সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শরতরে সাজ

news-image

                    
শরতরে সাজ‘নীল আকাশে কে ভাসালে সাদা মঘেরে ভলো 
রে ভাই-লুকোচুরি খলো।’
কবগিুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুররে এ গানরে কথাতে উঠে এসছেে শরতে প্রকৃতরি মোহনীয় মার্ধুযতা। পঁেজা তুলার মতো সাদা মঘেরে ভলো, নীলে নীলাম্বরী, র্বষাধোয়া কলাপাতা রঙÑ এ রকম কত রঙে কত সাজইে না প্রকৃতি এ সময় সজেে ওঠ।ে শরতে প্রকৃতি যখন এত রঙ, এত সাজে সজেে ওঠÑে তখন আপনি কনে চুপটি মরেে বস।ে প্রকৃতরি সঙ্গে মলিমেশিে আপনওি সজেে উঠুন শরৎ বসন,ে স্নগ্ধি সাজ।ে লখিছেনে আঞ্জুমান আরা
auto
 
শরতে মঘেে মঘেে হয় মতিাল,ি আকাশ হয় র্বণাল,ি প্রকৃতি সাজে অপরূপ সাজ।ে নীল আকাশে পাল তুলে ভসেে বড়োয় সাদা মঘেরে ভলো। শরৎকালে দগিন্তজুড়ে কাশফুল ফোট।ে র্বষা ঋতুর অবসানে অর্পূব শোভা মলেে অভভিূত হয় শরৎকাল। ভোরবলোয় ঘাসরে ডগায় জমে শশিরি, বনে বনে খুঁজে পাওয়া যায় শউিল,ি গোলাপ, বকুল, মল্লকিা, কামনিী, মাধবীসহ বচিত্রি সব ফুলরে সমাহার। প্রকৃতরি এই অপরূপ শোভায় মুগ্ধ হয়ইে কবগিুরু শরৎকে স্বাগত জানয়িছেনে এভাবÑে
‘শউিলবিনরে মধুর স্তবে
জাগবে শরৎলক্ষ্মী যবে
এমন ঋতু দোলা দয়িে যায় আমাদরে মনক,ে তমেনি ফ্যাশন ট্রন্ডেকওে আন্দোলতি কর।ে শরতে প্রকৃতরি এই সাজ কখনো উঠে আসে শাড়রি আঁচলে এক টুকরো নীল আকাশ হয়,ে তো কখনো শরতরে কাশবন যনে দোলা দয়িে যায় কামজিরে প্রান্ত ছুঁয়।ে পোশাকরে ক্ষত্রেে র্বতমানে প্রাধান্য পাচ্ছে ঋতুভত্তিকি পোশাক। ভাবা হচ্ছে আবহাওয়ার কথাও। এ প্রসঙ্গে ববিআিনার ফ্যাশন ডজিাইনার লপিি খন্দকার বলনে, ‘ঘন নীল আকাশ, গুচ্ছ গুচ্ছ সাদা মঘে, কাশবন, শউিলরি হালকা মৃদুমন্দ সৌরভে শরতরে রূপে মুগ্ধ হয় না এমন বাঙালি খুঁজে পাওয়া মুশকলি। শরৎ বলতইে আমরা বুঝি নীল-সাদা আর সবুজরে ঐকতান। তাই এ সময় প্রকৃতরি সঙ্গে একাকার হতে মানানসই হবে এ রঙগুলোর পোশাক। হালকা নীল-সাদা আর সবুজরে যে কোনো ধরনরে শডেইে আপনার পোশাক শরতরে র্বাতা বহন কর।ে এর বাইরওে হলুদ, কমলার মশিলেরে পোশাক সৌর্ন্দয ছড়াবে বশে।’
automs
এ সময় শরতরে স্নগ্ধিতার সঙ্গে রয়ছেে রোদরে আনাগোনাও। তাই সময় বলছ,ে এ সময় সুতরি কোনো বকিল্প নইে। শরতে তাই বছেে নতিে পারনে অ্যান্ডি কটন, তাঁত, ভয়লে প্রভৃত।ি একটু র্গজয়িাস পোশাক চাইলে সল্কি, জয়সল্কি বা মসলনি। এখন কামজিরে দর্ঘ্যৈ চলছে সমেি লং। ঢোলা পালাজ্জো তো পরতইে পারনে, তার সঙ্গে পরতে পারনে চাপা সালোয়ার আর চুড়দিারও। ডজিাইনরে ক্ষত্রেে এ সময় গুরুত্ব দওেয়া হচ্ছে হ্যান্ড ও মশেনি এমব্রয়ডার,ি ব্রাশ পইেন্ট, স্কনি পইেন্ট প্রভৃত।ি
