মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোরবানির প্রয়োজনীয় মাসায়েল

news-image

কোরবানি মুসলিম উম্মাহর একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। এটি শাআইরে ইসলাম তথা ইসলামের প্রতীকী বিধানাবলির অন্যতম। রাসুলুল্লাহ (সা.) প্রতিবছর কোরবানি করতেন। যাদের ওপর জাকাত ওয়াজিব, তাদের ওপর কোরবানি ওয়াজিব। এতে গরিব-দুঃখী ও পাড়া-প্রতিবেশীর আপ্যায়নের ব্যবস্থা হয়।

কোরবানিতে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের শর্তহীন আনুগত্যের শিক্ষা রয়েছে। এতে আল্লাহর ভালোবাসায় নিজের সব চাহিদা ও যুক্তি কোরবানি করার শিক্ষা রয়েছে। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, 'হে রাসুল! আপনি বলুন, আমার নামাজ, আমার কোরবানি, আমার জীবন, আমার মরণ বিশ্ব জাহানের পালনকর্তা আল্লাহর জন্য উৎসর্গিত।' (সুরা আনআম : ১৬২)

নিয়ত পরিশুদ্ধ হওয়া জরুরি

কোরবানি একমাত্র আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে পালন করতে হবে, লোক দেখানো বা গোশত খাওয়ার নিয়তে কোরবানি করলে তা শুদ্ধ হবে না। (বাদায়েউস সানায়ে ৫/৭১) শরিকি কোরবানিতে কোনো অংশীদার আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্য ছাড়া অন্য নিয়ত করলে শরিকদের কারো কোরবানিই শুদ্ধ হবে না। তাই অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে শরিক নির্বাচন করা জরুরি। (আল বাহরুর রায়েক্ব, ৮/২০২)

যাদের ওপর কোরবানি ওয়াজিব

প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক, সুস্থ মস্তিষ্কসম্পন্ন মুসলিম নর-নারী, যে কোরবানির দিনগুলোতে সাড়ে সাত ভরি সোনা, সাড়ে বায়ান্ন ভরি রুপা বা ওই পরিমাণ রুপার সমমূল্যের নগদ অর্থ অথবা বর্তমানে বসবাস ও খোরাকির প্রয়োজন আসে না এমন জমি, প্রয়োজনাতিরিক্ত বাড়ি, ব্যবসায়িক পণ্য ও প্রয়োজনাতিরিক্ত অন্যান্য আসবাবপত্রের মালিক হবে, তার ওপর কোরবানি ওয়াজিব হবে। (মাবসুতে সারাখসি ১২/৮, রদ্দুল মুহতার ৬/৬৫)

আর সোনা বা রুপা কিংবা টাকাপয়সা এগুলোর কোনো একটি যদি পৃথকভাবে নেসাব পরিমাণ না থাকে, কিন্তু প্রয়োজনাতিরিক্ত একাধিক বস্তু মিলে সাড়ে বায়ান্ন ভরি রুপার সমমূল্যের হয়ে যায়, তাহলেও তার ওপর কোরবানি করা ওয়াজিব। যেমন কারো কাছে কিছু স্বর্ণ ও কিছু টাকা আছে, যা সর্বমোট সাড়ে বায়ান্ন ভরি রুপার মূল্যের সমান, তাহলে তার ওপর কোরবানি ওয়াজিব। (রদ্দুল মুহতার, ৫/২১৯)

কোরবানির নিসাব পূর্ণ হওয়ার জন্য জাকাতের মতো সম্পদের বর্ষ অতিক্রম হওয়া শর্ত নয়, শুধু কোরবানির তিন দিন নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হওয়াই যথেষ্ট। এমনকি ১২ তারিখ সূর্যাস্তের পূর্বক্ষণেও নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়ে গেলে কোরবানি ওয়াজিব হবে। (বাদায়েউস সানায়ে ৫/৬২) একান্নভুক্ত পরিবারের মধ্যে একাধিক ব্যক্তির কাছে নিসাব পরিমাণ সম্পদ থাকলে তাদের প্রত্যেকের ওপর ভিন্ন ভিন্ন কোরবানি ওয়াজিব। (কিফায়াতুল মুফতি ৮/১৭৮)

এখানে লক্ষণীয় হলো, বর্তমানে অনেকেই দেখা যায়, শুধু ঘরের মুরব্বিদের নামে কোরবানি দেয়, অথচ তাদের ওপর ওয়াজিব, এটি সঠিক নয়। বরং যাদের ওপর ওয়াজিব, তাদেরটি আদায় করার পর মুরব্বিদের নামে নফল কোরবানি দিতে পারবে। বিশেষ করে মহিলাদের ব্যাপারে শিথিলতা দেখা যায়। কেননা বর্তমানে দেড় ভরি স্বর্ণের সঙ্গে সামান্য নগদ টাকা বা অন্য অতিরিক্ত কিছু থাকলেই তার ওপর কোরবানি ওয়াজিব হয়ে যায়। অনেকেই ঘরের মহিলা সদস্যদের পক্ষ থেকে সাধারণত কোরবানি দিতে অবহেলা করে থাকেন, এতে ওয়াজিব ছেড়ে দেওয়ার গুনাহ হবে।

শরিকে কোরবানি করা

শরিকে কোরবানি করলে কারো অংশ এক-সপ্তমাংশের কম হতে পারবে না, এমন হলে কোনো শরিকেরই কোরবানি সহিহ হবে না। (বাদায়েউস সানায়ে, ৫/৭১)

শরিকে কোরবানি করলে গোশত ওজন করে বণ্টন করতে হবে। অনুমান করে ভাগ করা জায়েজ নেই। তবে হাড্ডি-মাথা ইত্যাদি যেসব অংশ সাধারণত সমানভাবে ভাগ করা যায় না, সেগুলো অনুমান করে ভাগ করা যাবে। এতে সামান্য কম-বেশি হলে সমস্যা নেই। (ফাতাওয়া কাজিখান, ৩/৩৫১)

মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে কোরবানি করা

মৃত ব্যক্তি যদি অসিয়ত না করে থাকে, তাহলে তাদের পক্ষ থেকে নফল কোরবানি করা উত্তম। এর গোশত কোরবানির স্বাভাবিক গোশতের মতো তা নিজেরাও খেতে পারবে এবং আত্মীয়স্বজনকেও দিতে পারবে। আর যদি মৃত ব্যক্তি কোরবানির অসিয়ত করে থাকে, তবে এর গোশত নিজেরা খেতে পারবে না। গরিব-মিসকিনদের মধ্যে সদকা করে দিতে হবে। (রদ্দুল মুহতার, ৬/৩২৬)

পশু জবাই করার বিধান

জবাইয়ে পশুর চারটি রগের (শ্বাসনালি, খাদ্যনালি ও দুটি রক্তনালি) মধ্যে থেকে যেকোনো তিনটি কাটা আবশ্যক। চারটি কাটাই উত্তম। (আল বাহরুর রায়েক্ব, ৮/১৯৩) জবাইকারী ও তার সঙ্গে ছুরি ধরায় অংশগ্রহণকারী উভয়েই 'বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার' বলে জবাই করতে হবে। ইচ্ছাকৃত কেউ 'বিসমিল্লাহ' ছেড়ে দিলে পশু হালাল হবে না। তবে ভুলবশত হলে কোনো সমস্যা নেই। (আল বাহরুর রায়েক্ব, ৮/১৯৩)

কোনো কোনো সময় জবাইকারীর জবাই সম্পন্ন হয় না, তখন কসাই বা অন্য কেউ জবাই সম্পন্ন করে থাকে। এ ক্ষেত্রে অবশ্যই উভয়কেই নিজ নিজ জবাইয়ের আগে 'বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার' পড়তে হবে। যদি কোনো একজন না পড়ে, তবে জবাইকৃত পশু হালাল হবে না। ওই কোরবানিও শুদ্ধ হবে না। (রদ্দুল মুহতার ৬/৩৩৪)

