বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চিত্রকর রবীন্দ্রনাথ এবং তাঁর বর্ণান্ধতা প্রসঙ্গ

news-image

সাহিত্য ডেস্ক : গত বছরের জুন মাসে হঠাৎ করেই আর্জেন্টিনা এবং পেরু ভ্রমণে গিয়েছিলাম। সে সময় এক ফাঁকে আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েনোস আইরেসের অদূরে সান ইসিদ্রোতে "ভিলা ওকাম্পো" দর্শনের এক মনোরম অভিজ্ঞতা হয় আমার। এ বাড়িটি এবং তার অদূরে মিরালরিও নামের আরেকটি বাড়ির সাথে রবীন্দ্রনাথের কিছু অমলিন স্মৃতি জড়িয়ে আছে, অনেকেই হয়তো জানেন। ভ্রমণ থেকে ফিরে এসে আমি বিডিআর্টসের জন্য একটি লেখা লিখেছিলা ওকাম্পো আর রবীন্দ্রনাথ : কিছু অশ্রুত গুঞ্জন" শিরোনামে ১ ।

 
আমার ভ্রমণ অভিজ্ঞতা থেকে পাওয়া নতুন কিছু তথ্যের আলোকে নতুনভাবে রবীন্দ্রনাথ-ওকাম্পোর সম্পর্ককে বুঝবার প্রয়াস ছিল সে লেখায়। লেখাটি ছিল বেশ দীর্ঘ। আমি ভেবেছিলাম এ ধরনের একঘেয়ে নিরস লেখা পড়তে পড়তে হয়তো পাঠকদের ক্লান্তি চলে আসবে একটা সময়। পাঠকদের কাছ থেকে যে প্রতিক্রিয়া পেয়েছি, তাতে মনে হয় সেরকম কিছু হয়নি। বরং, যে কোন কারণেই হোক, লেখাটি পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছিল। অনেক পাঠক লেখাটিকে পূর্ণাঙ্গ বইয়ে রূপ দিতে অনুরোধ করেন।
 
তবে বই লিখতে বললেই চট করে লেখা যায় না। আর তাছাড়া রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে, তার কাজের নানা দিক নিয়ে, এমনকি তাঁর জীবনের নানা অলিগলি নিয়ে ইতোমধ্যেই অজস্র গ্রন্থ লেখা হয়েছে, এখনো হচ্ছে, ভবিষ্যতেও হবে। কাজেই নতুন বইয়ে চর্বিতচর্বণের একটা ভয়তো আছেই। তাই ঠিক করেছি বই যদি হয়ই তবে সেটা স্রেফ রবীন্দ্রনাথের উপর না হয়ে ওকাম্পোর কিছু অনালোকিত দিক, এবং রবীন্দ্রজীবনে তার কিছু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়ে, কিংবা এর উল্লেখযোগ্য প্রভাব নিয়ে কিছু একটা হলেও হতে পারে ভবিষ্যতে। তবে বই টই না হোক, এ নিয়ে নতুন কিছু তথ্য যদি পাওয়া যায় -যেটা অনেকেরই অজানা, তা পাঠকদের সাথে বিনিময় করতে তো কোন বাধা নেই। বাধা নেই এ নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত ঘটাতেও। সে থেকেই শুরু হল বাড়তি কিছু অনুসন্ধান। আমার আজকের লেখাটি আমার সেই অনুসন্ধানেরই একটা সংক্ষিপ্ত রূপ বলা যায়।
 
আমার আগ্রহ ছিল জানার, রবীন্দ্র-জীবনে ওকাম্পোর প্রভাব কি কেবল "বিদেশী ফুল", "অতিথি" কিংবা "আশঙ্কা"র মত কবিতা সৃজনে সীমাবদ্ধ ছিল? সীমাবদ্ধ ছিল কেবল "পূরবী" কাব্যগ্রন্থ উৎসর্গের মাঝেই? না, তা নয় মোটেই। রবীন্দ্রনাথের উপর ওকাম্পোর একটি উল্লেখযোগ্য প্রভাব হল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শেষ বয়সে "চিত্রকর রবীন্দ্রনাথ" হয়ে ওঠা। রবীন্দ্রনাথ নিজেই তাঁর ছবি আঁকার শখকে উল্লেখ করেছেন "শেষ বয়সের প্রিয়া" হিসেবে। মজার ব্যাপার হচ্ছে, এর ভিত্তিটি গড়ে উঠেছিল ওকাম্পোর বাড়িতেই, সেই "পূরবী" কাব্যগ্রন্থ তৈরির সময়২ ।
 
ওকাম্পো লিখেছেন- ওঁর একটি ছোট খাতা টেবিলে পড়ে থাকতো, ওরই মধ্যে কবিতা লিখতেন বাংলায়। বাংলা বলেই যখন-তখন খাতাটা খুলে দেখা আমার পক্ষে তেমন দোষের কিছু ছিল না। এই খাতা আমায় বিস্মিত করল, মুগ্ধ করল। লেখার নানা কাটাকুটিকে একত্রে জুড়ে দিয়ে তার ওপর কলমের আঁচড় কাটতে যেন মজা পেতেন কবি। এই আঁকিবুঁকি থেকে বেরিয়ে আসতো নানা রকমের মুখ, প্রাগৈতিহাসিক দানব, সরীসৃপ অথবা নানা আবোলতাবোল। সমস্ত ভুল, সমস্ত বাতিল করা লাইন, কবিতা থেকে বহিষ্কৃত সব শব্দ এমনি করে পুনর্জীবিত হতো এক ভিন্ন রূপের জগতে, আমাদের দিকে তাকিয়ে যেন স্নিগ্ধ কৌতুকে হাসত তারা এই ছোট খাতাটাই হলো শিল্পী রবীন্দ্রনাথের সূচনাপর্ব।"
 
রবীন্দ্রাথ ঠাকুরের বিচিত্র কাটাকুটি: এই কাটাকুটি থেকে বেরিয়ে আসতো নানা রকমের মুখ, প্রাগৈতিহাসিক দানব, সরীসৃপ অথবা নানা আবোলতাবোল।
 
 
তবে এটি উল্লেখ্য যে, পূরবীর পান্ডুলিপিতে এ ধরনের বিচিত্র কাটাকুটি হঠাৎ করেই তিনি শুরু করেননি। আর্জেন্টিনা আসার আগেই ১৯২৩ সালে রক্তকরবীর পান্ডুলিপির খসড়ার পাতায় তাঁর কাটাকুটি থেকে ছবি তৈরির উদাহরণ আছে। এমনকি তারও আগে রবীন্দ্রনাথ ছবি এঁকেছেন, তবে হয়তো লাগাতার ভাবে নয়। ১৮৭৮-৮২ এই সময়কালে রবীন্দ্রনাথ "মালতী" নামে একটি পুঁথির পাতায় ছবি আঁকতেন।
 
১৮৮৯ সালের দিকে তিনি একটি পকেটবুক রাখতেন, তাতে যখন যা মনে হত, তাই আঁকতেন ৪। আসলে রবীন্দ্রনাথ পুরাদস্তুর ছবি আঁকা শুরু করেন ১৯২৮ সাল থেকে। আজ আমরা "রবীন্দ্র চিত্রকলা" বলতে যা বুঝি তা হল সেই সময় থেকে পরবর্তী দশ বারো বছরে আঁকা তাঁর আড়াই হাজারের ওপর ছবি। তবে ওকাম্পোর ব্যাপারে এটুকু অন্তত বলা যায় – শেষ বয়সে সাহিত্য ছেড়ে চিত্রকলায় মনোনিবেশের পেছনে রবীন্দ্রনাথের আর্জেন্টিনা উপাখ্যান এবং ওকাম্পোর উৎসাহের ব্যাপারটি নিঃসন্দেহে খুব বড় ভূমিকা রেখেছে।
 
আর্জেন্টিনায় ওকাম্পোর বাসায় বসে কবিতা লিখতে গিয়ে কবিগুরু যে সমস্ত বিচিত্র কাটাকুটি করতেন, তা দেখে মাঝে সাঝে ওকাম্পো ঠাট্টা করে বলে বসতেন "সাবধান, তোমার কবিতায় যত ভুলভ্রান্তি থাকবে, তুমি তো তত বেশিই ছবি এঁকে মজা পাবে। শেষে দেখবে যে, নিজে ইচ্ছে করেই বাজে কবিতা লিখছো"।
 
ওকাম্পো আরো লিখেছেন- তাঁর এই আঁকিবুঁকিতে তো আমি মেতে গেলাম। ব্যাপারটায় ওঁকে উশকে দিলাম। সান ইসিদ্রোর ছ" বছর পর প্যারিসে যখন আবার দেখা হলো কবির সাথে, ঐ খেলা তখন দাঁড়িয়ে গেছে ছবিতে"।
 
তবে ওকাম্পো যত সহজে বলেছেন "প্যারিসে যখন আবার দেখা হলো কবির সাথে, ঐ খেলা তখন দাঁড়িয়ে গেছে ছবিতে" ব্যাপারটা আসলে এতো সহজ ছিল না। রবীন্দ্রনাথের মাথায় তাঁর ছবি নিয়ে প্রদর্শনীর সুপ্ত একটা আকাঙ্ক্ষা ছিল বটে, আর সেজন্য ১৯৩০ সালে প্যারিসে সাথে নিয়ে গিয়েছিলেন তাঁর হাতে আঁকা চারশো ছবি; কিন্তু সেখানে গিয়ে বুঝলেন, সেখানে ছবির প্রদর্শনী করা অত সহজ নয়। ভাল গ্যালারি এমনিতেই চট করে পাওয়া যায় না, আর তার মধ্যে আবার প্যারিসে রবীন্দ্রনাথের জানাশোনাও ছিল কম।
 
কিন্তু এবারেও উদ্ধার করতে এগিয়ে এলেন সেই "সেনিওরা ওকাম্পো"। সৌভাগ্যবশত সেই সময়টা ওকাম্পো প্যারিসেই ছিলেন। তিনি আসলে দেখা করতে এসেছিলেন তাঁর জীবনের "নতুন পুরুষ" পিয়া দ্রিউ রা হোসেলের সাথে। ওকাম্পো প্যারিসে আছেন জেনে রবীন্দ্রনাথ তাঁকে টেলিগ্রাম করেছিলেন । হয়তো ভেবেছিলেন এতো মানুষের সাথে সংযোগ রাখা ওকাম্পো কোনভাবে সাহায্য করতে পারবেন।
 
খবর পেয়েই চলে এলেন ওকাম্পো। সময়টা ১৯৩০ সালের এপ্রিল মাস। রবিঠাকুরের সাথে তাঁর ২য় সাক্ষাৎ এটি। এসেই খুব কম সময়ের মধ্যে পিগ্যাল গ্যালারিতে রবিঠাকুরের ছবিগুলোর প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করে ফেললেন তিনি। এমনকি তাঁর বন্ধু লেখিকা কঁতেস দ্য নোয়াইকে দিয়ে চিত্রসূচীর একটা ভূমিকাও লিখিয়ে নিলেন ওকাম্পো। এত দ্রুত এবং সুচারুভাবে তিনি কাজগুলো সমাধান করে ফেললেন যে সবাইকে অবাক করে দিয়েছিল।
 
ভূমিকায় নোয়াই লিখেছিলেন টেগোরের মতো একজন মেধাবী স্বপ্নদ্রষ্টা কীভাবে যে তাঁর আশ্চর্য সব সৃষ্টির কাছে গিয়ে পৌঁছান! এই সব সৃষ্টি আমাদের দৃষ্টিকে নন্দিত করে, সেই সব দেশে আমাদের চক্ষুকে নিয়ে চলে যায়, যেখানে যা সম্ভাব্য তা বাস্তবের চেয়েও অধিক সত্য! শ্বেতকপোতের মতো রঙের অসামান্য সুন্দর হাত দিয়ে তিনি কবিতা রচনা করেন, আর এক অনির্বচনীয় সুরার নেশায় আবিষ্ট হয়ে তিনি তার পান্ডুলিপির কিনারায় নিজেকে ছেড়ে দেন  সূক্ষ্ম, জটিল ও বুদ্ধিনির্ভর শিল্পসৃষ্টির আওতা থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে নিয়ে তুলে নেন কল্পনার অনিয়ন্ত্রিত শক্তির কাছে। প্রথমে তিনি স্কেচ করতেন মাত্র; তার থেকে ক্রমশ তাঁর হাতে অজ্ঞাত সব দেশের অদ্ভুত সব সম্পদ এসে পৌঁছুতে শুরু করল। তিনি যেন মহাজাগতিক শিক্ষকের দ্বারা নির্দেশপ্রাপ্ত বাধ্য ছাত্রের মতো সেসব নির্দেশ লিপিবদ্ধ করতে আরম্ভ করলেন। তিনি পেয়েছিলেন অশ্রুর উপহার  কান্নার উপহার, যে ক্রন্দনের কারণ তিনি জানতেন না; ক্রমশ তাঁর মুখের উপর শিশির জমতে শুরু করল, তৈরি হতে আরম্ভ করল সূক্ষ্ম তরল নকশার কাজ  দেবদূতেরা যেন অবাক দৃষ্টিতে চেয়ে রইলেন।
 
পরীরা যেভাবে আমাদের তন্দ্রায় প্রবেশ করে অস্পষ্ট স্বপ্নের ঘোরানো সিঁড়ি দিয়ে, নিজেকে দেখাতে দেখাতেই নিজের সংজ্ঞা নির্মাণ করে তোলে, টেগরের আঁকা ছবিও আমাদের অন্তরে প্রবেশ করে সেইভাবে; এই মহান সৃষ্টিকর্মের সামনে দাঁড়িয়ে আমাদের বিস্ময়ে স্তব্ধ হয়ে যেতে হয়  কারণ এই মহত্ত্ব তুচ্ছ ও বিশাল উভয়ের মধ্য দিয়ে সমভাবে প্রকাশিত হয়েছে"।
 
ওকাম্পো যে কী অসাধারণ দ্রুততায় এবং দক্ষতায় প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করেছিলেন তার সাক্ষ্য সমসাময়িক অনেকের লেখাতেই ছড়িয়ে আছে। যেমন, রথীন্দ্রনাথ তাঁর"পিতৃস্মৃতি" তে উল্লেখ করেছেন ১০"
 
১৯৩০ সালে বাবা আবার যখন প্যারিস যান, সঙ্গে ছিল তাঁর আঁকা কিছু ছবি। ছবি দেখে কয়েকজন ফরাসি শিল্পী বাবাকে একটা চিত্র প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করতে অনুরোধ করলেন। খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেল, চট করে প্যারিস শহরে প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা অসম্ভব বললেই হয়। মোটামুটি একটা পছন্দসই হল পেতে হলে বছর খানেক আগে থেকে চেষ্টাচরিত্র করতে হয়। বাবা সেনিওরা ওকাম্পোকে তারযোগে অনুরোধ জানালেন তিনি এসে যেন বাবার সহায় হন। সঙ্গে সঙ্গে তিনি চলে এলেন এবং আপাতদৃষ্টিতে মনে হল বিনা আয়াসেই প্রদর্শনীর সব রকম ব্যবস্থা তাঁর সাহায্যে হয়ে গেল"।
 
এ ধরনের অনেক সাক্ষ্যই পাওয়া যাবে রবীন্দ্রনাথের সেই সময়কার নতুন সেক্রেটারি আরিয়ম উইলিয়ামস কিংবা রথীন্দ্রনাথকে লেখা আঁদ্রে কার্পেলেসের চিঠিতে। এমনকি স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ পর্যন্ত প্রতিমা দেবীকে ২ মে, ১৯৩০ তারিখে লেখা একটি চিঠিতে বলেছিলেন,
 
"ভিক্টোরিয়া যদি না থাকত, তাহলে ছবি ভালই হোক আর মন্দই হোক, কারো চোখে পড়ত না। একদিন রথী ভেবেছিল ঘর পেলেই ছবির প্রদর্শনী আপনিই ঘটে  অত্যন্ত ভুল। এর এত কাঠখড় আছে যে, সে আমাদের অসাধ্য- আঁন্দ্রের পক্ষেও। খরচ কম হয়নি তিন চারশো পাউন্ড হবে। ভিক্টোরিয়া অবাধে টাকা ছড়াচ্চে। এখানকার সমস্ত বড় বড় গুণীজনদের ও জানেডাক দিলেই তারা আসে। কঁতেস দ্য নোয়াইও উৎসাহের সঙ্গে লেগেচে এমনি করে দেখতে দেখতে চারিদিক সরগরম করে তুলেচে। আজ বিকেলে দ্বারোদঘাটন হবে  তারপরে কি হয় সেটাই দ্রষ্ট্যব্য।
 
পরে যেটা হল, সেটা সামান্য নয়। চিত্রকর আঁদ্রে কার্পেলেস কিংবা পল ভেলেরি এবং আঁদ্রে জিদের মতোন কলা-বিশেষজ্ঞরা ছবিগুলোকে চিহ্নিত করলেন "আগামী যুগের আর্ট" হিসেবে১১ , দেশে অবনীন্দ্রনাথ কিংবা শিল্পাচার্য নন্দলাল বসুর মত চিত্রকররা সেগুলোকে "অনন্যসাধারণ" বলে রায় দিলেন। শুরু হল রবীন্দ্রচিত্রকলা নিয়ে নানা ধরনের গবেষণা এবং আলোচনা। এ নিয়ে দেশের বাইরে রজার ফ্রাই, স্টেলা ক্রামরিশ, আর্চার থেকে শুরু করে এন্ডু রবিনসন যেমন মূল্যবান অভিমত দিয়েছেন, তেমনি বাংলাদেশে এবং ভারতে আনন্দকুমারস্বামী, মুলকরাজ আনন্দ, জয়া আপ্পাস্বামী, পৃথ্বীস নিয়োগী, অশোক মিত্র, রতন পারিমু, গীতা কাপুর, শোভন সোম, প্রণবরঞ্জন রায়, দেবরাজ গোস্বামী, কেতকী কুশারী ডাইসন, সুশোভন অধিকারী, ও.সি গাঙ্গুলি, শুভো ঠাকুর, বিষ্ণু দে, কৃষ্ণ কৃপালনি, সত্যজিৎ রায়, দিনকর কৌশিক, কে.জি. সুব্রামনিয়াম, অশোকমিত্র, শিবনারায়ণ রায়, কানাই সামন্ত, বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর, বুলবন ওসমান,  সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম এবং আনিসুজ্জামান প্রমুখ বিভিন্ন সময়ে এ নিয়ে আলোচনা করেছেন।
 
অবশ্য ক্ষেত্রবিশেষে কিছু সমালোচনা যে হয়নি তা নয়। প্যারিসে প্রথম প্রদার্শনীর সময় রবীন্দ্রনাথের কাছের বন্ধু-বান্ধবদের অনেকেই মুখটিপে হেসেছিলেন। তা সত্ত্বেও প্রদর্শনী থেমে থাকেনি। ১৯৩০ সালের মে মাসে প্যারিসের পিগ্যালে প্রদর্শনীর পর রবিঠাকুরের চিত্র-প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করতে হল জুন মাসে বার্মিংহ্যাম ও ইন্ডিয়া সোসাইটি, লন্ডনে। জুলাই মাসে বার্লিন, ড্রেসডেন, মিউনিখে। আগস্ট মাসে কবিগুরুর ছবি প্রদর্শনী হয় কোপেনহেগেন ও জেনেভায়। সেপ্টেম্বরে মস্কোয়, অক্টোবর মাসে আমেরিকার বোস্টনে এবং ডিসেম্বর মাসে নিউইয়র্ক এবং ফিলাডেলফিয়ায়।
 
জার্মানিতে সফল চিত্রপ্রদর্শনীর পর কবিগুরু প্রায় শিশুর মতো উৎফুল্ল হয়ে সে সময়কার আরেক "গুণমুগ্ধা" রানী মহলানবিশকে (ভারতের বিখ্যাত পরিসংখ্যানবিদ প্রশান্ত মহলানবিশের স্ত্রী যিনি নির্মলকুমারী নামে সমধিক পরিচিত) লিখলেন, "আজ আমার জার্মানির পালা সাঙ্গ হল, কাল যাব জেনিভায়।
 
এ পত্র পাবার অনেক আগেই জানতে পেরেছ যে, জার্মানিতে আমার ছবির আদর যথেষ্ট হয়েছে। বার্লিন ন্যাশনাল গ্যালারি থেকে আমার পাঁচখানা ছবি নিয়েছে। এই খবরটার দৌড় কতকটা আশা করি তোমরা বোঝো। ইন্দ্রদেব যদি হঠাৎ তাঁর উচ্চৈশ্রবাঃ ঘোড়া পাঠিয়ে দিতেন আমাকে স্বর্গে নিয়ে যাবার জন্য তা হলে আমার নিজের ছবির সঙ্গে পাল্লা দিতে পারতুম"।

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা