রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যা দেই, তাই খা’

news-image

পিরোজপুর শিশু পরিবারের কোমলমতি শিশুদের এভাবেই বিভিন্ন কাজে লাগানো হয়।  

'তোদের যা দেই, তাই খা। তোরা এতিম, মাগনা যা পাও, তাতেই শুকুর কর।' পিরোজপুর সরকারি শিশু পরিবারের শিশুদের অভিযোগ, কর্তৃপক্ষ নিয়মিত এভাবেই তাদের শাসন করে আসছে। প্রতিষ্ঠানটিতে বর্তমানে ৭০ জন এতিম শিশু বসবাস করছে। দীর্ঘদিন ধরে তারা নানা বঞ্চনার শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে এসব সমস্যা নিরসনে কোনো উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। উল্টো দিন দিন ওই শিশুদের বঞ্চনার মাত্রা বেড়েই চলেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রতিষ্ঠানটিতে ১৯টি পদের বিপরীতে কর্মকর্তা-কর্মচারী মাত্র আটজন। এর মধ্যে চারজন রয়েছেন আবার ডেপুটেশনে। উপতত্ত্বাবধায়ক পদে সাত বছর ধরে আছেন মতিউর রহমান। তিনি একাই জেলার গুরুত্বপূর্ণ আরো তিনটি পদে রয়েছেন। ৭০টি শিশুর রান্নার জন্য কোনো বাবুর্চি নেই।'যা দেই, তাই খা' তাদের যে খাবার দেওয়া হয় তার মান খুবই নিম্ন। শিশুরা জানায়, তাদের জন্য সকালে নিম্নমানের চালের ভাতের সঙ্গে ডাল, দুপুরে সামান্য মুরগির মাংস আর রাতে নিরামিষ কাঁচা কলা দেওয়া হয়।

সম্প্রতি স্থানীয় কয়েকজন নারীনেত্রী ও সাংবাদিক ওই শিশু পরিবারে গেলে তাঁদের দেখে কান্নায় ভেঙে পড়ে শিশুরা। এ সময় তারা নানা অভিযোগ তুলে ধরে। তাদের অভিযোগ যেন আর ফুরায় না। তারা জানায়, খাওয়ার জন্য তাদের কম দামের পচা চাল দেওয়া হয়। খাবার দেওয়া হয় অল্প। খাতাপত্র, জামাকাপড়, খাবার-সব কিছুতেই বঞ্চিত করা হয়। থাকার পরিবেশ ভালো নয়। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে গালি দেওয়া হয়। শিশু পরিবার থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। সম্প্রতি এ কারণে ছয়টি বড় শিশুকে বের করে দেওয়া হয়েছে। প্রায়ই তাদের মারধর করা হয়। এদিকে শিশু পরিবারের ছয়টি মেয়েকে বিশৃঙ্খলার অভিযোগ এনে বের করে দেওয়া হয়েছে দিন পনেরো আগে। তবে ওই অভিযোগ অস্বীকার করে বিষয়টি তারা মহিলা পরিষদকে লিখিত আকারে জানিয়েছে।

স্বামী-সন্তানসহ শিশু পরিবারের ভেতরেই থাকেন শিক্ষক ফেরদৌসী বেগম। তাঁর বাসার কাজকর্ম, রান্নাবান্না শিশু পরিবারের মেয়েদেরই করতে হয়। এ ক্ষেত্রে ফেরদৌসী বেগম বলেন, নিয়ম আছে বলেই স্বামী-সন্তান নিয়ে শিশু পরিবারের ভেতরে থাকেন। তবে তাঁর ব্যক্তিগত কাজ এতিম শিশুদের দিয়ে করানোর কথা অস্বীকার করেন তিনি। শিক্ষিকা হৃদয় খানম ও গোলাম কবিরও সব অভিযোগ অস্বীকার করেন। পিরোজপুর শিশু পরিবারের উপতত্ত্বাবধায়ক মতিউর রহমান বলেন, একটি শিশুর জন্য মাসে দুই হাজার ৬০০ টাকা বরাদ্দ রয়েছে। এ ক্ষেত্রে দুই হাজার টাকা খাবারের জন্য, আর বাকি ৬০০ টাকা তার আনুষঙ্গিক খরচ বাবদ। বাবুর্চির পদটি খালি থাকার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, বাবুর্চি না থাকায় রান্নার কাজ শিশুদের নিজেদেরই করতে হয়। তিনি বলেন, 'বিধি মোতাবেক ছাত্রীদের বের করে দেওয়া হয়েছে। যা করেছি তা পরিবারের অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা রক্ষার জন্যই করেছি। আর ঠিকাদারকে সব সময়ই মানসম্মত খাবার সরবরাহের অনুরোধ করে থাকি।' খাবার সরবরাহকারী ঠিকাদার ওলামা লীগের সেক্রেটারি মাওলানা নাসির উদ্দিন বলেন, 'শিডিউল অনুযায়ী আমি নিয়মিত খাবার সরবরাহ করি। সেখান থেকে চুরি হয়ে গেলে আমার তো কিছু করার নাই।'

সরেজমিন ঘুরে এসে নারী উন্নয়ন সংস্থা সূচনা ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সালমা রহমান হ্যাপী বলেন, 'বাচ্চা মেয়েদের রান্না করার যে দৃশ্য দেখলাম, তা রীতিমতো ভীতিকর। যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।' মহিলা পরিষদের সভাপতি মনিকা মণ্ডল বলেন, 'শিশুদের মাথাপ্রতি সরকারি বরাদ্দ ২৬০০ টাকা। কিন্তু যা দেখলাম, তাতে মনে হয় না ১৫০০ টাকাও খরচ করছে কর্তৃপক্ষ। এর একটা প্রতিকার হওয়া দরকার। নইলে ক্ষুব্ধ শিশুরা আরো বিদ্রোহী হয়ে উঠতে পারে। একদিকে পেটে খাবার নেই, অন্যদিকে কর্তৃপক্ষের দুর্ব্যবহারে এদের জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে।' জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. বেলায়েত হোসেন অন্যান্য অভিযোগ অস্বীকার করার পাশাপাশি খাবারের মান ঠিক আছে দাবি করে বলেন, তবে শিশুদের থাকার কিছুটা সমস্যা আছে। এ সমস্যা সমাধানের জন্য একটি টিনশেডের কাজ চলছে। 

এ জাতীয় আরও খবর

‘দাদাগিরি’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে নাচলেন সৌরভ-ডোনা

ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের শাস্তিযোগ্য বদলি প্রয়োজন: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

আমি কোন সার্জারি করিনি, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা: সাফা কবির

বড় পরিবর্তন আসছে এনটিআরসিএতে, থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

বজ্রপাতে মাঠেই পুড়লো কৃষকের ধান

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি’

নওগাঁয় ঝরে পড়া আম বিক্রি হচ্ছে ২ টাকায়

সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে

‘পানি সংকটে’ রাজশাহীতে কমেছে গমচাষ

ভোটগ্রহণের দিনে নির্বাচন স্থগিতের নির্দেশ আদালতের

তালাক দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আপত্তিকর’ ছবি ফাঁস করলেন স্বামী