জবাইয়ের পর পশু নিস্তেজ হওয়ার আগে চামড়া খসানো বা কোনো অঙ্গ কাটা মাকরুহ। জবাইয়ের সময় প্রাণীকে কষ্ট কম দেওয়ার চেষ্টা করবে। অন্য পশুর সামনে জবাই করবে না। (বাদায়েউস সানায়ে, ৫/৮০)

কোরবানির পশু জবাই করে পারিশ্রমিক দেওয়া-নেওয়া জায়েজ। তবে পশুর কোনো অংশ পারিশ্রমিক হিসেবে দেওয়া যাবে না। (কিফায়াতুল মুফতি, ৮/২৬৫) পশুতে অংশীদার কেউ জবাই করে অন্য শরিকদের থেকে জবাইয়ের পারিশ্রমিক নেওয়া জায়েজ নেই। (আহসানুল ফাতাওয়া, ৭/৫১৮)

কোরবানির গোশতের বিধান

কোরবানির গোশতের এক-তৃতীয়াংশ গরিব-মিসকিনকে এবং এক-তৃতীয়াংশ আত্মীয়স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীকে দেওয়া উত্তম। অবশ্য পুরো গোশত নিজে রেখে দিলেও কোনো অসুবিধা নেই। (বাদায়েউস সানায়ে, ৫/৮১)

মানতকৃত কোরবানির গোশত নিজে ও পরিবার-পরিজন খেতে পারবে না। তা কোনো দরিদ্র মুসলমানকে সদকা করে দেওয়া ওয়াজিব। (রদ্দুল মুহতার, ৬/৩২১) জবাইকারী, কসাই বা কাজে সহযোগিতাকারীকে চামড়া, গোশত বা কোরবানির পশুর কোনো কিছু পারিশ্রমিক হিসেবে দেওয়া জায়েজ নেই। অবশ্য পূর্ণ পারিশ্রমিক দেওয়ার পর পূর্বচুক্তি ছাড়া হাদিয়া হিসেবে গোশত বা তরকারি দেওয়া যাবে। (আল বাহরুর রায়েক, ৮/২০৩)

কোরবানির পশুর অংশ ক্রয়-বিক্রয়

কোরবানির পশুর কোনো অংশ যেমন গোশত, চর্বি, হাড্ডি ইত্যাদি বিক্রি করা জায়েজ নয়। বিক্রি করলে পূর্ণ মূল্য সদকা করে দিতে হবে। (বাদায়েউস সানায়ে, ৫/৮১), পশুর চামড়া কোরবানিদাতা নিজেও ব্যবহার করতে পারবে। তবে কেউ যদি নিজে ব্যবহার না করে বিক্রি করে, তবে বিক্রিলব্ধ মূল্য সদকা করা জরুরি। (ফাতাওয়া হিন্দিয়া, ৫/৩০১)

কোরবানির পশুর চামড়া বিক্রি করলে মূল্য সদকা করে দেওয়ার নিয়তে বিক্রি করবে। সদকার নিয়ত না করে নিজের খরচের নিয়ত করা গুনাহ। নিয়ত যা-ই হোক, বিক্রিলব্ধ অর্থ পুরোটাই জাকাতের উপযুক্ত ব্যক্তিকে সদকা করে মালিক বানিয়ে দেওয়া জরুরি। তা মাদ্রাসা-মসজিদ ইত্যাদির নির্মাণে খরচ করা জায়েজ নয়। তবে তা লিল্লাহ বোর্ডিংয়ের জন্য দেওয়া যাবে। (ফাতাওয়া কাজিখান, ৩/৩৫৪)

লেখক : গবেষক, ফতোয়া সংকলন বিভাগ, ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার