মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সবজি বিরিয়ানি পটোলের দোলমায় আপ্যায়িত হবেন মোদি

news-image

ডেস্ক রির্পোট ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফর প্রস্তুতি নিয়ে ব্যস্ত ঢাকা। চলছে শেষ সময়ের সাজসজ্জা। আর মাত্র একদিন। কাল সকালেই প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে আসছেন তিনি। তাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাতে চলছে বর্ণাঢ্য আয়োজন। তার সম্মানে আজ থেকে আগামী তিনদিন রাস্তার দু’ধারে বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় পতাকা পত্‌পত করে উড়বে। অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে বরেণ্য ওই অতিথির আদর-আপ্যায়ন নিয়ে সতর্ক ঢাকা। পুরোদস্তুর নিরামিশভোজী মোদি। কিন্তু তাতে কি? তার পছন্দ-অপছন্দের বিষয়টি বিবেচনায় রেখেই আপ্যায়ন মেন্যু সাজানো হচ্ছে। সফরকালে তারকা হোটেল সোনারগাঁওয়ে থাকছেন তিনি। হোটেল স্টাফের সঙ্গে মোদির পাচক মিলে তার খাবার তৈরি করবেন। তবে এই হোটেলেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সম্মানে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও নৈশভোজ আয়োজন করবেন। তার ৩৬ ঘণ্টার সফরে ব্যস্ত সূচিতে এটাই একমাত্র বিনোদন আয়োজন। সফরের প্রথম দিন সন্ধ্যার ওই আয়োজনের নাচ-গান ও বাদ্যযন্ত্রের তালে বাংলার সমৃদ্ধ সংস্কৃতি তুলে ধরবেন দেশের খ্যাতিমান শিল্পীরা। সেখানেই নৈশভোজ সারবেন শাকাহারি মোদি। তার পছন্দের প্রায় অর্ধ শত পদের খাবার সেখানে পরিবেশিত হবে। শুরুতেই থাকছে ভেজিটেবল স্যুপ। মেইন ডিশে হায়দরাবাদের সবজি বিরিয়ানি, পটোলের দোলমা, বিভিন্ন রকমের রুটি এবং ডাল মাখানিসহ অন্তত ১০ পদের খাবার থাকছে। স্বাস্থ্য সচেতন মোদি রাতে অত্যন্ত অল্প আহার করেন। সে বিষয়টিও বিবেচনায় রাখা হয়েছে সরকার প্রধানের ভোজ আয়োজনে। যদিও ভেজিটেরিয়ান শত পদ আয়োজনের প্রাথমিক প্রস্তুতি ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু পরে তা কমিয়ে আনা হয়েছে। অবশ্য অতিথির প্রতি সম্মান কিংবা আপ্যায়নের ক্ষেত্রে কোন কমতি থাকছে না। ভোজে মেইন ডিশের পাশাপাশি ডেজার্ড হিসাবে দই, ক্ষীর, মিষ্টি, পায়েশ থাকছে। সঙ্গে মৌসুমি ফলের হরেক রকম আয়োজন। সেখানে আয়োজনের মধ্যমণিকে যে ধরনের আপ্যায়ন করা হবে একই মেন্যু থাকছে তার সফরসঙ্গী এবং ভোজে অংশ নেয়া অতিথিদের জন্যও। সেখানে আমিষ ও নিরামিশভোজী সবার পাতেই এ দিন নিরামিশ তুলে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সফর প্রস্তুতির সঙ্গে যুক্ত সরকারের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা। তারা জানান, খিচুড়ি প্রিয় মোদির জন্য এখানেও খিচুড়ি ভোজের চিন্তা করা হয়েছে। তবে তা রাষ্ট্রীয় ভোজ-এ নয়। হোটেলে তার জন্য যে খাবার পরিবেশন করা হবে সেখানে তিনি ঢাকাইয়া খিচুড়ির স্বাদ নেয়ার সুযোগ পাবেন। তবে তার ব্যক্তিগত ‘পাচক’ সঙ্গে থাকায় খাবারের ক্ষেত্রে ঢাকায় বসে ঘরের স্বাদ পেতে তার কোন অসুবিধা হবে  না বলে আশা করা হচ্ছে। গুজরাটি ওই রাজনীতিক ওই এলাকার ঐতিহ্যবাহী খাবার ‘ধোকলা’ খেতে দারুণ পছন্দ করেন। সরিষা দিয়ে তৈরি ‘খান্দভি’ নামের আরেক ধরনের খাবারের প্রতিও  দুর্বলতা আছে তার। এ ছাড়া তার পছন্দ আমের চাটনি এবং কাঠবাদাম ও পেস্তার মিশ্রণে তৈরি মিষ্টি জাতীয় খাবারও বিশেষ পছন্দ মোদির। ঢাকার আয়োজনের বিভিন্ন পর্বে এগুলো পরিবেশিত হবে বলে জানানো হয়েছে। 

নাচ-গান ঢোলের আয়োজনে ‘চমক’ও থাকছে! বলাবলি আছে মোদির সম্মানে বাংলাদেশের সরকার প্রধানের নৈশভোজ আয়োজনে নাকি চমক থাকছে। এক কর্মকর্তা বলেন, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি ৩০ মিনিট স্থায়ী হবে। সেখানে পুরোদস্তুর বাঙালি সংস্কৃতি উপভোগ করবেন মোদি। অনুষ্ঠানটি তাকে নিবেদন করা হবে। বরীন্দ্র সংগীত দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হবে। যার শেষ হবে ঢোল দিয়ে। মাঝখানে লালন, ফোক, আধুনিক গান পরিবেশন করবেন স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত দেশীয় শিল্পীরা। নৃত্যের তালে তালে বাংলাদেশ এবং নৈসর্গিক সৌন্দর্য্য তুলে ধরা হবে।

এ জাতীয় আরও খবর