সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ওমরাহ ভিসা বন্ধ কেন জানে না মন্ত্রণালয়

news-image

সৌদি আরব সরকার কী কারণে ওমরাহ ভিসা বন্ধ করে দিয়েছে, তা জানে না বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. চৌধুরী বাবুল হাসান বলেন, ঠিক কী কারণে সৌদি সরকারের আমাদের (বাংলাদেশি) ওমরাহ ভিসা বন্ধ করে দিয়েছে তার তথ্য দেয়নি। ওমরাহ ম্যানেজমেন্টটা তারা একাই করে। হজ ছাড়া অন্য কোনো তথ্য আমাদের জানায় না তারা। এমনকি আমরা তথ্য জানতে চাইলেও না।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটের বেশকিছু হজ ও ট্রাভেল এজেন্সি ওমরাহ ভিসার নামে সৌদি আরবে আদম পাচার করছিল। বাংলাদেশ থেকে ওমরাহ ভিসা নিয়ে হাজারও মানুষ সৌদি আরবে রয়েছেন। অনেকেই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দেশে ফিরে না এসে অবৈধভাবে সেখানেই অবস্থান করছেন। সৌদি সরকারও অবৈধদের চিহ্নিত করতে পারছে না।

গত ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত যারা ওমরাহ পালনের উদ্দেশে সৌদি আরব গেছেন তাদের বড় একটি অংশ দেশে ফিরে আসেনি। এ বিষয়টি সৌদি সরকারের নজরে এলে বাংলাদেশকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়। বাংলাদেশি হজযাত্রীদের ব্যাপারে সতর্ক অবস্থান নেয় সৌদি সরকার।

জানা গেছে, সৌদি আরবের মিনিস্ট্রি অব ফরেন এ্যাফেয়ার্সের বেঁধে দেওয়া নতুন নিয়মে বাংলাদেশ থেকে ওমরাহ হজযাত্রীদের দেশটিতে পাঠানো হয়েছে। এ নিয়মে যারা ওমরাহ ভিসায় সৌদি যাবেন তাদের নির্ধারিত এজেন্ট বা কোম্পানির নিয়ন্ত্রণে থাকতে হবে। প্রতিমাসে এর সঠিক হিসাব সৌদি সরকারের কাছে প্রদান করতে হবে। কিন্তু গত ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত ১৪ থেকে ২৮ দিন মেয়াদের ভিসায় বাংলাদেশ থেকে ৪০-৫০ হাজার মানুষ ওমরাহ পালন করতে সৌদি গেলেও তাদের মধ্যে প্রায় দেড় হাজার হাজী দেশে ফিরে আসেননি। তারা অবৈধভাবে সৌদিতে থেকে গেছেন।

উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশি দেশে ফিরে না আসার বিষয়টি সৌদি সরকার অবগত হওয়ার পর গত ২২ মার্চ থেকে সম্পূর্ণভাবে ওমরাহ ভিসা প্রদান বন্ধ করে দেয় বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়।

এ বিষয়ে হজ এজেন্সিজ এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) সভাপতি ইব্রাহিম বাহার দ্য রিপোর্টকে বলেন, আমরা যতটুকু জানি, এ পর্যন্ত ৫০ হাজারের মতো ওমরাহ যাত্রী সৌদি আরবে গেছেন। এর মধ্যে অনেকে সেখানে রয়ে গেছেন বলে তারা ওমরাহ ভিসা স্থগিত করেছে। যদি ১ শতাংশ সেদেশে থেকে যেত তাহলে হয়ত ভিসা বন্ধ করত না। ১ শতাংশের বেশি রয়ে গেছে। যতক্ষণ পর্যন্ত সরকারী পর্যায়ে কোনো তদবির না করা হবে ততক্ষণ পর্যন্ত তারা (সৌদি সরকার) ওমরাহ ভিসা ছাড়বে না।

‘এ দায় কার, যারা পাঠাচ্ছে তাদের, নাকি সরকারের?’— এমন প্রশ্নের জবাবে হাব সভাপতি বলেন, যারা পাঠাচ্ছে দায় আসলে তাদের। গত কয়েক মাসে যারা সৌদি আরব গেছেন তারা এখনো বিক্ষিপ্তভাবে দেশে আসছেন। পরবর্তী সময়ে তদন্ত করে বের করতে হবে, কোন কোন এজেন্সির বেশিসংখ্যক লোক সেখানে থেকে গেছেন। এর ওপর ভিত্তি করে ধর্ম মন্ত্রণালয় অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে। হাবও ব্যবস্থা নেবে। ওই সব এজেন্সিকে কালো তালিকাভুক্ত করব আমরা। তবে আমরাতো সর্বোচ্চ কালো তালিকাভুক্ত করতে পারি, কিন্তু এজেন্সিগুলোকে তো শাস্তি দেওয়ার ক্ষমতা নেই আমাদের। এটি মন্ত্রণালয়ই করবে।

হাব সূত্র জানায়, প্রতিবছর শুধু রমজান মাসেই বাংলাদেশ থেকে ২০ হাজারের বেশি মুসল্লি পবিত্র ওমরাহ পালনে সৌদি আরব যান। কিন্তু ভিসা বন্ধ থাকার কারণে এবার এতসংখ্যক মুসল্লির ওমরাহ করতে সৌদিতে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
 

এ জাতীয় আরও খবর