ডজিাইনার শাহনি আহমদে বলনে, শরতে শাড়ি এক ধরনরে আলাদা আবদেন তরৈি কর।ে তাই এ সময় শখরে বসওে অনকেে শাড়ি পরতে পছন্দ করনে। এ সময় শাড়তিে খুব ভারী কাজরে চয়েে হালকা কাজ অনকে বশেি মার্ধুয ছড়য়িে দবে।ে একরঙা, ফুললে প্রন্টি, হালকা কাজরে এমব্রয়ডার,ি হ্যান্ড পইেন্ট, স্কনি পইেন্ট এ সময় বশে মানানসই। তাঁত, জরি পাড়, জামদান,ি সল্কি, মসলনি শাড়গিুলো শরতে বছেে নতিে পারনে অবলীলায়। আর শাড়রি সঙ্গে এ সময়ে ট্রন্ডে প্রন্টিরে ব্লাউজ শরৎ বসনে মানয়িে যাবে বশে।
এ সময় গরমে প্রাণ ওষ্ঠাগত হওয়ার আগইে নামে ঝুম বৃষ্ট।ি তাই শরতে ঘন রঙরে সঙ্গে হালকা রঙরে পোশাকও প্রাধান্য পাচ্ছে বপিণবিতিানগুলোত।ে র্মাকটে ঘুরে দখো গছে,ে শরতে পোশাকে নীল, বগেুনরি পাশাপাশি নজর কাড়ছে সাদা, সবুজ, টয়িা, কমলা রঙগুলোও। শরতরে মনহরণ করা প্রকৃততিে পোশাকরে সঙ্গে সাজরে ধরনটা কমেন হবে এ সর্ম্পকে রডে বউিটি স্যালুনরে রূপ বশিষেজ্ঞ আফরোজা পারভনি বলনে, সময় এবং আবহাওয়া পরর্বিতনরে সঙ্গে সঙ্গে সাজও বদলে যায়। শরতরে ভোরটা খুব স্নগ্ধি। তবে একটু বলো বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রোদরে তপ্ত ছােঁয়ায় এ আবশে কটেে যায়। আবার হুট করে ঝরে পড়ে টাপুরটুপুর বৃষ্ট।ি সাজরে ক্ষত্রেে মাথায় রাখতে হবে এ সবকছিুই। এ ক্ষত্রেে মানানসই হবে হালকা স্নগ্ধি সাজই। তাই এ সময় মকেআপরে ক্ষত্রেে বইেজ মকেআপটা কমপ্যাক্ট পাউডার দয়িইে সরেে ফলেুন। পোশাকরে সঙ্গে মলিয়িে বছেে ননি আইশ্যাডো। শরৎ সাজে চোখে নীল আইশ্যাডো, মাশকারা, আইলাইনার ভালো লাগব।ে রাতরে সাজে চোখে ভারী করে লাগয়িে নতিে পারনে ওয়াটার প্রুফ মাশকারা, পন্সেলি আইলাইনার ও কাজল। পোশাকরে রঙরে সঙ্গে মলিয়িে নানা রঙরে রঙনি কাজলরে রখোও এঁকে দতিে পারনে চোখরে কোণ।ে লপিস্টকিরে ক্ষত্রেে এখনো চলছে গাঢ় রঙ। ব্যবহার করতে পারনে কমলা, লাল, মজেন্টো রঙগুলো। শরতরে সাজে পোশাকরে সঙ্গে বশিষে করে নীল রঙরে পোশাকরে সঙ্গে মুক্তার গহনা অনকে বশেি মার্ধুয এনে দয়ে। শরতরে সাজ পোশাকরে সঙ্গে অক্সাডাইজ, মটোল, কাচ, পুঁত,ি বডিসরে গহনা মানয়িে যাবে বশে। 


 

এ জাতীয় আরও খবর