বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিশু রাব্বী হত্যার অভিযোগপত্র আদালতে বাদীর আপত্তি

news-image

আমিরজাদা চৌধুরী : ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সুলতানপুর মনাইবাড়ি গ্রামের শিশু রাব্বী (৩) হত্যা মামলার অভিযোগপত্রের বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছেন এই হত্যা মামলার বাদী শিশুটির পিতা মীর মো: সজিব। আজ বৃহস্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে দাখিলকরা এই আপত্তিতে অভিযোগপত্রকে  মিথ্যা-বানোয়াট এবং উদ্দেশ্য প্রনোদিত,ষড়যন্ত্রমূলক বলে দাবী করেন বাদী। তিনি উর্ধ্বতন কর্মকর্তার মাধ্যমে মামলাটির পুন:তদন্তের দাবী করেন। গত ২৩ শে এপ্রিল পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) পরিদর্শক রিটন রায় চৌধুরী আদালতে এই মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে নিহত শিশুটির ফুফাতো বোন ও খেলার সাথী সাড়ে চার বছর বয়সী তাইয়্যেবা’র জবানবন্দী সূত্রে মামলার বাদি মীর সজিবের চাচাত ভাই ফুল মিয়ার দুই ছেলে মীর সফিকুল ইসলাম ওরফে সাথিল (২৮), মীর মো. মিথিল (২৬) ও একই ইউনিয়নের টানচক গ্রামের মৃত শহীদ মিয়ার ছেলে শাহ আলমকে (৪৫) হত্যার জন্যে অভিযুক্ত করা হয়। অপরদিকে শিশুটির পিতা মীর সজিবের দেয়া মামলার এজহারে অভিযুক্ত ও গ্রেপ্তার হওয়া  মীর আবুল বাশার (৫৫) এবং তার বিশ্ববিদ্যালয় পড়–য়া দুই পুত্র মীর মানিক (২৫) ও মীর রতন (২২) কে খুনের দায় থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। বাদী সজিব মিয়া তার আপত্তিতে বলেছেন- সিআইডি’র তদন্ত কর্মকর্তা আসামী পক্ষের প্রভাবশালী লোকজনের চাপে ও অন্যায়ভাবে বাধ্য হয়ে যড়যন্ত্রমূলকভাবে এই অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন। আপত্তিতে বলা হয় শিশু হত্যার ঘটনাটি পূর্বশত্রুতা থেকে হয়েছে। বাদী তার এজাহারে এজাহারভূক্ত ৩ আসামীর সাথে সুস্পষ্টভাবে পরিবারের পূর্বশত্রুতার বিষয়টি উল্লেখ করেছিলেন। তার এজাহারের আসামীরা পূর্বে হুমকী-ধামকী দিয়েছিলো এবং খুন-খারাবি করে বংশধর শেষ করে দেয়ার কথা বলেছিলো বলেও উল্লেখ রয়েছে। কিন্তু তদন্তকারী কর্মকর্তা বাদী যাদেরকে আদৌ সন্দেহ করেননি তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছেন। অন্যদিকে তার এজাহারভূক্ত আসামীদের বাদ দিয়েছেন। অথচ যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়া হয়েছে তাদের সঙ্গে বাদীর কোন সময়ই সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ ছিলোনা। আপত্তিতে আরো বলা হয় তদন্তে আসামীপক্ষের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা নানা চাতুরীর আশ্রয় নেন। যে ড্রামটি আলামত হিসেবে দেখানো হয়েছে তাতে গরুর ভূষি ভর্তি ছিলো। ভূষি ফেলে ড্রামটি খালি দেখিয়ে তা জব্দ করা হয়। লাশের বস্তার সঙ্গে পাওয়া ইট গোয়ালঘরে পাওয়া গেছে বলে অভিযোগপত্রে যে তথ্য দেয়া হয়েছে তাও ঠিক নয়। তদন্ত পর্যায়ে বাদী বিভিন্ন তথ্য দিলেও তদন্ত কর্মকর্তা এর কোন যাচাই-বাছাই করেননি বলে আপত্তিতে বলা হয়। 
উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ১১ অক্টোবর দুপুরে দক্ষিণ মনাইবাড়ির পাশের পুকুর থেকে তিন বছর বয়সী শিশু রাব্বির ইট বাধা বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই দিনই ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে রাব্বির চাচাতো চাচা মীর আবুল বাশার এবং তাঁর দুই ছেলে আমেরিকান ইন্টারনাশনাল ইউনিভার্সিটির এমবিএর ছাত্র মীর মানিক (২৫) এবং আরেক ছেলে সাউথইষ্ট ইউনিভার্সিটির এলএলবির ছাত্র মীর রতনকে (২৩) আটক করে পুলিশ। এরপর এই তিনজনকে আসামী করে রাব্বির বাবা সজিব থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে পর্যায়ক্রমে রাব্বির চাচাতো দাদা ফুল মিয়ার বড় ছেলে মিথিল ও সাথিলকে গ্রেপ্তার করে সদর থানা পুলিশ। বাদির আবেদনের প্রেক্ষিতে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) গত ১৮ ই জানুয়ারী এই মামলার তদন্তভার গ্রহন করে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা