মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইলে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

news-image

স্টাফ রিপোর্টার সরাইল : সরাইলে পৃথক দুটি সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত: অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছে। উপজেলার চুন্টা ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামে গত রোববার রাতে ও কালিকচ্ছের বিশুতারা গ্রামে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশকে লাঠিপেটার পাশাপাশি শর্টগানের গুলি ছুঁড়তে হয়েছে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পূর্ব শত্রুতার জের ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গত রোববার বিকেলে রসুলপুর গ্রামের বর্তমান ইউপি সদস্য মো: ফিরোজ মিয়ার গোষ্ঠীর জাবেদ (২৫) এবং ফুল মিয়ার (৩০) সাথে সাবেক ইউপি সদস্য লতিফ মিয়ার গোষ্ঠীর আরিফ উল্লাহ (৩০) ও রফিক উল্লাহর (২৯) প্রথমে বাক-বিতন্ডা পরে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে গতকাল রাত সাড়ে সাতটার দিকে উভয় গোষ্ঠীর কয়েক শত নারী পুরুষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। রাতের সংঘর্ষ এক পর্যায়ে ভয়াবহ রুপ ধারন করে। সংঘর্ষ চলাকালে বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রথমে লাঠিপেটা ও পড়ে ১১ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। দেড় ঘন্টা স্থায়ী এ সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত: ৪০ জন আহত হয়েছে। ১১ জনক জেলা সদর হাসপাতালে বাকিদের সরাইল ও আশপাশের এলাকার প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ওদিকে সম্পত্তি নিয়ে পারিবারিক কলহকে কেন্দ্র করে দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে খন্ড যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছে বিশুতারা গ্রামের লোকজন। গত রোববার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত থেমে থেমে চলে এ সংঘর্ষ। গ্রামবাসী জানায়, উম্মর আলীর প্রথম সংসারের দুই ছেলে উসমান (৬০) ও সায়েদ (৫০)। দ্বিতীয় সংসারের তিন ছেলে আজাদ (৪৫), মোশাররফ (৪০) ও বশির (৩৫)। পিতার সম্পত্তি নিয়ে তারা দুই পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এর জের ধরেই তারা দু’পক্ষ গত রোববার সকাল ১১টায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে গ্রামের কয়েক গোষ্ঠীর লোক উভয় পক্ষে অংশ গ্রহন করে। ফলে সংঘর্ষটি ছড়িয়ে পড়ে গ্রামে। এক সময় খন্ড যুদ্ধে রুপ নেয়। পুলিশ লাঠিপেটা করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে চলে আসার পর তারা ফের দাঙ্গায় লিপ্ত হয়। এ ভাবে চলে বিকেল পর্যন্ত। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ৩০ জন আহত হয়েছে।