বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ বিশ্ব বাবা দিবস

news-image

বিনোদন প্রতিবেদকযে কারও জীবনে মায়ের পাশাপাশি বাবার গুরুত্বও অপরিসীম। আজ বিশ্ব বাবা দিবস। এ উপলক্ষে বাবাকে  নিয়ে ক’জন শোবিজ তারকার নিজ বয়ানে সাজানো হয়েছে এ প্রতিবেদন

মৌসুমী

আমার বাবা মো. নাজমুজ্জামান মনি শুধু আমাকে জন্ম দিয়েই তার দায়িত্ব শেষ করেননি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত আমাকে ছায়া দিয়ে আগলে রেখেছিলেন। আমার কাজ ছিল শুধু ক্যামেরার সামনে অভিনয় করা। আর বাকি সবকিছুই বাবা দেখতেন। আজ বাবা আমাদের কাছ থেকে অনেক দূরে। প্রতি মুহূর্তেই বাবাকে মিস করি। কিন্তু বাবা যে শিক্ষা আমাকে দিয়েছেন তা আজও আমাকে পথ দেখায়। বাবার দেখানো পথেই আমি এখনও হাঁটছি। মনে হয় বাবা আমাকে হাত ধরে রয়েছেন। আমি নিশ্চিন্তে হাঁটছি। বাবাকে নিয়ে আমার স্মৃতির কোন শেষ নেই। আমরা তিন বোন। আমি, স্নিগ্ধা আর ইরিন। বাবা তিন বোনকেই সমান দৃষ্টিতে দেখতেন। আমরাও তিন বোনের কেউই বাবার আদর থেকে বঞ্চিত হইনি। তবে সিনেমায় আসার কারণে আমার প্রতি বাবার দায়িত্বটা ছিল অনেক বেশি। মূলত বাবার পরিকল্পিত নির্দেশনার কারণেই আমি আজ মৌসুমী হতে পেরেছি। নির্মাতাদের চেষ্টা আর দর্শকদের ভালবাসায় আমি আজকের মৌসুমী। সবার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। কিন্তু বাবা আমার জন্য যা যা করেছেন সেটা আমি কখনোই ভুলতে পারবো না। বাবার ঋণ এক জীবনে তো নয়ই, কয়েক জীবনেও শোধ করতে পারবো না। বাবার ঋণ শোধ করা যায় না। আজ বাবা নেই, এটা বাস্তব সত্য, মেনে নিতে হয়। কিন্তু বাবার কথাবার্তা, বুদ্ধি বিবেচনা, উপদেশ, পরামর্শ আমাকে পথ চলতে সহায়তা করে। আমি নায়িকা হওয়ার পরও বাবার মধ্যে কোন পরিবর্তন দেখিনি। কখনও উত্তেজিত হতে দেখিনি, জোর গলায় কথা বলতে দেখিনি। প্রথম ছবি ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’-এর অভাবনীয় সাফল্যের জোয়ারে আমি যখন ভাসছি, তখনও বাবা নিরুত্তাপ, ঠাণ্ডা। যখন আমার বিরুদ্ধে কোন কিছু লেখা হতো, আমি রাগ করলেও বাবা বলতেন, কেউ যদি তোমার বিরুদ্ধে না লেখেন, তোমার ভুলগুলো যদি ধরিয়ে না দেন তাহলে তুমি নিজেকে শুধরাবে কেমন করে। বাবার কথা শুনে আমি শান্ত হতাম। আজও কোন সাংবাদিক যখন আমার ভুলত্রুটি ধরিয়ে দেন তখন বাবার কথা বেশি মনে পড়ে। বাবার এ শিক্ষাটা আমার কর্মক্ষেত্রে খুব কাজে লাগছে। কারণ, আমার ক্যারিয়ার গঠনের পেছনে সাংবাদিকদের অনেক অবদান রয়েছে। তারা সব সময় আমার পক্ষে লিখতেন। ভুল করলে সেটা গোপন করবেন, আমার বাবা কখনোই এটা চাইতেন না। তিনি একটা কথাই বলতেন, নিজেকে এমনভাবে গড়ে তোলো যেন কেউ তোমার ভুল খুঁজে না পায়। আজ বাবা দিবসে এসব কথা বেশি করে মনে পড়ছে। তবে আশ্চর্যের কথা, আমি আমার ছেলে ফারদিনের মাঝে আমার বাবার ছায়া খুঁজে পাচ্ছি। ফারদিন মাঝে মধ্যে এমন কিছু কথা বলে, তখন মনে হয় বাবা আমার সঙ্গেই আছেন। ফারদিনের মাঝেই আমি আমার বাবাকে খুঁজে পাই।

সম্রাট

দেশীয় চলচ্চিত্রের জীবন্ত কিংবদন্তি নায়করাজ রাজ্জাক আমার বাবা। এর চেয়ে বড় প্রাপ্তি আমার মতো সন্তানের আর কিছুই নেই। পর্দার অনেক বড় নায়ক তিনি, দুর্দান্ত অভিনেতা। দীর্ঘ ৪৮ বছর দর্শকদের মোহিত করে রেখেছেন নিজের অভিনয় ক্ষমতা দিয়ে। আজ তিনি নায়করাজ। তবে আমার কাছে পর্দার হিরোর চেয়ে রিয়েল লাইভের হিরো রাজ্জাক হচ্ছেন বেশি প্রিয়। কারণ, আমি তো সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্মেছি। নায়করাজের ছোট ছেলে আমি। কিন্তু আমার বাবা জীবনে যে সংগ্রাম করেছেন, কষ্ট করেছেন, পরিশ্রম করেছেন, নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার পাশাপাশি আমাদের পুরো পরিবারকে যত্নের সঙ্গে ভালবাসার সঙ্গে একই সুতায় বেঁধে রেখেছেন, তা আমাদের কাছে বড় একটা শিক্ষণীয় বিষয়। আমার বাবার মতো কেয়ারিং বাবা আমি খুব একটা দেখিনি। শত ব্যস্ততার মাঝেও বাবা আমাদের প্রচুর সময় দিয়েছেন। কাজের অজুহাতে, ব্যস্ততা দেখিয়ে পরিবারকে বঞ্চিত করেননি। তাছাড়া বাবা অনেক বড় মনের একজন মানুষ। অন্যদের সহযোগিতা করতে খুবই পছন্দ করেন। আমরা তিন ভাইও বাবার এসব গুণ রপ্ত করার চেষ্টা করছি। এখন আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে বাবাকে দেখে রাখা। তাকে আনন্দে রাখা, সুস্থ রাখা। তিনি যাতে কোন কারণে কষ্ট না পান সেটার প্রতি খেয়াল রাখা। আর সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে তার সম্মানটা বজায় রাখা। নায়করাজ রাজ্জাক শুধুই আমার বাবা নন, তিনি আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পের অমূল্য একটা সম্পদ। এই সম্পদের মূল্যায়ন করা, সঠিক যত্ন নেয়া আমাদের দায়িত্ব। আমরা এ দায়িত্বটাই ভালভাবে পালন করার মধ্য দিয়ে বাবা দিবসটাকে উদযাপন করতে চাই। 

রিচি 

বাবা দিবস এলে ভীষণ মন খারাপ হয়ে যায় আমার। কারণ, আমার বাবা না ফেরার দেশে চলে গেছেন বেশ কয়েক বছর আগে। প্রতিটি মুহূর্তে বাবার শূন্যতা আমি অনুভব করি। আজ বাবা বেঁচে থাকলে আমি হয়তো আরও অনেক ভাল থাকতাম। 

সজল 

আমার বাবা আবদুল লতিফ। তার আদর্শেই আমি নিজেকে গড়ে তুলেছি। আমার বাবা পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ বাবা একথা বলতে এতটুকুও দ্বিধা নেই। কারণ, তিনি আমাকে মানুষের মতো মানুষ করে তুলতে অনেক কষ্ট করেছেন। বাবার ঋণ জানি কোনদিনও শোধ হওয়ার নয়। তাই বাবাকে কোনভাবেই কোন কারণে কষ্ট না দেয়ার চেষ্টা করি আমি। সবাই আমার বাবার জন্য দোয়া করবেন।

হাসিন 

আমার গ্রামের বাড়ি রাজশাহী। আমার বাবা মো. গোলাম নবী। তিনি আমাকে আদর করে ছোটবেলা থেকেই লীনা বলে ডাকেন। বাবার মতো আদর্শ নিয়ে আমি হয়তো বেড়ে উঠতে পারিনি। তবে চেষ্টা করি আজও তার আদর্শে নিজেকে সামনের পথে এগিয়ে নিতে। 

মেহজাবিন 

বাবার চাকরির সুবাদেই আমার জীবনের অনেকটা বছর দেশের বাইরে কেটেছে। কিন্তু যখন থেকে আমি অভিনয়ে পেশাগতভাবে কাজ শুরু করেছি তখন থেকেই বাবার কাছ থেকে দূরে থাকা শুরু আমার। বাবার কাছ থেকে এই দূরে থাকাটা আমার কখনোই ভাল লাগে না। এই তো কিছুদিন আগেও বাবা বেশ কয়েক দিন আমাদের কাছে থেকে আবার দেশের বাইরে চলে গেছেন। বাবা কাছে না থাকায় আমার অনেক কিছুই মনের মতো করা হয়ে ওঠে না।

মৌটুসী 

বাবা চট্টগ্রামে থাকেন। এখন তার শারীরিক অবস্থা খুব একটা ভাল না। বুঝ হওয়ার পর থেকে দেখেছি বাবা কতটা কষ্ট করে আমাদের বড় করেছেন। নিজের পেশাগত কাজে আমাকে ঢাকায় থাকতে হচ্ছে। নিয়মিত বাবার খোঁজ নিচ্ছি। আসলে বাবার ভালবাসা যে কি সেটা বলে বোঝাতে পারব না। আমার বাবার জন্য সবাই দোয়া করবেন।