শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দায় এড়াতে চাইছে পুলিশ

news-image

ডেস্ক রির্পোট : আন্দোলনকারীদের লাঠিপেটা, লাথি মারা, নারী কর্মীর চুল ধরে টানাটানির যে নজির স্থাপন করেছেন কয়েকজন পুলিশ সদস্য, তাতে বিব্রত পুলিশ কর্মকর্তারা। ঘটনাস্থলে উপস্থিত কর্মকর্তাদের ভূমিকাও তাঁদের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ। এ অবস্থায় ঘটনার বিভাগীয় তদন্তের জন্য গতকাল সোমবার পুলিশের পক্ষ থেকে দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত নায়েক মোহাম্মদ আনিসুর রহমানকে। তদন্ত করে দায়ী অন্য পুলিশ সদস্যদের ব্যাপারেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। হাইকোর্টে এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে গতকাল একজন আইনজীবী রিট পিটিশন দাখিল করেছেন। তবে ঘটনাস্থলে উপস্থিত পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনার দায় নিতে চাচ্ছেন না।

গত রবিবার ঢাকা মহানগর পুলিশ সদর দপ্তরের সামনে ঘটে যাওয়া পুলিশি অ্যাকশনের সেই ঘটনা এখন আলোচনা ও পর্যালোচনার টেবিলে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সর্বত্র চলছে ব্যাপক সমালোচনা, প্রতিক্রিয়া ও নিন্দার ঝড়।

ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া এ প্রসঙ্গে বলেন, রাস্তা অবরোধ করে প্রতিবাদ-সমাবেশ করা হচ্ছিল। এর প্রভাবে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হলে পুলিশ মিছিলকারীদের প্রথমে সরে যেতে অনুরোধ করে। তাতে কাজ না হলে পুলিশ ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হয়। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের সময় নারী নিগ্রহের ঘটনা ঘটলে সেটা অবশ্যই খারাপ। দায়ীদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ জন্য তদন্ত কমিটি করা হয়েছে।

পুলিশের গণমাধ্যম শাখার ভারপ্রাপ্ত উপকমিশনার এস এম জাহাঙ্গীর আলম সরকার জানান, ঘটনা তদন্তে ডিএমপি সদর দপ্তর একটি এবং পুলিশ সদর দপ্তর আরেকটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট বিভাগের নায়েক আনিসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বাকিদের ব্যাপারে তদন্ত শেষে ব্যবস্থা নেবে কমিটি।

ডিএমপির কমিটির প্রধান করা হয়েছে যুগ্ম কমিশনার (লজিস্টিকস) ওয়াই এম বেলালুর রহমানকে। বাকি সদস্যরা হলেন ডিএমপির উপকমিশনার (ডিবি-দক্ষিণ) কৃষ্ণপদ রায় ও অতিরিক্ত উপকমিশনার আসমা সিদ্দিকা মিলি। কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

পহেলা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় নারী লাঞ্ছনার প্রতিবাদে রবিবার পুলিশ কমিশনারের কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশের লাঠিপেটায় ছাত্র ইউনিয়নের নেত্রীসহ প্রায় ৩০ জন আহত হয়। এ সময় পুলিশ ব্যাপক আকারে বুটের ব্যবহার করে। আন্দোলনকারীদের রাস্তায় ফেলে লাথি মারতে থাকে। এ ঘটনায় পুলিশের অনেক সদস্য জড়িত থাকলেও আপাতত নায়েক আনিসকে সাময়িক বরখাস্ত করে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিতে এক নারী কর্মীর চুলের মুঠি ধরে টেনে নিয়ে যাওয়া পুলিশ সদস্যটিই আনিস।

বিব্রত পুলিশ : গতকাল পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, ঘটনাটিকে পুলিশের ভাবমূর্তির জন্য ক্ষতিকর বলে মনে করছেন বেশির ভাগ কর্মকর্তা। বিশেষ করে পুরুষ পুলিশের মাধ্যমে নারী কর্মী নাজেহালের ঘটনাকে অস্বাভাবিক বলে ভাবছেন তাঁরা। এর আগেও বেশ কিছু এ রকম ঘটনা ঘটলেও তা ছিল বড় ধরনের রাজনৈতিক আন্দোলনের ক্ষেত্রে। কিন্তু কার্যত শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচি সামাল দিতে এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনার অবতারনাকে অনেকে সন্দেহের চোখে দেখছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকা মহানগর পুলিশের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা এ প্রসঙ্গে বলেন, যে ধরনের আন্দোলন কর্মসূচি ছিল এবং তাতে যে জনসমাগম হয়েছিল তা সামাল দিতে এতটা শক্তি দেখানোর প্রয়োজন ছিল না। সতর্ক পদক্ষেপ নিলে সহজেই সামলে নেওয়া যেত। মাঠপর্যায়ের পুলিশের চেয়ে সেখানে উপস্থিত কর্মকর্তারা পরিস্থিতি মোকাবিলায় কার্যত ব্যর্থ হয়েছেন। চারটি পুলিশি ব্যারিকেড পেরিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে আন্দোলনকারীরা। সে ক্ষেত্রে আগেই তাদের প্রতিহত না করে সদর দপ্তরের সামনে নিয়ে পেটানো খানিকটা প্রদর্শনমূলক হয়েছে বলে কেউ কেউ মনে করেন। দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা নিজেদের শক্তির মহড়া দিতে গিয়ে কলঙ্ক তৈরি করেছেন বলেও মন্তব্য করেন এক কর্মকর্তা।

