রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ডাঙায় বাঘ, জলে কুমির, মাঝে রোহিঙ্গা মুসলমান

news-image

বিশ্বের সবচেয়ে বঞ্চিত-নির্যাতিত মানুষ হিসেবে রোহিঙ্গাদের অভিহিত করা হয়। যৌক্তিক কারণেই এমনটা বলা হয়। কয়েক প্রজন্ম ধরে মিয়ানমারের পশ্চিমের রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গাদের বসবাস। কিন্তু তাঁদের নাগরিক স্বীকৃতি নেই। আবেদন করেও সরকারের থেকে বরাবরই প্রত্যাখ্যাত।
মিয়ানমারে রাষ্ট্র স্বীকৃত ১৩৫টি জাতিগোষ্ঠী রয়েছে। কিন্তু সেখানেও রোহিঙ্গাদের ঠাঁই হয়নি। কয়েক দশক ধরে এসব মুসলমান লোকেরা কোনো ধরনের আইনি বা অন্য যেকোনো ধরনের সুরক্ষা ছাড়া অবর্ণনীয় বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন।
রোহিঙ্গারা কেন্দ্রীয় সরকারের এজেন্ট বৌদ্ধ জাতিগোষ্ঠী রাখাইনদের বিষাক্ত আক্রমণের শিকার। রাখাইন ও বার্মিজ সম্প্রদায়ের অনেকে রোহিঙ্গাদের ‘বাঙালি’ বলে ঘৃণা করে। বিশ্লেষকদের ধারণা, অবজ্ঞার জায়গাটি আরও বিস্তৃত করতেই রোহিঙ্গাদের গায়ে এমন ‘লেবেল’ লাগানো হয়েছে।
রাখাইন জাতীয়তাবাদীরা ২০১২ সালে দুই দফায় রোহিঙ্গাদের নিধন করে। সে নিধনের হাত থেকে রক্ষা পেতে ১১ লাখ রোহিঙ্গার এক লাখ ৪০ হাজার জনকেই পালিয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে যেতে হয়। এরপর তাঁদের আর আশ্রয় কেন্দ্র থেকে বাড়িতে ফিরতে দেওয়া হয়নি।
এ ছাড়াও অন্তত ২৫ হাজার রোহিঙ্গা নৌপথে এ বছরের প্রথম চার মাসে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া আর থাইল্যান্ডে পালানোর চেষ্টা করে। ক্রান্তীয় মৌসুমি ঝড় শুরুর আগেই তাঁরা যাত্রা শুরু করে। অনিশ্চিত সে যাত্রায় অন্তত ৩০০ জন সাগরে ডুবে মরে।

পরিবারের সাত সদস্য নিয়ে মালয়েশিয়ায় পৌঁছার চেষ্টা করছে এক রোহিঙ্গা পরিবার। মোহাম্মদ হায়াত (১৫) সে পরিবারের একজন। সে জানায়, ক্যাম্পে খাবার-পানি নেই। মালয়েশিয়ায় পৌঁছাতে একটি মানব পাচার চক্রের সঙ্গে তাঁদের চুক্তি হয়। ছোট নৌকায় করে প্রথমে তাঁদের নেওয়া হবে। এর জন্য মাথাপিছু গুনতে হবে ৫০০ ডলার, যা বাংলাদেশি টাকায় ৩৯ হাজার টাকা। এরপর বড় একটি নৌযানে মালয়েশিয়ায় পৌঁছে দেওয়া হবে। এর জন্য মাথাপিছু ২০০০ ডলার বা এক লাখ ৫৫ হাজার টাকা করে দিতে হবে।
একজন রোহিঙ্গার কাছে এক লাখ ৯৪ হাজার টাকা অনেক বড় অঙ্ক। কিন্তু হায়াতের পরিবার সবই ঠিক করেছিল। যথাসময়ে যাত্রা শুরু হয়েছিল। প্রায় এক সপ্তাহ সাগরে ভাসার পর নৌবাহিনীর জাহাজ তাঁদের ধরে মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের সিত্তেতে নিয়ে আসে। নিজের বাড়িতে ফিরতে পেরে ‘খুশি’ জানিয়ে হায়াত বলে, ‘মানুষ ভালো করেই জানে সাগরে বিপদ আছে, তাঁরা এটাও জানে স্থলের অবস্থা আরও বেশি খারাপ।’ তারা না পারছে স্থলে থাকতে, না পারছে সাগরে নামতে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, ডাঙায় বাঘ, জলে কুমির—মাঝে রোহিঙ্গা মুসলমান।
সিত্তের মতো অন্যান্য রোহিঙ্গা গ্রামগুলোকে রাখাইন শহর থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। এ কারণে রোহিঙ্গাদের শালীন জীবন-যাপন অসম্ভব হয়ে পড়েছে। লম্বা তারের বেড়া দিয়ে তাঁদের বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।
এক রোহিঙ্গা বলেন, সিত্তেতে তাঁর ভালো ট্যাক্সি ব্যবসা ছিল। এখন তাঁর লাভ কমে এক-তৃতীয়াংশে দাঁড়িয়েছে।
রোহিঙ্গাদের অনেকেই কৃষক বা মৎস্যজীবী। কৃষকেরা তাঁদের জমিতে নামতে পারছে না। অল্প কয়েকটি যে নৌকা রোহিঙ্গাদের রয়েছে, তা নিয়ে সাগরে নামলে রাখাইনেরা তাড়িয়ে বেড়ায়।
স্থানীয় কর্তৃপক্ষের দাবি, জোর করে এমন বিচ্ছিন্ন করে রাখায় বরং রোহিঙ্গাদেরই লাভ হচ্ছে। এতে তাঁরা পরবর্তী আক্রমণ থেকে সুরক্ষিত থাকছে। কিন্তু রোহিঙ্গাদের চোখে, এটি জাতিবিদ্বেষের দীর্ঘস্থায়ী একটি চরমনীতি। জীবন-যাপনের ন্যূনতম সুযোগ বঞ্চিত করার একটি প্রয়াস মাত্র।
গত তিন বছরে সিত্তে থেকে কোনো শিক্ষার্থী মিয়ানমারের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারেনি। মরার মতো অবস্থা না হলে শহরের হাসপাতালে তাঁদের প্রবেশাধিকার নেই।
সামরিক জান্তার পর ২০১১ সালে আধা বেসামরিক শাসনকালে মিয়ানমারের মানুষের অবস্থার উন্নতি হয়েছে। কিন্তু রোহিঙ্গাদের ভাগ্যের বদল তো হয়ই নি, বরং আরও খারাপ হয়েছে। গত বছর মিয়ানমারে আদমশুমারি হয়। গত শুক্রবার আদমশুমারির তথ্য প্রকাশ করে মিয়ানমার সরকার। সরকারের তথ্যে, দেশটির জনসংখ্যা পাঁচ কোটি ১৫ লাখ। কিন্তু সেখানে ১১ লাখ রোহিঙ্গাদের ঠাঁই হয়নি। কারণ, আদমশুমারিতে রোহিঙ্গাদের কেবল ‘বাঙালি’ হিসেবে নাম নিবন্ধনের সুযোগ দেওয়া হয়। এতে রোহিঙ্গারা ওই আদমশুমারি বয়কট করে।
এ বছরের নভেম্বরে গত ২৫ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো নির্বাচন হতে যাচ্ছে। আর সেখানে রোহিঙ্গারা যেন প্রার্থী হতে না পারে, সে ব্যবস্থাও পাকাপোক্ত করা হয়েছে।
মিয়ানমার সরকার দেশের মানুষের মধ্যে মুসলিমবিদ্বেষ হিস্টিরিয়ার মতো তড়িত সংক্রমন আকারে ছড়িয়ে দিচ্ছে। সেনাবাহিনী আর ক্ষমতাসীন দল অত্যন্ত হিসাব করে লক্ষ লক্ষ মুসলমানদের বঞ্চিত করছে। উগ্র জাতীয়তাবাদী বৌদ্ধ ভিক্ষু আর বৌদ্ধ বর্মীরা এ কাজে সরকারকে মদদ যোগাচ্ছে। এর পেছনে রয়েছে ভোটের হিসাব-নিকাশ।
বৌদ্ধ কট্টরপন্থীদের ধারণা, রোহিঙ্গারা ভোটাধিকার পেলে এতে বিরোধী দল অং সান সু চির ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি পার্টি লাভবান হবে। মানবাধিকার আর আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সু চি নিরলসভাবে আন্দোলন করে চলছেন। কিন্তু সেই সু চিও রোহিঙ্গাদের পাশে দাড়াননি। সু চির এমন অবস্থানে অনেকেই হতাশ হয়েছেন।
অভিবাসন প্রত্যাশী রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে নাটকীয়ভাবে নিরব রয়েছেন সু চি। সু চির এমন অবস্থানের কারণে দালাইলামা তাঁকে রোহিঙ্গাদের পক্ষে বলার জন্য আহ্বান জানান। কিন্তু তাতেও সু চির মুখের কুলুপ খোলেনি; কারণ তাঁর মাথায় এখন নভেম্বরের ভোটের হিসাব-নিকাশ। রোহিঙ্গাদের পক্ষে বললে, বেজায় চটবে সংখ্যাগুরু বৌদ্ধরা। তাতে তাঁর লাভের চেয়ে লোকসানটাই বেশি হবে।
সু চির নীরবতা অনেকটাই মিয়ানমার সরকারকে মৌন সমর্থন যুগিয়েছে। মিয়ানমার সরকার সাগরে ভাসা অভিবাসী সমস্যাকে সহজেই এড়িয়েছে। দাপ্তরিকভাবে রোহিঙ্গারা ‘নাগরিক’ নয় বলে তাঁদের দেখভালের দায়িত্ব সরকারের নয় বলেও সাফ জানিয়ে দিয়েছে মিয়ানমার সরকার।
নভেম্বরে নির্বাচন শেষ হলে নতুন সরকার ক্ষমতায় আসবে। কিন্তু তাতে রোহিঙ্গাদের বুক ফাটা কান্না থামবে কি না, সে প্রশ্নে উত্তর কারও জানা নেই।

(এএফপি, দ্য ইকনোমিস্ট, রয়টার্স অবলম্বনে)

এ জাতীয় আরও খবর

‘দাদাগিরি’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে নাচলেন সৌরভ-ডোনা

ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের শাস্তিযোগ্য বদলি প্রয়োজন: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

আমি কোন সার্জারি করিনি, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা: সাফা কবির

বড় পরিবর্তন আসছে এনটিআরসিএতে, থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

বজ্রপাতে মাঠেই পুড়লো কৃষকের ধান

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি’

নওগাঁয় ঝরে পড়া আম বিক্রি হচ্ছে ২ টাকায়

সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে

‘পানি সংকটে’ রাজশাহীতে কমেছে গমচাষ

ভোটগ্রহণের দিনে নির্বাচন স্থগিতের নির্দেশ আদালতের

তালাক দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আপত্তিকর’ ছবি ফাঁস করলেন স্বামী