রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ছিটবাসীরা বিক্রি করতে পারবেন জমি, নিতে পারবেন অর্থকড়ি

news-image

তার আগে নিজেদের ইচ্ছা অনুযায়ী নাগরিকত্ব বেছে নিতে ছিটমহলবাসীদের বাংলাদেশ-ভারত উভয় দেশের প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত যৌথ দলের কাছে আবেদন করতে হবে। আগামী জুলাই মাসের প্রথম ও দ্বিতীয় সপ্তাহে এই যৌথ দল ছিটমহলবাসীদের মতামত নেবে বলে রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ইচ্ছা অনুযায়ী নাগরিকত্ব বেছে নিতে আগামী ১ অগাস্ট থেকে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে ছিটমহলবাসীদের সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে পছন্দের দেশের মূল ভূখণ্ডে চলে যেতে হবে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফরে সীমান্ত চুক্তি অনুসমর্থনের দলিল হস্তান্তরের পরপরই ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল, আগামী ৩১ জুলাই মধ্যরাত থেকে শুরু হবে দুই দেশের ছিটমহল বিনিময়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতীয় ছিটমহলে এবং ভারতের অভ্যন্তরে বাংলাদেশের ছিটমহলে ২০১১ সালে পরিচালিত শুমারির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ব্যক্তি এবং এরপরে জন্মগ্রহণকারী তাদের সন্তানদের বাংলাদেশের/ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে।

যারা ভারতীয় নাগরিকত্ব বহাল রেখে সে দেশের মূল ভূখণ্ডে চলে যেতে চান তাদের যৌথ টিমের কাছে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। একইভাবে যারা বাংলাদেশের নাগরিকত্ব বহাল রেখে দেশটির মূল ভূখণ্ডে যেতে চান তাদেরও আবেদন করতে হবে। বর্তমানে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতের ১১১টি ছিটমহল রয়েছে, এতে রয়েছে ৩৭ হাজার মানুষের বাস। অন্যদিকে ভারতের অভ্যন্তরে বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহলের বাসিন্দা ১৪ হাজার। স্থল সীমান্ত চুক্তি ও প্রটোকল অনুযায়ী, ভারতের ১১১টি ছিটমহল বাংলাদেশের ভূখণ্ডের অংশ হয়ে যাবে, বাংলাদেশের ৫১টি চলে যাবে ভারতের সঙ্গে।

চুক্তিতেই ছিটমহলবাসীকে তাদের ইচ্ছা অনুযায়ী নাগরিকত্ব বেছে নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ ভারতের ছিটমহলের বাসিন্দা বাংলাদেশের নাগরিকত্ব নিলে তারা বর্তমান বাসস্থানেই থেকে যেতে পারবেন। যদি ভারতের নাগরিকত্ব নিতে চান, তবে তাকে ওপারে চলে যেতে হবে। ইচ্ছা অনুযায়ী নাগরিকত্ব বেছে নিতে আগামী ১ অগাস্ট থেকে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে পছন্দের দেশের (বাংলাদেশ বা ভারত) মূল ভূখণ্ডে যেতে হবে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, পছন্দ অনুযায়ী কারও মূল ভূখণ্ড পরিবর্তন হলে উভয় দেশে যাতায়াতের জন্য তাদের প্রয়োজনীয় ট্রাভেল পাস ইস্যু করবে সরকার। চিলাহাটি-হলদিবাড়ী, বুড়িমারী-চেংরাবান্ধা, বাংলাবান্ধা-ফুলবাড়ি চেক পয়েন্ট দিয়ে পছন্দানুযায়ী মূল ভূখণ্ডে যেতে পারবেন ছিটমহলবাসীরা। লালমনিরহাট জেলার ৭ নম্বর উপেনচকি ছিটমহল, এটি এখন বাংলাদেশের হবে-  ছবি: আসাদুজ্জামান প্রামানিক লালমনিরহাট জেলার ৭ নম্বর উপেনচকি ছিটমহল, এটি এখন বাংলাদেশের হবে- ছবি: আসাদুজ্জামান প্রামানিক

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, পছন্দের দেশে যাওয়ার সময় টাকা-পয়সাসহ অস্থাবর সম্পত্তি সঙ্গে নেওয়া যাবে। আর ৩০ নভেম্বরের মধ্যে স্থাবর সম্পত্তি বিক্রি করে পছন্দের দেশের মূল ভূখণ্ডে যেতে হবে। কোনো ব্যক্তি যদি ৩০ নভেম্বরের আগে স্থাবর সম্পত্তি রেখে ভারতে বা বাংলাদেশে যেতে চাইলে সম্পত্তির দলিলের কপি (যদি থাকে) স্থানীয় জেলা প্রশাসনের হেফাজতে রাখতে পারবেন; পরে সম্পত্তি বিক্রির সময় জেলা প্রশাসনের সহায়তা পাবেন তারা। ভারতের ভেতরে থাকা বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহলের আয়তন মোট ৭ হাজার ১১০ একর; অন্যদিকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতের ১১১টি ছিটমহলের আয়তন ১৭ হাজার ১৬০ একর। বাংলাদেশের মধ্যে থাকা ছিটহলগুলোর মধ্যে লালমনিরহাট জেলায় ৫৯টি, পঞ্চগড় জেলায় ৩৬টি, কুড়িগ্রাম জেলায় ১২টি, নীলফামারী জেলায় ৪টি ছিটমহল রয়েছে, যেগুলো এখন বাংলাদেশের মূল ভূখণ্ডের অংশ হবে।

বিনিময় হচ্ছে চুক্তি অনুসমর্থনের দলিল বিনিময় হচ্ছে চুক্তি অনুসমর্থনের দলিল উত্তরাধিকার সূত্রে ভারতের স্থল সীমান্ত নিয়ে এই সমস্যাটি পেয়েছিল বাংলাদেশ। অবিভক্ত ভারতের অংশ থেকে পাকিস্তান হয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর এই সমস্যার অবসানে ১৯৭৪ সালে মুজিব-ইন্দিরা চুক্তি হয়। এর আওতায় ছিটমহল বিনিময়ে বাংলাদেশের দিক থেকে সব প্রক্রিয়া সারা হয়েছিল, কিন্তু ভারতের সংবিধান সংশোধন ঝুলে থাকায় আটকে ছিল চুক্তি কার্যকর। এর মধ্যে ২০১১ সালে ভারতে তৎকালীন কংগ্রেস সরকারের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের ঢাকা সফরের সময় স্থল সীমান্ত সমস্যার সমাধানে দুই দেশের মধ্যে একটি প্রটোকল সই হয়। এরপর কংগ্রেস সরকার সংবিধান সংশোধনের উদ্যোগ নিলেও তার মধ্যেই নির্বাচনে ক্ষমতার পালাবদল হয়ে যায়। ক্ষমতায় আসে বিজেপি, প্রধানমন্ত্রী হন নরেন্দ্র মোদী। তবে কংগ্রেস সরকারের সেই উদ্যোগকে সফল করতে আরও সচেষ্ট হন নরেন্দ্র মোদী। ছিটমহল বিনিময়ে আপত্তি জানানো আঞ্চলিক দলগুলোকে মানান তিনি। বাংলাদেশের সঙ্গে ভূমি বিনিময়ে গত মে মাসে ভারতের পার্লামেন্টে সংবিধান সংশোধনের বিল পাস হওয়ার পর চলতি মাসের শুরুতে ঢাকা সফরে আসেন মোদী। তখনই দুই দেশের চুক্তি অনুসমর্থনের দলিল বিনিময় হয়।

এ জাতীয় আরও খবর

‘দাদাগিরি’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে নাচলেন সৌরভ-ডোনা

ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের শাস্তিযোগ্য বদলি প্রয়োজন: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

আমি কোন সার্জারি করিনি, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা: সাফা কবির

বড় পরিবর্তন আসছে এনটিআরসিএতে, থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

বজ্রপাতে মাঠেই পুড়লো কৃষকের ধান

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি’

নওগাঁয় ঝরে পড়া আম বিক্রি হচ্ছে ২ টাকায়

সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে

‘পানি সংকটে’ রাজশাহীতে কমেছে গমচাষ

ভোটগ্রহণের দিনে নির্বাচন স্থগিতের নির্দেশ আদালতের

তালাক দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আপত্তিকর’ ছবি ফাঁস করলেন স্বামী