শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আখাউড়া জায়গা নিয়ে ত্রিমুখী রশি টানাটানি : আন্দোলনে যাবেন ব্যবসায়িরা

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : নির্মাণাধীন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ার পৌর মার্কেটের জায়গা নিয়ে ত্রিমুখী রশি টানাটানি শুরু হয়েছে। চলছে নানামুখী ষড়যন্ত্র। এ অবস্থায় মার্কেট নির্মাণ কাজে ব্যাঘাত ঘটলে আন্দোলনে যাবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন ব্যবসায়িরা। পাশাপাশি এলাকার স্বার্থে ষড়যন্ত্র পরিহারের জন্য আহবান জানিয়েছেন তারা।
এদিকে এ বছরেই নির্মাণাধীন আখাউড়া পৌর মার্কেটের দোকন বরাদ্দ দেওয়া শুরু হবে বলে জানিয়েছেন মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল। তবে মার্কেট নিয়ে উভয় সংকটে পড়া পৌর মেয়র শেষ পর্যন্ত তা কতটুকু বলবৎ রাখতে পারেন এ নিয়ে চলছে আলোচনা। কেননা, মার্কেটের দোকান বরাদ্দে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা হলেও একটি মহল এ নিয়ে ফায়দা লুটতে পারে বলে শঙ্কিত মেয়র।
পৌরসভার দেওয়া তথ্য মতে, উপজেলা পরিষদের মালিকানাধীন এ জায়গাটি ২০১০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি উপজেলা পরিষদের এক সভায় পৌরসভার নামে হস্তান্তর করা হয়। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, তৎকালীন ইউএনও, পিআইওসহ সংশ্লিষ্টরা ওই সভায় উপস্থিত থেকে এ বিষয়ে মতামত পোষণ করেন। পরবর্তীতে প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে ওইস্থানে পৌর ভবন নির্মিত হয়। ২০১২ সালের ৭ মে পৌর কর্তৃপক্ষ এক সভায় বাকি জায়গায় মার্কেট নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেন।
এরই আলোকে একই বছরের ৬ ডিসেম্বর স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সহকারি সচিব রেহেনা ইয়াছমিন মার্কেট নির্মাণের অনুমোদনের অনুকুলে কিছু তথ্য চেয়ে চিঠি পাঠান। ১১ ডিসেম্বর পৌর কর্তৃপক্ষ এ সংক্রান্ত সকল তথ্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বরাবর পাঠিয়ে দেন। ২০১৩ সালের ৭ জুলাই মন্ত্রনালয় মার্কেট নির্মাণের অনুমোদন দিয়ে ১০ কোটি ২০ লাখ টাকা প্রাক্কালন উঠানোর অনুমতি দেয়। মার্কেটের স্থানটি পৌরসভার অনুকুলে স্থায়ীভাবে বরাদ্দের জন্য ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন জানানো হয়েছে।
অন্যদিকে প্রশাসন দাবি করেছে জায়গাটি ১নং খাস খতিয়ানভুক্ত। কয়েকমাস আগে এটিকে খাস খতিয়ানের অন্তর্ভূক্ত করা হয়। অন্যদিকে জায়গা ত্রান মন্ত্রনালয়ের বলে দাবি করে মামলাও করা হয়েছে। মামলায় বলা হয়েছে, এখানে বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র ছিল। এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিভিন্ন চিঠিতে নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার কথাও বলা হয়।
তবে এলাকাবাসী ও ব্যবসায়িদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মূলত বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে বহু বছর আগে এখানে ভবন নির্মাণ হয়। কিন্তু বছরের পর বছর ধরে এটিতে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, প্রেসক্লাব, রিপোর্র্টার্স ইউনিটি, বাজার পরিচালনা কমিটি, কর্মচারি কল্যাণ পরিষদ, উদয়ন ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের অফিস ছিল। কখনোই এটি বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হয় নি।    
পৌরসভা সূত্র জানায়, ছয়তলা বিশিষ্ট শাহ সৈয়দ আহম্মদ গেছুদারাজ (র.) পৌর মার্কেট নির্মাণে প্রাথমিকভাবে ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে তিনতলা পর্যন্ত মোট ১২০টি দোকান বরাদ্দ দেওয়া হবে। আন্ডার গ্রাউন্ডে মাছ, তরকারি, মুদি মালের দোকানের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হবে। প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় বরাদ্দ দেওয়া হবে স্টেশনারি, কনফেকশনারী, কাপড়, জুতা, ওষুদ মোবাইল ফোন সেট, ইলেকট্রনিক সামগ্রী, জুয়েলারি ইত্যাদির দোকান।
পৌরসভা সূত্র জানায়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠতলা বিভিন্ন সংগঠনের জন্য বরাদ্দ দেওয়ার পাশাপাশি এক স্কুল করার পরিকল্পনা রয়েছে পৌরসভার। মার্কেটটিতে লিফটও থাকবে। আধুনিক একটি মার্কেট হবে এটি। যে জায়গাটিতে মার্কেট নির্মাণ হচ্ছে এর জমির বাজার দর ও মার্কেট নির্মাণের টাকা মিলিয়ে যা আসবে তা হিসেব করে বরাদ্দের দর ঠিক করা হবে। সেই হিসেব মতে, একেক দোকানের বরাদ্দ দেওয়া হতে পারে ১৫ থেকে ৩০ লাখ টাকায়। তবে এ বিষয়ে এখনো চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয় নি।
পৌর মার্কেট নির্মাণ নিয়ে কোনো ধরণের জটিলতা নেই বলে নিশ্চিত করেছে পৌরসভার একাধিক সূত্র। এমনকি জটিলতার কারণে মার্কেট নির্মাণ কাজ বন্ধ আছে- এমন কথা শুধুই গুজব বলে দাবি করেছে সূত্রটি। বর্তমানে মার্কেটের ভূমির নীচের অংশের সয়েট টেস্ট ও পিলারের ওয়েট টেস্ট (ওজন পরীক্ষা) চলছে। মার্কেট নির্মাণ নিয়ে যে মামলা হয়েছে এর রায় পৌরসভার পক্ষেই গেছে। প্রশাসন থেকে যেসব চিঠি আসছে এরও যথাযথ জবাব দেওয়া হচ্ছে।
আখাউড়া সড়ক বাজার ব্যবসায়ি সমিতির সাধারন সম্পাদক মো. আব্দুল মান্নান বলেন, ‘এলাকাবাসীর স্বার্থেই এখানে জরুরি ভিত্তিতে মার্কেট নির্মাণ করা জরুরি। মার্কেটটি নির্মাণ হলে সাধারণ ব্যবসায়িদের অনেক উপকার হবে। ফুটপাতের ব্যবসা কমে যাবে বলে যানজটও কমবে। কারো স্বার্থে মার্কেট নির্মাণ কাজে ব্যাঘাত ঘটালে আমরা আন্দোলনে যাবো’।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আখাউড়ার সুশীল সমাজের একাধিক প্রতিনিধি বলেন, ‘মূলত আসন্ন পৌর নির্বাচনকে ঘিরে অনেকে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন। মার্কেটটি এলাকাবাসীর প্রাণের দাবি হওয়ায় কোনো ষড়যন্ত্র তা রুখতে পারবে না। প্রয়োজনে এলাকাবাসী আন্দোলনে যাবে’।
আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, ‘এখন যে জায়গাটিতে মার্কেট নির্মাণ করা হচ্ছে এর একটি অংশে অনেক আগেই পৌর ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। আগে এ বিষয়ে কেউ কোনো কথা না বললেও এখন বলাটাই প্রমাণ করা তা উদ্দেশ্যমূলক’।    
তবে জেলা প্রশাসক ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন জানিয়েছেন, জায়গাটি সরকারের ১নং খাস খতিয়ানভুক্ত। পৌর মার্কেট নির্মাণ কিংবা বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র ভেঙ্গে ফেলতে মেয়র কোনো ধরণের অনুমতি নেন নি। বিষয়টি উর্ধ্বতন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর