সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

টেস্ট থেকে অবসর নিলেন হ্যাডিনও

news-image

ঘোষণাটা বাকি ছিল। এবার সেটিও দিয়ে দিলেন ব্র্যাড হ্যাডিন। মাইকেল ক্লার্ক, শেন ওয়াটসন, ক্রিস রজার্সের পর টেস্ট থেকে অবসর নিলেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান হ্যাডিনও। অ্যাশেজের পর অস্ট্রেলিয়া দলে চলছে পালা বদল। অবসরে গেলেন চার ক্রিকেটার।
৩৭ বছরের হ্যাডিন ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে অবসর নেন এই বছর বিশ্বকাপ জয়ের পরই। ৬৬ টেস্ট খেলেছেন তিনি। ৩২.৯৮ গড়ে ৩২৬৬ রান করেছেন। ২৬২ ক্যাচ নিয়েছেন। আটটি স্টাম্পিং করেছেন।
অবসরের ঘোষণা দিতে গিয়ে হ্যাডিন বলেছেন, "টেস্ট ক্রিকেট ও নিউ সাউথ ওয়েলসের সাথে ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিচ্ছি আমি। ১৭ বছর ধরে খেলাটা উপভোগ করেছি। আমার সিদ্ধান্তটা সহজ হয়েছে।"
উইকেটের পেছনে খুবই নির্ভরযোগ্য হাত ছিল হ্যাডিনের। লোয়ার অর্ডারে টেলের ব্যাটসম্যানদের নিয়ে জুড়ি গড়তেও সিদ্ধহস্ত ছিলেন। অস্ট্রেলিয়ার লেট অর্ডারে তার অভাবটা বোঝা যাবে। জুলাইয়ে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে কার্ডিফে অ্যাশেজের প্রথম টেস্ট খেলেছিলেন হ্যাডিন। এরপর দ্বিতীয় টেস্ট মিস করেন অসুস্থ মেয়ের জন্য। দলে জায়গা ফিরে পান নি। পিটার নেভিল ভালো করেছেন। উইকেটের পেছনে তাকেই রাখতে চেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। অ্যাশেজটা ইংল্যান্ড জিতেছে ৩-২ এ।
অ্যাডাম গিলক্রিস্টের উত্তরসূরী ছিলেন হ্যাডিন। গিলক্রিস্টের দারুণ ফর্মের কারণে জাতীয় দলে নিয়মিত হতে সময় লাগে হ্যাডিনের। ৩০ বছর বয়স পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। ২০০৮ সালে কিংস্টনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট খেলেন তিনি। ব্যক্তিগত কারণে ২০১২ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর থেকে সরে যান তিনি। তখন দলে জায়গা হারান। কিন্তু ২০১৩ সালে আবার জায়গা ফিরে পান।
ওই বছরের শেষেই অ্যাশেজ সিরিজের জন্য অস্ট্রেলিয়া দলের সহ অধিনায়ক নির্বাচিত হন তিনি। অ্যাশেজে আট ইনিংসের ছয়টিতে পঞ্চাশ পেরোন তিনি। করেন একটি সেঞ্চুরি। ২২টি ক্যাচও নেন। অস্ট্রেলিয়া সেবার অ্যাশেজ জিতেছিল ৫-০ তে।