শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি প্রতারনা ও জালিয়াতির মাধ্যমে গ্রাসের চেষ্টা

news-image

মাহবুব খান বাবুল : সরাইলে শত কোটি টাকা মূল্যের  সরকারি সম্পত্তি প্রতারনা ও জালিয়াতির মাধ্যমে গ্রাস করার চেষ্টা করছে একটি ভূমিদস্যু সিন্ডিকেট। ভূয়া কাগজ পত্র দিয়ে নাম খারিজের জন্য স্থানীয় ভূমি অফিসে আবেদন ও করেছেন। আবেদন পত্রে রয়েছে পরিবারের সকল সদস্যের নাম। জালিয়াতি ধরে ফেলেছেন ইউএনও। জালিয়াতির মুখোশ উম্মোচন করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ও জিপি’র কাছে লিখিত প্রতিবেদন প্রেরন করেছেন ভারপ্রাপ্ত সহকারি কমিশান (ভূমি)। দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে ভূমি দস্যুদের। উপজেলা ভূমি অফিস, স্থানীয় লোকজন ও এ সি ল্যান্ডের প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, শতাধিক বছর আগে উপজেলার চুন্টায় হিন্দু সম্প্রদায়ভুক্ত সেন পরিবারের বসবাস ছিল। চুন্টা মৌজার এস এ ১৫০৯ নং খতিয়ানের সংযুক্ত ১৬.৭২ একর, ১৮৯০ নং খতিয়ানে ০.৬১ একর ও ১৬১ নং খতিয়ানের ০.০৯ একর সম্পত্তির মালিক ছিলেন ওই পরিবারের লোকজন। এরা হলেন- অবিনাশ চন্দ্র সেনের ছেলে অমিয় কুমার সেন, অনিল কুমার সেন, অনুপম সেন। ভগবান চন্দ্র সেনের ছেলে যোগেশ চন্দ্র সেন, পরেশ চন্দ্র সেন, ধনেশ চন্দ্র সেন ও ভবানী কিশোর সেনের পুত্র ধীরেন্দ্র কিশোর সেন। ১৯৬২ সালে এদের সকলেই চিরতরে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে চলে যান। সেখানে তারা স্থায়ী ভাবে বসবাস শুরু করেন। এখনো করছেন। কিন্তু চুন্টায় থেকে যান যোগেশ চন্দ্র সেন। এক সময় তাদের রেখে যাওয়া সকল সম্পত্তি পরিত্যক্ত হয়ে যায়। প্রচলিত আইনের বিধান অনুসারে তাদের ওই সম্পত্তি রাষ্ট্রীয় পরিত্যক্ত সম্পত্তি হিসাবে লিপিবদ্ধ হওয়ার কথা। কিন্তু ভুলক্রমে রেকর্ডে লিপিবদ্ধ হয়েছে অর্পিত সম্পত্তি হিসেবে। ওই সম্পত্তিতে একটি দু’তলা ও একটি একতলা দালান রয়েছে। ওই বাড়িটির চারিদিকে রয়েছে জায়গা ও ৫-৬টি পুকুর। বর্তমানে ওই জায়গা গুলো জন গুরুত্বপূর্ণ রাষ্টীয় সম্পত্তি। যার বর্তমান মূল্য শত কোটি টাকা। সরকারি ওই সম্পত্তি গ্রাস করার হীন উদ্যেশ্যে জালিয়াতির আশ্রয় নেয় স্থানীয় একটি প্রভাবশালী ভূমিদস্যু সিন্ডিকেট। এদের পেছনে রয়েছে ক্ষমতাসীন দলের শুন্য থেকে কোটিপতি বনে যাওয়া কিছু চামচা চামন্ডা। এরা সম্পত্তি পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে দুহাতে কামাই করছেন টাকা। তারা প্রতারনা ও প্রবঞ্চনার মাধ্যমে কাল্পনিক পিতা ‘ অমরেশ চন্দ্র সেন’ ও তার পুত্র ‘সজল কুমার সেন’ বানিয়ে একটি নাটক সাজিয়েছেন। সাজানো দাতা দিয়ে তৈরী করেছেন দলিল। ওই দলিল সংযুক্ত করে নাম খারিজের জন্য আবেদন করেছেন স্থানীয় কিছু লোক। প্রত্যেকেই  পরিবারের সকল সদস্যের নাম উল্লেখ করেছেন আবেদনে। আবেদনকারীরা হলেন- লোপাড়া গ্রামের আবদুল আলীর মেয়ে কামরুন্নাহার ও পরিবারের সাত সদস্য, চুন্টার সহিদ মিয়ার স্ত্রী মোছাঃ সোফিয়া খাতুন সহ পরিবারের তিনজন, আবদুল হাসিমের ছেলে মোহাম্মদ ফরিদ মিয়া, ঘাগড়াজোড় গ্রামের আবদুর রহমানের ছেলে আবদুল লতিফ ও পরিবারের দশজন, চুন্টার সামছুল হকের ছেলে ইমাম হোসেন সহ পরিবারের ১৩ জন। আবেদন পেয়ে সরজমিনে তদন্তে নেমে পড়েন ইউএনও মোহাম্মদ এমরান হোসেন। তার তদন্তে বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল। ভূমি দস্যু চক্রটি অমরেশ চন্দ্র সেনের দত্তক পুত্র সজল কুমার সেন সাজিয়ে ০৮/১৯৭৪ মুনসেফী আদালত, তৃতীয় সাফ জজ, কুমিল্লায় মামলা দায়ের করেন। ওই মামলাটি খারিজ হয়ে যায়। পরে সজল কুমার সেন দেওয়ানী আপীল মামলা নং-২১/৭৬ দায়ের করেন। আপীলে তাকে অমরেশ সেনের দত্তক পুত্র হিসেবে ডিক্রি (রায়) দেয়। ১৯৮০ সাল থেকে কথিত দত্তক পুত্র সজল একাধিক সাফ কবলা দলিল মূলে ওই সম্পত্তি হস্তান্তর করতে থাকেন।

sarail pic (shen-bari) 08.05.15==কিন্ত সরজমিনে স্থানীয় বয়োজেষ্ঠদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, অমরেশ চন্দ্র সেন অনেক আগে স্বপরিবারে ভারতে চলে গেছে। সজল কুমার সেন নামে তার কোন দত্তক পুত্র সন্তান ছিল না। বর্তমানেও কোন ওয়ারিশের অস্তিত্ব নেই। শত কোটি টাকার অধিক মূল্যের ওই রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি সরকারের হেফাজতে নেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষেকে জানানো হয়েছে। প্রসঙ্গতঃ সেখানে সেন পরিবারের আরো কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি ভূয়া কাগজ পত্র তৈরী করে দখল করে নিয়েছে প্রভাবশালী কিছু লোক। সম্পূর্ণ অবৈধ পন্থায় ফেরিফেরির নাম দিয়ে সরকারি পুকুরে নির্মাণ করে বসেছে স্থায়ী ইমারত। ৫-৬টি বিশাল আকৃতির পুকুর কৌশলে ভোগ দখল করে যাচ্ছে আরেকটি প্রভাবশালী চক্র। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই তারা সবকিছু করছে বলে চাউর রয়েছে গোটা এলাকায়। সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভারপ্রাপ্ত সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, প্রতারনা প্রবঞ্চনা ও জালিয়াতির মাধ্যমে কিছু লোক সরকারি মূল্যবান সম্পত্তি নিজেদের নামে নেওয়ার চেষ্টা করছে। তাদের নিজেদের তৈরী ওইসব কাগজ বাতিল করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট লিখিত প্রতিবেদন পাঠিয়েছি।