারিদের খাবারের ব্যবস্থাসহ সবকিছু করা হয়েছে। গোলাপবাগ মাঠের হাটেও একই অবস্থা। বেপারি থাকার জায়গা নেই। বৃষ্টি থেকে গরু বাঁচানোর উপায় নেই। পানির সমস্যা। টয়লেটের সমস্যা। ফলে চরম দুর্ভোগ আর বিড়ম্বনায় পড়েছেন বেপারি ও ক্রেতারা। এদিকে হাটগুলোতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে জানিয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) উপ-কমিশনার মুনতাসিরুল ইসলাম বলেন, হাটগুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক পুলিশ আছে। সেখানে তারা ইজারাদারদের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করছেন। হাটে আইনশৃংখলা, প্রতারণা, জাল টাকা এসব দেখছে পুলিশ।
 

এ জাতীয় আরও খবর