সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোন অন্যায় করিনি, কেন ভারতের ভিসা পাবো না

news-image

বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক সালাউদ্দিন আহমেদর স্ত্রী হাসিনা আহমদ বলেছেন, আমিতো কোন অন্যায় করিনি, বেআইনী কাজ করিনি, আইন ও নিয়ম মেনে ভারতে ভিসার জন্য আবেদন করেছি। তাহলে আমি কেন ভিসা পাবো না। এখনও আমি আশা ছাড়িনি। আমি আশাবাদী ভিসা পাবো। ভারতীয় হাইকশিন থেকেও আমাকে আশ্বস্ত করেছে তারা ভিসা দিবে। কিন্তু কেন দেরি হচ্ছে জানি না।

স্বামীর খবর শোনার পর এখনও তার কাছে যেতে না পারার কষ্টটা ভাষায় প্রকাশ করতে পারছেন না হাসিনা আহমেদ। তিনি বলেছেন, এ ঘটনায় সরকারের ভুমিকা নিয়ে কোন কথা বলতে চাই না। বিএনপি কেন চুপ সেটা এখনও জানি না, হয়ত কিছু বুঝেই চুপ আছে। আমি তার (সালাহ উদ্দিন) সঙ্গে কথা না বলে কোন সিদ্ধান্তই নিতে পারবো না। আমি সেখানে যেতে পারলে কথা বলেই সিদ্ধান্ত নিবো। তার সঙ্গে পাসপোর্ট নেই আমি পাসপোর্ট নিয়ে যাবো। তার সঙ্গে একবার কথা বলার পর আর হাপাতালে আর ফোন করিনি। সেখানে পুলিশ ও ডাক্তারের সঙ্গে কোন কথা বলিনি। ভারতে যাওয়ার পর বলবো। সেখানে আইনজীবী নিয়োগ করব। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও র‌্যাবের ব্যাপারে এখনই মন্তব্য করতে চাই না। শনিবার দুপুরে তিনি এই প্রতিবেদকের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন।

সালাহ উদ্দিন আহমদের শারীরিক অবস্থা খারাপ, তিনি চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যেতে চান এই রকম কোন কথা কি জানতে পেরেছেন? এ প্রশ্নের জবাবে হাসিনা আহমদ বলেন, তিনি সিঙ্গাপুরে যেতে চান কিনা সেটা আমি এখনও জানি না। তবে তার শরীরের অবস্থা খুবই খারাপ। আর এই কারণে তার বিদেশে চিকিৎসার দরকার হতে পারে। সেটা তিনি চাইলে তাকে সেই চিকিৎসা দেওয়া জরুরি। তবে আমি এখনও তার কাছে না পৌঁছানো পর্যন্ত বলতে পারছি না যে তিনি সিঙ্গাপুরে যাবেন কিনা। এখন তার কাছে কোন পাসপোর্ট নেই, কোন কাগজ পত্র নেই। আর এই কারণে তিনি সিঙ্গাপুর যেতে চাইলেও তাকে কাগজপত্র ছাড়া যেতে দিবে কিনা সেটা বলতে পারছি না। তবে আমি সেখানে গিয়েই এই ব্যাপারে তার মতামত নিয়েই যা করার সব করবো।

সালাউদ্দিন আহমদের সঙ্গে একবারই কথা বলেছেন? নাকি পরেও কথা বলছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, হ্যাঁ একবারই কথা বলেছি। আর কথা বলিনি।

কারণ কি? হাসপাতালে ফোন করে তার সঙ্গে কথা বলার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন? এ প্রশ্নের উত্তরে হাসিনা আহমেদ বলেন, না আমি হাসপাতালে আর কোন ফোন করিনি। কথাও বলতে চাইনি।

পুলিশকে কোন ফোন করেছেন?

তিনি বলেন, না সেটাও করিনি।

পুলিশের সঙ্গেতো কথা বলতে পারতেন, তাদের কাছ থেকে আপনার স্বামীর ব্যাপারে খোঁজ খবর নিতে পারতেন?

তিনি বলেন, মেঘালয়ের কোন পুলিশের কাছে আমি কোন ফোন করিনি। কারো সঙ্গে কোন কথা বলিনি। ফোন করে এখনও কথা বলবো না। আগে আমার কাজ হবে ভারতে যাওয়া। সেখানে যাওয়ার পর তার সঙ্গে দেখা করবো, কথা বলবো। এরপর তিনি যে নির্দেশনা দিবেন সেই অনুযায়ী কাজ করবো। এর আগে কারো সঙ্গে কথা বলতে চাইছি না।

তার মানে একদিন কথা বলার পর তার আর কোন খবর পাচ্ছেন না?

তিনি বলেন, বিএনপি নেতা জনি যাওয়ার পর একদিন ফোন করেছিলেন। তিনি ফোন করে তার শরীরের অবস্থা জানিয়েছেন। এরপর তিনি আর ফোন করেননি। এরপর আর তার সঙ্গে কথা হয়নি। এই কারণে তেমনভাবে খবর পাচ্ছি না।

আপনিওতো তাকে ফোন করতে পারেন?

আমি তাকে ফোন করতে পারি না। কারণ তিনি আমাকে কোন ফোন নম্বর দেননি। তিনি অন্য একটা নম্বর থেকে আমাকে ফোন করেছেন। ওই ফোনে পাওয়ার সুযোগ নেই।

আপনি কবে নাগাদ যেতে চাইছেন?

হাসিনা বলেন, আমি যেদিন ভিসা পাবো সেই দিনই যাবো। সেই রকম প্রস্তুতি আছে। তবে কবে যাবো বলতে পারছি না। ভিসার জন্য অপেক্ষা করছি।

ভিসা পাবেন বলে মনে হচ্ছে?

তিনি বলেন, ভিসা পাবো বলে আশা করছি।

কবে পাবেন?

দিনক্ষণ জানি না। সেই রকম কোন ডেট ভারতীয় হাইকমিশন থেকে আমাকে দেয়নি। এই কারণে বলা যাচ্ছে না। তবে তারা আশ্বস্ত করেছেন আমরা ভিসা পাবো।

দেরি হচ্ছে কেন জানতে চেয়েছেন?

তিনি বলেন, না সেটা জানতে চাইনি।

কেমন পথে কোন রুটে যাবেন?

তিনি বলেন, আমরা আবেদন পত্রে দুটি অপশনই দিয়েছি। বাই রোড ও বাই এয়ার। এর মধ্যে যেটা দেয়।

তাহলে সীমান্ত কোনটি দিয়েছেন?
তিনি বলেন, আমি এটা ঠিক বলতে পারছি না। যারা ফরম ফিলাপ করেছেন তারা বলতে পারবেন।

আপনি সেখানে গেলে তার জন্য কি নিয়ে যাবেন?

প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রতো নিবো। সেই সঙ্গে তার আগের মেডিকেল সংক্রান্ত নথি পত্র ও পাসপোর্টও নেব। কারণ তাকে উন্নতর চিকিৎসার জন্য নিতে হলে পাসপোর্ট লাগবে। তাছাড়া তিনি যে এখন নতুন করে হার্টের সমস্যায় ভুগছেন এমন নয়, এর আগেও তার হার্টের সমস্যা ছিল। সেই জন্য বড় ধরনেরও অনেক দিন ধরেই চিকিৎসা করাতে হয়েছে।

সালাউদ্দিন আহমদের শিলংয়ে পৌঁছানো নিয়ে আপনার কি মনে হচ্ছে?

তিনি বলেন, আমি এখনও বলতে পারছি না। ঠিক কিভাবে তিনি সেখানে পৌঁছেছেন। তার সঙ্গে কথা বলার আগে আমাদের পক্ষে এই ব্যাপারে কোন কথা বলা ঠিক হবে না। কারণ তাকে কে বা কারা সেখানে নিয়ে গেছেন এই ব্যাপারে তিনি আমাকে কিছু বলেননি।

আচ্ছা তিনি আপনাকে আর কি বলেছেন?

তিনি জানতে চেয়েছেন, আমার ছেলে মেয়েরা কেমন আছে। ওদেরকে আশ্বস্ত করতে বলেছেন।

আচ্ছা তিনি ফোন করেই তার বেঁেচ থাকার খবরটি মিডিয়া ও বিএনপি চেয়ারপারসনকে জানাতে বললেন, কারণ কি?

তিনি বলেন, এটা আমি ঠিক বলতে পারবো না। তিনি আমাকে করতে বলেছেন, আমি বলেছি।

আপনার কি মনে হয় তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছিলেন বলেই এমনটি বলে থাকতে পারেন, যাতে তার কোন ক্ষতি আগামীতে না হয়?

তিনি বলেন, তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছিলেন। কারণ এতদিন তাকে যেখানে রাখা হয়েছিল সেটা সুখকর ছিল না হয়তো। আর সেটা না থাকার কারণেই তিনি আতঙ্কিত ও নিরাপদ নন। এই কারণেই মনে করেছেন সবাইকে খবর দিলে অন্তত সমস্যা হবে না। সেই কারণেই মিডিয়াকে ও ম্যাডামকে জানিয়েছি।

বিএনপি চেয়ারপারসন তার খোঁজ পাওয়ার খবর শুনে কি বলেছেন?

তিনি বলেন, তিনি আমাকে যেভাবে কাজ করতে বলেছেন সেইভাবে কাজ করছি। তাকে ফেরত আনার চেষ্টা করছি, করবো। আর তার কাছে যাওয়ার চেষ্টা করছি।
আর কি বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে এক দুদিনের মধ্যে দেখা করার প্রয়োজন বোধ করছেন?

তিনি বলেন, এখনও সময় ঠিক করিনি। তবে ভিসা পেলে শিলংয়ে যাওয়ার আগে ম্যাডামের সঙ্গে দেখা করতে যাবো। তার কাছ থেকে পরামর্শও নিয়ে যাবো।

আচ্ছা সালাহ উদ্দিনের খোঁজ মেলা, এরপর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা, তার বিরুদ্ধে মামলা, তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে বিএনপির প্রকাশ্যে কোন বক্তব্য ও কোন উদ্যোগ নেই কেন? এই ব্যাপারে কি বলবেন?

তিনি বলেন, আমি বিএনপির এই ব্যাপারে কোন কথা বলতে পারবো না। কেন তারা দলীয়ভাবে কোন কথা বলছেন না কিংবা এনিয়ে কোন উদ্যোগ নিচ্ছেন না সেই ব্যাপারে আমি জানি না। তবে হয়তো এটা তাদের কোন কৌশল হতে পারে। অথবা তারা কিছু বুঝেই এটা করছেন।

বিএনপির এই কৌশলটাকে অনেকেই রহস্যজনক মনে করছে, বিশেষ করে সরকার মনে করছে বিএনপি সালাউদ্দিনকে লুকিয়ে রেখেছিল বলেই কিছু বলছে না, আপনি কি মনে করেন বিএনপির এই ব্যাপারে জোরালো পদক্ষেপ নিয়ে তাকে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে সরকার ও ভারত সরকারের সঙ্গে কথা বলা উচিত?

তিনি বলেন, আমি এই ব্যাপারে বলতে পারবো না। বিএনপি কি করবে সেটা বিএনপি ঠিক করবো। কিন্তু আমাকে আমার স্বামীর কাছে পৌঁছাতে হবে। তাকে ফেরত আনতে হবে সেটাই এখন বুঝি।

আপনি যেটা চাইছেন, সেটা বিএনপি যদি করতো তাহলে সরকারের উপর চাপ তৈরি হলে কাজটা কি আপনার জন্য সহজ হতো মনে করছেন?

তিনি বলেন, এটা আমি বলতে পারবো না।

আপনিতো এখনও ভিসা পাননি আপনি কি ভারতের ভিসা পাওয়ার জন্য সরকারের কাছে কোন সহযোগিতা চাইবেন কিংবা সরকারকে কোন চিঠি লিখবেন?

তিনি বলেন, এখনও ঠিক করিনি। ভিসার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছি। দেখি কি হয়। নাহলে সরকারের কাছে চিঠি লিখবো।

আপনার কি মনে হয় সরকার আপনাকে ভারতে যেতে বাধা দিতে পারে?

আমাকে কেন সরকার ভারতে যেতে বাধা দিবে। আমিতো কোন অন্যায় করিনি। আমি আমার স্বামীর কাছে যেতে চাই। এখানে সরকারের বাধা দেওয়ার সুযোগ নেই।

আপনি তো চাইলে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গেও কথা বলে সহযোগিতা চাইতে পারেন, যাতে করে তারা ভারতীয় হাইকমিশনে আপনাদের ভিসার জন্য সুপারিশ করে চিঠি লিখে, সেটা কি চাইবেন?

এই ব্যাপারে এখনও কোন সিদ্ধান্ত নেইনি।

আপনি কি এই ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর কোন সহযোগিতা চান?

এখনই এই ব্যাপারে কিছু বলছি না। কারণ আমি চেষ্টা করে যাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি লিখে সহযোগিতা চাইলে তিনিওতো ভারত সরকারের সঙ্গে এই ব্যাপারে সরকার টু সরকার কথা বলার উদ্যোগ নেওয়াতে পারেন, সেটা কি চাইছেন না?

তিনি বলেন, এখন আমি সেটা চাইছি না বলেই তাকে কোন চিঠি লিখছি না। এবং তার সঙ্গে দেখা করতেও চাইছি না।

সব মিলয়ে আপনার স্বামীর ব্যাপারে সরকারের মনোভাব কেমন মনে হচ্ছে?

এই ব্যাপারে আমি কোন মন্তব্য করতে চাইছি না।

আচ্ছা বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে তিনি (সালাহ উদ্দিন আহমদ) ভারতে রাজনৈতিক আশ্রয় চাইতে পারেন?

তিনি বলেন, তিনি ভারতে রাজনৈতিক আশ্রয় চান এই খবর গণমাধ্যমে এলেও তিনি সেখানে থাকতে চাইছেন এটা আমার জানা নেই। কারণ এই ব্যাপারে তার সঙ্গে আমার কোন কথা হয়নি। তার সঙ্গে দেখা করার পর এই ব্যাপারে কথা বলতে জানতে পারবো তিনি কি করতে চাইছেন।

আপনি কি তাকে ফিরিয়ে আনতে চান, নাকি তিনি সেখানে রাজনৈতিক আশ্রয় চান সেটা চাইছেন?

তিনি বলেন, এই বিষয়টি এখনও ঠিক করা সম্ভব হবে না। কারণ আসলে তার কি হয়েছিল, কারা তাকে নিয়ে গেল, কারা তাকে বর্ডার পাড় করলো আর কেনই বা এটা করলো এসব আগে তার মুখ থেকে আমাকে শুনতে হবে। সেটা শোনার পর অবস্থা বিবেচনা করে যেটা দেখা যাবে করা ঠিক হবে সেটাই করা হবে।

আপনি শুনছেন তিনি ভারতে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী হিসাবে চিহ্নিত হয়েছেন এবং তার বিরুদ্ধে মামলাও হয়েছে এই ব্যাপারে কি করবেন?

তিনি বলেন, সেটা শুনছি। আর এই ব্যাপারে মামলায় আইনী প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য সেখানে আমরা আইনজীবীও নিয়োগ করবো। ওই আইনজীবী তার পক্ষে যা যা করার সেটা করবেন। এখনও আমি বিষয়টি নিয়ে কোন আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলিনি। ওখানে আমি পৌঁছানোর পর সেখানে আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলবো।

অবৈধ অনুপ্রবেশকারী হিসাবে তিনি প্রমাণিত হলে তার শাস্তিও হতে পারে, সেই ক্ষেত্রে কি হবে?

তিনি বলেন, আগে মামলার কাগজ দেখে এরপর সব ব্যবস্থা নিতে হবে। আমি সেখানে না যাওয়ায় এখনও এগুলো কিছুই করতে পারছি না।

যেহেতু তিনি একজন অবৈধ অনুপ্রবেশকারী বলে ওই দেশের পুলিশ তাকে অভিযুক্ত করেছে সেই হিসাবে তার পরিবারের সদস্য হিসাবে আপনার ভিসা তারা নাও দিতে পারে?

তিনি বলেন, আমার স্বামী অবৈধ অনুপ্রবেশকারী তাদের দৃষ্টিতে হতে পারেন। কিন্তু সেটাও প্রমাণ সাপেক্ষ ব্যাপার। আর আমিতো অবৈধ অনুপ্রবেশকারী নই। আমিতো সেখানে বৈধভাবে যাওয়ার জন্য আবেদন করেছি। তারা ভিসা দিলেই আমি যাব। আমি তাদের দেশের কোন আইন অমান্য করিনি। এই কারণেই আমাকে তাদের ভিসা দেওয়া দরকার বলে আমি মনে করি। সেটা দেওয়া উচিত।

তিনি বলেন, আমি আমার স্বামীর সন্ধান পেয়েছি। সন্ধান পাওয়ার পরও তার কাছে আমি যেতে পারছি না। আমি যেতে না পারার কারণে কি ধরনের কষ্টে আছি সেটা ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। আমার প্রতিটি মুহুর্ত কাটছে শঙ্কায়। তার শরীর খারাপ এটাতো টেনশনও আছে। সেই সঙ্গে তার নিরাপত্তাহীনতাও ভুগছি।
আপনি কি আপনার পরিবারের সদস্যদের নিয়েও উদ্বিগ্ন?

তিনি বলেন, আমার পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা নিয়ে সারাক্ষণই উদ্বিগ্ন আছি।

আচ্ছা সালাহ উদ্দিন আহমদকে যখন তুলে নিয়ে যায় তখন আপনারা বলেছিলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে তুলে নিয়ে গেছে, কিন্তু শিলং পুলিশের কাছে তিনি বলেছেন, তাকে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা নিয়ে গেছে? এই তথ্য বিভ্রাট কেন, এই ব্যাপারে কি বলবেন?

আমরা সেটাই ওই সময়ে শুনেছি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তুলে নিয়ে গেছে। সেটাই আমরা বলেছি। কিন্তু তিনি অজ্ঞাত ব্যক্তিদের কথা বলেছেন, সেই ব্যক্তিরা কে, কারা তাদেরকে তিনি চেনেন কিনা সেটা জানতে হবে। এই জন্যই বলছি সব কথা তার কাছ থেকেই আমাদের জানতে হবে। এটা অন্য কেউ বলতে পারবে না।

আপনি কি র‌্যাব কিংবা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে ধরে নিয়ে গিয়েছিল বলে বিশ্বাস করেন?

তিনি বলেন, এই ব্যাপারে এখন আমি কোন কথা বলতে পারছি না।

আপনি কি সালাউদ্দিন আহমদ এর ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী কিংবা স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর কাছে গণমাধ্যমের মাধ্যমে কোন বার্তা দিতে চান কিংবা সহায়তা পেতে চান?

হাসিনা আহমদ বলেন, এখন আমি তেমন কোন কথা তাদের কাছে বলতে চাই না। সরকারের ভূমিকা নিয়েও আমি কোন কথা বলতে চাই না।