ঘটনার সময় উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তাদের অনেকে 'জামায়াত-বিএনপির পক্ষ নিয়ে কাজ করেছে বলেও মন্তব্য করেছেন পুলিশের কেউ কেউ। একজন পুলিশ কর্মকর্তা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় সোহরাওয়ার্দী হলের শিবির নেতা ছিলেন উল্লেখ করে ক্ষুব্ধ ব্যক্তিরা বলছেন, সরকার ও পুলিশের ইমেজ ক্ষুণ্ন করতে পরিকল্পিতভাবে ঘটনা ঘটানো হয়েছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত লোকজনের অনেকে জামায়াতের তৎকালীন মন্ত্রী আলী আহসান মুজাহিদের মাধ্যমে পুলিশে ঢুকেছেন বলেও আলোচনা রয়েছে।

পুলিশের অভ্যন্তরীণ এ সমালোচনার বাইরে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীদের মাধ্যমে মিলেছে পুলিশের বর্বর আচরণের চিত্র। তাঁরা বলছেন, দুপুর ১টার দিকে প্রগতিশীল ছাত্র ইউনিয়নের শতাধিক নেতাকর্মী ঢাকা মহানগর পুলিশ সদর দপ্তরের কাছাকাছি শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী সরণিতে রাস্তা অবরোধ করে স্লোগান দিচ্ছিল। বর্ষবরণের দিন নারী লাঞ্ছনার ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের সামনেই দাঁড়িয়ে ছিল শতাধিক পুলিশ। হঠাৎ পুলিশের আলাদা একটি ইউনিট সেখানে পৌঁছে। তাদের মাথা ও মুখের বেশির ভাগ হেলমেট দিয়ে ঢাকা ছিল, হাতে ছিল লম্বা লাঠি। কাঁধে-কোমরে অস্ত্র। দাঙ্গা দমনে ব্যবহৃত এ ইউনিট সদস্যরাই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে বেপরোয়া আচরণ শুরু করেন।

দুই তদন্ত কমিটি : পুলিশ সদর দপ্তর ও ডিএমপি ঘটনা তদন্তে দুটি কমিটি করেছে। গতকাল সন্ধ্যায় পুলিশ সদর দপ্তর জানিয়েছে, ডিএমপি কার্যালয় ঘেরাওকে কেন্দ্র করে সোমবার বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ ও ছবির বিষয়ে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। ঘেরাও কর্মসূচি পালনকালে পুলিশের সঙ্গে মিছিলকারীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। মিছিলের উচ্ছৃঙ্খল সদস্যদের ছত্রভঙ্গ করার সময় পুলিশের বাড়াবাড়ি ইত্যাদি বিষয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স ডিআইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুনকে (অপারেশনস্) আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করেছে। ইতিমধ্যে পত্রিকায় প্রকাশিত ছবির ভিত্তিতে নায়েক আনিসুর রহমানকে শনাক্ত করে তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

অন্যদিকে মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ছাত্র ইউনিয়নের নেতাকর্মীদের কর্মসূচিতে বাধা প্রদানসংক্রান্ত পুলিশের নেওয়া পদক্ষেপ নিয়ে বিরূপ সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে। তাই সংশ্লিষ্ট ঘটনায় পুলিশি কার্যক্রম পর্যালোচনায়, ছাত্র ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা কিভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এতগুলো ব্যারিকেড পার হয়ে মিন্টো রোডে মন্ত্রীপাড়ায় এসে রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করল, পুলিশ সদস্য ও পুলিশি যানবাহনের ওপর হামলার সময় কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যদের দায়দায়িত্ব নিরূপণ, উল্লিখিত ঘটনায় রমনা বিভাগ কী ধরনের নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়েছিল, তা মূল্যায়নে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে।

দায় এড়াচ্ছেন উপস্থিতরা : ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) আবদুল বাতেন, অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. ইব্রাহীম, সহকারী কমিশনার (এসি) শিবলী নোমান, রমনা থানার ওসি মশিউর রহমানসহ অনেকে। ছাত্র ইউনিয়নের মিছিলকারীদের ওপর যখন পুলিশ চড়াও হয়, তখন সেখানে ছিল না কোনো নারী পুলিশ। অন্যদিকে আন্দোলনকারীদের মধ্যে অনেকেই ছিল নারী কর্মী। একজন নারী কর্মী ফুটপাতে রাখা ফুলের টব ভেঙে ছুড়ে মারে পুলিশের যানবাহনের দিকে। আর তখনই টার্গেটে পরিণত হন তিনি। গাছের আড়ালে লুকানোর সময় কয়েকজন পুরুষ পুলিশ সদস্য ছুটে যান তার দিকে। বুট উঁচিয়ে লাথি দেওয়ার চেষ্টা করে এবং একজন তার চুলে মুঠি ধরে ফুটপাতে নিয়ে আসে। এদিকে পুলিশের আরো কয়েকজন সদস্য ছাত্র ইউনিয়ন কর্মীদের রাস্তায় ফেলে বুট দিয়ে পাড়াতে থাকেন। গণমাধ্যমের কর্মীরা ওই ছবি তুলতে গেলে পুলিশ তাদের কয়েকজনকে ধাওয়া করে। পুলিশের এ আচরণের প্রতিবাদে ছাত্র ইউনিয়ন আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। অন্যদিকে পুলিশের মধ্যেই এ ঘটনা নিয়ে তৈরি হয়েছে প্রতিক্রিয়ার। পুলিশ প্রবিধান অনুযায়ী সাধারণ জনগণের সঙ্গে এ ধরনের আচরণ করার সুযোগ নেই। আর নারীদের সঙ্গে কোনোভাবেই এ আচরণ করার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

আলোচিত এ ঘটনা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, আন্দোলনকারীরা রাস্তা অবরোধ করে যানজট সৃষ্টি করেছিল। তাদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দেওয়ার সময় উত্তেজনা তৈরি হয়। এ রকম পরিস্থিতিতে অনেক কিছু ঘটে যায়। এতে শুধু শুধু পুলিশকে দোষারোপ করা হচ্ছে। তবে কোনো নারীকে ইচ্ছাকৃতভাবে নাজেহাল করা হয়নি, খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে পুলিশ লাঠিপেটা করতে বাধ্য হয়েছে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত রমনা জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. ইব্রাহিম বলেন, কোনো নারীকে বা কাউকে নাজেহাল করার উদ্দেশ্য নিয়ে পুলিশ কাজ করে না। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে প্রতিনিয়ত অনেক বাজে পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয় পুলিশকে। এর মধ্যে কিছু অনিচ্ছাকৃত ভুল হয়ে যায়। কী পরিস্থিতিতে কী ঘটেছে, তা যাচাই করা হচ্ছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন রমনা বিভাগের সহকারী কমিশনার শিবলী নোমান। তিনি দায় অস্বীকার করে বলেন, কোনো নারীকে ইচ্ছা করে মারধর করা হয়নি। ঘটনার সময় মিছিল থেকে পুলিশের ওপর ইটপাথর ছুড়লে তখনই পুলিশ তাদের নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। তবে কিছু ভুল হতেই পারে।

অপ্রীতিকর এ ঘটনার জন্য শিবলী নোমান ছাত্র ইউনিয়নের নেতাদের দায়ী করে বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে তারা যখন মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে তখন তাদের পুলিশ কোনো বাধা দেয়নি। তারা পুলিশ সদর দপ্তর ঘেরাও করার চেষ্টা করেছে। সেই সঙ্গে রাস্তা অবরোধ করেছে। এ দুটো উদ্দেশ্যই আইনবিরোধী। ঢাবি থেকে তারা যখন মিছিল নিয়ে ডিএমপি কার্যালয়ের দিকে আসতে থাকে তার আগে কয়েকবার তাদের ব্যারিকেড দিয়ে থামানোর চেষ্টা করা হয়। সকালে ছাত্র ইউনিয়ন তাদের কথা দিয়েছিল, ক্যাম্পাস থেকে মিছিল নিয়ে তারা শাহবাগ এলাকা পর্যন্ত যাবে; কিন্তু তারা কথা রাখেনি। শিশু একাডেমি, দোয়েল চত্বর, মাজারগেট, কদম ফোয়ারায় তাদের শান্তভাবে থামানোর চেষ্টা করা হয়, তারা শোনেনি। পুলিশের ব্যারিকেড উপেক্ষা করে কাকরাইল এলাকা পর্যন্ত এলে সেখানেও তাদের থামিয়ে দিয়ে রাস্তা ছেড়ে দিতে বলা হয়। তারা পুলিশের অনুরোধ রাখেনি, রাস্তাও ছাড়ছিল না। এর পরই পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত রমনা থানার ওসি মশিউর রহমান প্রায় অভিন্ন অভিযোগ করে বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে মিছিলকারীদের ওপর পুলিশকে লাঠিপেটা করতে হয়েছে।