মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নতুন ধানের আমদানী কম দাম নিয়ে হতাশ কৃষক ও ব্যবসায়িরা

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের উত্তর পূর্ব হাওরাঞ্চলের সব চেয়ে বড় ধান চালের মোকাম পরিচিত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ নৌ বন্দর এলাকার বিওসিঘাট। এবার মোকামে নতুন বোর ধানের আমদানী কম। ক্রেতা বিক্রেতার সরব উপস্থিতিতে প্রাণ চঞ্চল হয়ে উঠেছে না মোকাম ঘাট। বেচা কেনা কমে গেছে অনেকটাই। এখানকার ব্যবসায়ীরা মনে করছেন ভারতীয় চালের আমদানীর কারণে ধানের ন্যায্য মুল্য পাচ্ছেনা কৃষক। আর এতে করে লোকসানের মুখে পড়েছে তারা । আর এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না পাড়লে আগামী মৌসুমে ধান চাষে আগ্রহ হারাতে পাড়ে কৃষকরা।
আশুগঞ্জ নৌ বন্দরে মোকাম ঘাট ঘুরে জানা যায় এবার হাওরাঞ্চলে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ধান কাটা শুরু হয়েছে বৈশাখ মাসের শুরু থেকেই। নৌপথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল থাকায় নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, জামালপুর, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার হাওরাঞ্চলের উৎপাদিত প্রায় ৯০ ভাগ ধানই বেচা কেনা হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ মোকামে। ঘাট থেকে হাত বদল হয়ে ধান চলে যাচ্ছে আশুগঞ্জের চালকলগুলোতে। আর এসব ধান স্থানীয় ৪ শতাধীক রাইছ মিলে প্রক্রিয়াজাত করে চালের চাহিদা পুরণের জন্য ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা, নোয়াখালী, চাঁদপুর ও ফেনীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক ও নৌ পথে সরবরাহ করে হয়। কিন্তু এবার চিত্রটা ভিন্ন। মোকাম ঘাটে বেচাকেনা নেই বললে চলে। বর্তমান বাজারে নতুন ধান মোটা ৩৮০ থেকে ৪২০ টাকা আর চিকন ধান থেকে সাড়ে ৪শ থেকে ৫২০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। ধান বিক্রি করতে আসা কৃষকরা বলছেন প্রতিমণ ধান উৎপাদন করতে খরচ হয়েছে ৭শ থেকে ৭শ ৫০ টাকা। ফলে প্রতিমণ ধানে লোকসান গুনতে হচ্ছে প্রায় ২’শ থেকে ২’শ ৫০টাকা। এ অবস্থা চলতে থাকলে দেশের কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হবে এবং প্রধান খাদ্যশস্য ধান উৎপাদন করতে আগ্রহ হারাবে কৃষকরা। কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা থেকে আগত কৃষক মুসলিম মিয়া (৫০) জানান ধান করতে যে টাকা খরচ হয়। তার কম দামে ধান বিক্রি করতে হয়। স্থানীয় আড়তদার মো.উবায়দুল্লাহ (৩৭) জানান মাঠে ভারতীয় চাল থাকায় দেশীয় উৎপাদিত ধান কেনার আগ্রহ হারাচ্ছে ধান ব্যবসায়ীরা। এলসির মাধ্যমে ভারত থেকে আনা চাল কেনা বন্ধ হলে দেশের উৎপাদিত ধানের দাম বাড়বে এবং কৃষকরাও ধানের ন্যায্য মূল্য পাবেন বলে মনে করছেন তিনি।
আশুগঞ্জ আড়তদার সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ শাহজাহান সিরাজ বলেন, যে অবস্থায় বাজার চলছে বর্তমানে কৃষকদের লোকসান হচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে কৃষকেরা আরো লোকসানের মুখে পড়বে।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা চাতালকল মালিক সমিতির সভাপতি হাজী মোঃ জিয়াউল করিম খান জানান, ভারতীয় চাল আমদানি বন্ধ করে সরকার বেশি করে ধান-চাল ক্রয় করলে কৃষক এবং মিল মালিকরা লাভবান হবে। আর না হলে কৃষক ও মিল মালিকরা লোকসানের মুখে পড়বে।
তবে ন্যায্য মূল্য না পেলে দেশের কৃষকরা ধান চাষে আগ্রহ হারাবে এমনটাই মনে করছেন এখানকার কৃষক ও চাতাল ব্যবসায়ীয়রা।

 


 

 

এ জাতীয় আরও খবর