সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইফা’র ‘হালাল’ সনদে আস্থা নেই আলেম সমাজের

news-image

ইসলামিক ডেস্ক : ইসলামিক ফাউন্ডেশন (ইফা) কর্তৃক হালাল ‘সনদ’ দেওয়ার বিষয়ে গত শনিবার দৈনিক ইনকিলাবে “ইফা’র ‘হালাল’ সনদ নিয়ে বিতর্ক” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর গতকাল ইফা’র পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। সংবাদ সম্মেলনে ইফা’র ‘হালাল’ সনদ দেয়ার ক্ষেত্রে দেশের প্রচলিত আইন ও বিধি-বিধানের কোনো ব্যত্যয় ঘটেনি বলে দাবি করে প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক। ইফা’র পক্ষ থেকে ‘হালাল’ সনদ নামে যে সনদ দেয়া হচ্ছে তার উপর আস্থা রাখতে পারছে না দেশের শীর্ষ স্থানীয় আলেমরা। গতকাল এ বিষয়ে ‘দাওয়াতুল হক রিসার্চ সেন্টার’, ‘দারুল ইফতা ওয়াল ইরশাদ’, ও বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা বোর্ডের ফতওয়া বিভাগের একাধিক আলেমের সাথে দৈনিক ইনকিলাবের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তারা প্রত্যেকেই ইফা’র ‘হালাল’ সনদ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
 
পণ্যে হারাম উপাদান নেই তা ইফা কিভাবে নিশ্চিত হয় তা জানার জন্য হালাল সনদের দায়িত্বে থাকা ইফা’র কর্মকর্তা ড. আবু সালেহ পাটোয়ারীর ফোনে ইনকিলাব থেকে বারবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। ইফা কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ইফা’র মহাপরিচালক লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘ইসলামিক ফাউন্ডেশন আইন ১৯৭৫’, বোর্ড অব গভর্নরসের সিদ্ধান্ত, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সুপারিশ ও সিদ্ধান্ত মূলে ইসলামিক ফাউন্ডেশন হালাল সনদ প্রদান করছে বলে জানান তিনি। সনদ দেওয়ার বিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন একটি নীতিমালা তৈরির জন্য খসড়া চূড়ান্ত করে মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছে বলে জানানো হয়। তবে এ প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সনদ দেওয়ার কোন নীতিমালা নেই ও পরীক্ষারগার নেই বলে তিনি লিখিত বক্তব্যে স্বীকার করেন। সনদ দেওয়ার বিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন একটি নীতিমালা তৈরির জন্য খসড়া চূড়ান্ত করে মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছে বলে জানানো হয়। তবে ল্যাবরেটরী প্রতিষ্ঠার বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।
 
সনদ দেওয়ার আইনী বৈধতা বিষয়ে ইফা ডিজি বলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন-এর বোর্ড অব গভর্নরস-এর ১১/৬/২০০৮ খ্রি. তারিখের সভায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক হালাল সনদ প্রদানের বিষয়টি অনুমোদিত হয়। এছাড়াও ২৫/৮/২০১৩ খ্রি. তারিখে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নরস-এর ১৮৯তম সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, ‘হালাল সনদ আইন ও নীতিমালা সরকার কর্তৃক অনুমোদিত না হওয়া পর্যন্ত ইসলামিক ফাউন্ডেশন আগের মতো কমিটির মাধ্যমে হালাল সার্টিফিকেট প্রদান করবে।’ তবে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এই বক্তব্য ও সনদের প্রতি আস্থা রাখতে পারছে না দেশের প্রখ্যাত আলেমরা। গতকাল এ বিষয়ে ‘দাওতুল হক রিসার্চ সেন্টার’, ‘দারুল ইফতা ওয়াল ইরশাদ’, ও বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা বোর্ডের ফতওয়া বিভাগের একাধিক আলেমের সাথে দৈনিক ইনকিলাবের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তারা প্রত্যেকেই ইফা’র ‘হালাল’ সনদ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এবিষয়ে ‘দাওতুল হক রিসার্চ সেন্টার’ এর সহকারী পরিচালক মুফতি ড. খলিলুর রহমান বলেন, বিষয়টি ধর্মীয় না হয়ে সম্পূর্ণ বাণিজ্যিক হয়ে গেছে। ইফা’র এ উদ্যোগটি নিতান্তই হাস্যকর ও বালখিল্য। একটি কোম্পানী পত্রিকায় ফুলপেজ বিজ্ঞাপন দিয়ে বলছে, তাদের নুডলস বাংলাদেশের একমাত্র সার্টিফিকেটধারী হালাল নুডলস। আরেক কোম্পানী বিজ্ঞাপন দিয়েছে, তাদের নুডলস একমাত্র আন্তর্জাতিক সনদপ্রাপ্ত হালাল। তাহলে কি বাংলাদেশের অন্য সব নুডলস কিংবা খাদ্যপণ্য হারাম? অন্যরা সার্টিফিকেট নেয়নি বলে কি তাদের পণ্য হালাল নয়? তাছাড়া হালাল বা হারাম পরীক্ষার জন্য ইফা’র ল্যাবরেটরীটি কোথায় আছে? কোন বিশেষজ্ঞরা সেখানে কাজ করছে?
 
সেখানে বস্তুগত ও নৈতিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা কে বা কারা করেন? এসব প্রশ্নের জবাব না পেয়ে আমরা এ বিষয়টিকে কিছুতেই ছাড় দিতে পারি না। এ বিষয়ে ‘দারুল ইফতা ওয়াল ইরশাদ’র প্রধান মুফতি আল্লামা হারুন আল আজিজি বলেন, হালাল সনদ দেয়ার জন্য যে রাসায়নিক পরীক্ষাগার প্রয়োজন তা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আছে বলে আমাদের জানা নেই। তাছাড়া ইফা’র তাত্ত্বিক সামর্থ্য নিয়েও অনেক প্রশ্ন রয়েছে। বাংলাদেশে হারাম তেল, চর্বি ও মাংস ব্যাপক নয়। সুতরাং এ দেশের ইসলামী শরীয়া অনুযায়ী সব খাদ্য ও ব্যবহারিক পণ্যই সাধারণভাবে হালালের মধ্যে পড়ে। এখানে একটি দু’টি কোম্পানীর জন্য বা খাদ্যসামগ্রীকে হালাল সার্টিফিকেট দেয়া মানে অন্যদের অবমূল্যায়ন করা। এটি নৈতিকতার খেলাপ। অর্থের বিনিময়ে সার্টিফিকেট নিয়ে কেউ কেউ বড় করে বিজ্ঞাপন দিচ্ছে যে, আমাদের পণ্যটি হালাল। তাহলে অন্যদের সামগ্রী কি হালাল না?
 
এটি গ্রাহকের মনে অহেতুক সংশয় সৃষ্টি ছাড়াও ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে অসম প্রতিদ্বন্দ্বিতার মত খারাপ দৃষ্টান্ত তৈরি করবে। বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা বোর্ডের ফতওয়া বিভাগের অন্যতম মুফতি মাওলানা নূরুল হুদা বলেন, ইফা কর্তৃক দুধ, নুডলস, তৈল, ঘি, সেমাই ইত্যাদি হালাল বলে সনদ দেয়ার এ নিয়ম বাংলাদেশের জন্য প্রযোজ্য নয়। এটি বিশ্বের অমুসলিম প্রধান অঞ্চলের জন্য হতে পারে। যেখানে হারাম পশু কিংবা বিসমিল্লাহ বলা ছাড়া অন্য প্রক্রিয়ায় হত্যাকৃত প্রাণীর গোশত বিক্রি করা হয়। সেখানে মুসলিমদের জন্য সনদ নেয়ার প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু বাংলাদেশে এ অবস্থা নেই বলে হালাল সনদের মাধ্যমে স্বার্থান্বেষী মহলের বাণিজ্যিক সুবিধা নেয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায়না। তাছাড়া ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এ কাজটি করার মত আইনগত, তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক যোগ্যতা কতটুকু আছে এ নিয়েও আমরা যথেষ্ট সন্দিহান। হালাল-হারাম নিয়ে সরকার নিয়ন্ত্রিত এ সংস্থার উদ্যোগ হিতে বিপরীত হওয়াও অস্বাভাবিক নয়। এতে মানুষের আস্থা নষ্ট হয়ে সমাজে হালাল হারামের বিষয়ে গভীর সংশয় ছড়িয়ে পড়েত পারে। মিথ্যা, ঘুষ ও দুর্নীতি থেকে সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলো সর্বাংশে মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত তাদের দেয়া হালাল সার্টিফিকেটের উপর জনগণ ভরসা করতে পারবে বলে হয় না। এসব বিষয় সচেতনতার উপর ছেড়ে দেয়াই উত্তম। যুগ যুগ ধরে চলে আসা সামাজিক ও ধর্মীয় ব্যবস্থাপনার বিষয়গুলো সরকারী কর্মকর্তাদের হাতে তুলে দিলে এক সময় হালালের মধ্যেও হারাম ঢুকে যাওয়া বিচিত্র নয়। দেশবাসী, আলেম সমাজ, মুফতি ও ইমামদের সহায়তায় এসব বিষয় পালন করে আসছে। এটিই বেশি নিরাপদ। আমলাদের হাতে এসব ন্যস্ত হলে ভালোর চেয়ে মন্দের আশংকাই বেশি। টাকা-পয়সা ও অবৈধ সুযোগ সুবিধার বিনিময়ে তখন বড় বড় কোম্পানী ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ব্যবসা ধ্বংসের চেষ্টা করতে পারে। ইফা’র লিখিত বক্তব্যে ডিজি বলেন, হালাল আইন ও নীতিমালা চূড়ান্ত না হওয়া পর্যন্ত ইসলামিক ফাউন্ডেশন যে সনদ ও লোগো প্রদান করছে এতে দেশের প্রচলিত আইন ও বিধি-বিধানের কোনরূপ ব্যত্যয় ঘটেনি। ইসলামিক ফাউন্ডেশনে সরকারীভাবে অনুমোদিত ও বেতনভুক্ত মুফতি, মুফাস্সির এবং মুহাদ্দিস রয়েছে। তারাই চূড়ান্ত মতামত ও সিদ্ধান্ত প্রদান করেন। তাছাড়া ইসলামিক ফাউন্ডেশন হালাল সনদ প্রদানের ক্ষেত্রে পণ্যে কি উপকরণ ব্যবহার করা হয়েছে তা যাচাই করে থাকে এবং সরেজমিনে পরিদর্শন করে থাকে। এতে বিনা যাচাইয়ে সনদ প্রদানের কোনো অবকাশ নেই।

এ জাতীয় আরও খবর