বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ ১০ হাজার ৫০ একর বেশি পাবে: প্রধানমন্ত্রী

news-image

ভারতের লোকসভায় স্থল সীমান্ত চুক্তি বিল পাস হওয়ায় বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় লাভ হলো ছিলমহলবাসীর মানবিক সমস্যার সমাধান বলে সংসদকে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর এই বিনিময়ের ফলে বাংলাদেশের ১০ হাজার ৫০ একর জমি বেশী পাবে বলে উল্লেখ করেন তিনি। চুক্তিটি বিনিময়ের মাধ্যমে ছিটমহলবাসীর ভাগ্যের আমূল পরিবর্তন হবে এমন আশাবাদও ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।

বুধবার দশম জাতীয় সংসদের দ্বিতীয় বাজেট অধিবেশনে প্রশ্নত্তোরকালে এ কথা বলেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, চুক্তিটি স্বাক্ষর হওয়ার ফলে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে অবস্থিত ভারতীয় ১১১টি ছিটমহলের আয়তন ১৭ হাজার ১৬০ একর এবং জনসংখ্যা ৩৭ হাজার ৩৬৯ জন। পক্ষান্তরে ভারতের অভ্যন্তরে অবস্থিত বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহলের আয়তন ৭ হাজার ১১০ একর এবং জনসংখ্যা ১৪ হাজার ৯০ জন। স্বাক্ষরিত প্রটোকল অনুযায়ী যে ছিটমহল যে দেশের অভ্যন্তরে অবস্থিত তা সে দেশেরই হবে। ফলে বাংলাদেশ নীট ১০ হাজার ৫০ একর জমি বেশি পাবে। ছিটমহলে বসবাসকারী জনগণ সংশ্লিষ্ট ছিটমহল স্বাভাবিকভাবে যে দেশের অন্তর্ভুক্ত হবে তিনি সে দেশের নাগরিক হবেন, তবে ইচ্ছা করলে তাদের পূর্ববর্তী দেশের নাগরিক হওয়ার সুযোগও থাকবে।

তিনি বলেন, এখন তারা নিজ দেশের ভোটার হওয়া থেকে শুরু করে জমা-জমি ক্রয়-বিক্রয়, শিক্ষা, স্বাস্থ্য-সুবিধা, আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তাসহ বাংলাদেশের সংবিধানে বর্ণিত সকল ধরনের মৌলিক অধিকার ভোগ করতে পারবে।

অপরদিকে খুলনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য এস এম মোস্তফা রশিদীর এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে শেখ হাসিনা বলেন, মুজিব-ইন্দিরা চুক্তি যখন হয়, তখন অনেকেই বলেছিল এটা গোলামী চুক্তি। দেশ বেচার চুক্তি, দাসত্বের চুক্তি, অনেকেই অনেক কথা বলে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছিল। আবার এখন দেখি এখন তারা এই চুক্তিকে সাধুবাদ জানাচ্ছে। এটাই মনে হয় আমাদের দেশের রাজনৈতিক চরিত্র। তারা বাংলাদেশে থাকলেও অন্তরে পরাজিত পাকিস্তানের ধ্যান ধারণা। তারাই এ চুক্তির বিরোধিতা করেছিল।

তিনি বলেন, আমরা যখন গঙ্গার পানি বন্টনের ৩০ বছর মেয়াদী চুক্তি করি। তখনও বিএনপি-জামাত নানা কথা বলেছে। পানি আসবে না, পানি নেই। এই পানিতে অজু হবে না। আবার পার্বত্য শান্তি চুক্তি করতে গেলাম তখনও বিএনপি নেত্রী বলেছিলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে ফেনী পর্যন্ত ভারত হয়ে যাবে। উনি ফেনির সংসদ সদস্য। আমি তখন বলেছিলাম, উনি কি বাংলাদেশের সদস্য হবেন, নাকি ভারতের লোকসভার সদস্য হবেন। তখন উনি (খালেদা জিয়া) আমার উপর ক্ষেপে যান। আসলে উপর দিয়ে ঝগড়াঝাটি আর ভেতর দিয়ে তোষামোদি করে কোন অর্জন হয় না। বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক এবং স্বাধীন অবস্থান থেকে আলাপ আলোচনার মাধ্যমেই সমস্যার সমাধান হয়। আমার আলাপ আলোচনার মাধ্যমেই একদিকে বাংলাদেশ-ভারত-ভূটান-নেপাল, আরেক দিকে ভারত-বাংলাদেশ-মিয়ানমার-চীনের মধ্যে যে যোগযোগ ব্যবস্থা সম্প্রসারিত হলো। তাতে বাংলাদেশসহ এই অঞ্চলের মানুষ উপকৃত হবে।

সাবেক পররাষ্টমন্ত্রী দীপু মনির এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বর্তমানে ভারত থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ক্রয় করেছি। আরা ৬০০ মেগাওয়াট ভারত থেকে এবং ১০০ মেগাওয়াট ত্রিপুরা থেকে ক্রয় করতে যাচ্ছি। নেপাল ও ভূটানে জলবিদ্যুৎ উৎপন্ন হয়। আমরা কম খরচে সেখান থেকে বিদ্যুৎ আনতে পারি বা সেখানে বিদ্যুৎ উদপাদনে বিনিয়োগও করতে পারি। এখানে ভারত-ভূটান-বাংলাদেশ বা নেপাল-ভূটান-বাংলাদেশ এই দুটি ত্রিদেশীয় সমঝোতা রয়েছে। এখানে কম খরচে জলবিদ্যুৎ উৎপন্ন হয়। আমরা তা দ্রুত আনতে পারবো।

রুস্তম আলী ফরাজীর অপর এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমরা আগে ভারতের কাছ থেকে এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার পেয়েছিলাম। সেটি আমরা নিজেদের ইচ্ছেমতো অবকাঠামোগত উন্নয়নে ব্যয় করছি। বিশেষ করে রেল, সড়ক, বিদ্যুৎ-এর মত প্রজেক্টে ব্যয় করছি। এবার নরেন্দ্র মোদীর সফরে ভারতের সাথে দু’ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ঋণ চুক্তি হয়েছে। এই অর্থও আমরা আমাদের প্রয়োজন মত প্রকল্পে ব্যয় করতে পারবো। সুতরাং তারা যা বলবে বা কোন শর্ত ছাড়াই এ অর্থ ব্যয় করতে পারবো আমরা।

এম এ হান্নানের এক লিখিত প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালে আমরা ২০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উদপাদন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। তিনি বলেন, বর্তমানে সরকারি খাতে ৪ হাজার ৫১৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার ১৬টি এবং বেসরকারী খাতে ২ হাজার ২৪৯ মেগাওয়ার্ট ক্ষমতার ১২টি বিদ্যুৎ কেন্ত্র সহ মোট ৬ হাজার ৭৬৪ মেগাওয়াট ক্ষমতার ২৮টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণাধীন রয়েছে।

‘সরকারি খাতে ১হাজার ৬১৬ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৫টি এবং বেসরকারি খাতে ৩ হাজার ১৮৩ মেগাওয়াট ক্ষমতার ১২টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র সহ মোট ৪ হাজার ৭৯৯ মেগাওয়াট ক্ষমতার ১৭টি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দরপত্র পক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া সরকারী খাতে ৭ হাজার ৮৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৮টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া পারমানবিক ও বায়োগ্যাস প্লান্ট থেকে আমরা বিদ্যুৎ উদপাদনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি’ উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে ৭১ শতাংশ বিদ্যুৎ উৎপন্ন হয় গ্যাস থেকে আর ২০ শতাংশ উৎপন্ন হয় তরল জ্বালানি থেকে। এর ফলে বিদ্যুৎ উদপাদনের ব্যয় বেড়ে গেছে। বিদ্যুৎ উদপাদনের বিকল্প জ্বালানি কয়লা। আমরা আমদানিভিত্তিক কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছি। আমরা ১১ হাজার ১৭০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কয়লা থেকে উৎপাদনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। এছাড়া এলএনজি আমদানীর মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। সমন্বিত পদক্ষেপের মাধ্যমে ২০২১ সালের মধ্যে আমরা দেশের সকল মানুষের ঘরে বিদ্যুতের আলো পৌছে দিতে সক্ষম হবো।

 

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা