বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইল-নাসিরনগর সড়কে দূর্ধর্ষ ডাকাতি : অপহরণের তিন ঘন্টা পর দুই যুবতী উদ্ধার

dakat=======স্টাফ রিপোর্টার সরাইল : সরাইল-নাসিরনগর- লাখাই আঞ্চলিক সড়কে সন্ধ্যা রাতেই সাতটি যাত্রীবাহী অটোরিক্সায় দূর্ধর্ষ ডাকাতি হয়েছে। এ সময় ডাকাতরা সহোদর দুই বোন মুসলিমা বেগম (২৫) ও আকলিমা বেগম (২২) কে অপহরণ করে নিয়ে যায়। তিন ঘন্টা পর গ্রামবাসী আহত অবস্থায় ওই যুবতীদের উদ্ধার করে। গত বুধবার সন্ধ্যায় সড়কের সরাইলের ধর্মতীর্থ এলাকায় পুলিশ বক্স সংলগ্ন পুটিয়া ব্রীজের কাছে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। তবে অপহরণের বিষয়টিকে মিথ্যা বলছে পুলিশ। ডাকাতের কবলে পড়া একাধিক অটোরিক্সা চালক ও যাত্রীরা জানায়, সন্ধ্যা সাতটার পর বিশ্বরোড থেকে নাসিরনগর গামী তিনটি ও নাসিরনগর থেকে বিশ্বরোড গামী চারটি সিএনজি চালিত যাত্রীবাহী অটোরিক্সাকে সড়কে ব্লক ফেলে আটক করে মুখোশধারী সংঘবদ্ধ একদল ডাকাত। ১০/১২ জনের প্রত্যেকের হাতে ছিল বড় ছোঁড়া, রামদা, চাপাতি, কিরিজ ও বল্লম। তারা প্রথমে অস্ত্রের মুখে যাত্রী ও চালকদের জিম্মি করে ফেলে। পরে প্রত্যেকের কাছ থেকে নগদ টাকা, মুঠোফোন সেট, হাত ঘড়ি ও অন্যান্য মালামাল ছিনিয়ে নেয় ডাকাতরা। জিনিষ পত্র দিতে বিলম্ব হওয়ায় অনেক যাত্রীকে মারধর ও করেছে। ধর্মতীর্থ গামী অটোরিক্সার যাত্রী দুই যুবতি টাকা দিতে কিছুটা বিলম্ব হওয়ায় তাদের উপর চড়াও হয় ডাকাতরা। তাদেরকে টেনে খিচড়ে অটোরিক্সা থেকে বের করে। ভয়ে ওই যুবতি সড়ক দিয়ে দৌঁড়াতে থাকে। তাদেরকে ধরতে পেছনে দৌঁড়াতে থাকে কয়েকজন ডাকাত। তারা চিৎকার করে অনেক যাত্রীর কাছে সাহায্য ও চেয়েছে। কোন কাজ হয়নি। অবশেষে ডাকাতরা ওই দুই যুবতিকে অপহরণ করে সড়কের পূর্ব পাশের হাওর দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। ডাকাত দলের এমন তান্ডবে হতবিহবল হয়ে পড়ে যাত্রী ও চালকরা। ডাকাতি ও যুবতি অপহরণের খবর পেয়ে ধর্মতীর্থ গ্রামের কয়েক’শ লোক লাঠিসোটা নিয়ে হাওরে নেমে পড়ে। কিছুক্ষণ পর সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছেন সরাইল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলী আরশাদ। পুলিশ ও গ্রামবাসী হাওরে ডাকাত এবং অপহৃত যুবতিদের উদ্ধারের চেষ্টা করতে থাকেন। হাওরে অনেক লোকের উপস্থিতি টের পেয়ে তিন ঘন্টা পর অপহৃত দুই যুবতিকে হাওরের মাঝখানে ছেড়ে দিয়ে সটকে পড়ে ডাকাতরা। পরে তারা অন্ধকার কূয়াশা ঠেলে খাল বিল পেড়িয়ে কোন রকমে ধর্মতীর্থ গ্রামে তাদের এক আত্মীয়র বাড়িতে আসেন। ডাকাতদের মারধর টানা খেচড়া ও হুমকিতে  আহত দুই যুবতি কথা বলতে পারছিলেন না। বিমূর্ষু অবস্থায় আতঙ্কে কাঁপছিল তারা। কাঁপা কাঁপা গলায় কান্না জড়িত কন্ঠে তারা সাংবাদিকদের জানান, তারা দুজনই নাসিরনগর উপজেলার গোকর্ণ গ্রামের সোনাব আলীর কন্যা। এক সপ্তাহ আগে তাদের বাবা মারা গেছেন। আকলিমা বড় বোনকে নিয়ে তার পাসপোর্টের ফটোকপি জমা দেওয়ার জন্য ধর্মতীর্থ গ্রামে তার এক চাচা ইয়াকুব মিয়ার বাড়িতে আসতেছিল। আছরের পর তারা চয়েরকূড়ি বাজার থেকে অটোরিক্সায় করে নাসিরনগর আসেন। সন্ধ্যা হয়ে যায়। সেখান থেকে ধর্মতীর্থের উদ্যেশ্যে রওয়ানা দিয়ে তারা পুটিয়া ব্রীজে ডাকাতের কবলে পড়ে। ডাকাতরা এ সময় ৬-৭টি গাড়ি থামিয়ে ফেলে। পুলিশ দাঁড়িয়ে ছিল ছোট ব্রীজের দক্ষিণ পাশের টার্নিং-এ। ধারালো অস্ত্র সকলের গলায় ধরে রেখেছিল। কি যে দেখেছিলাম সব বলতে পারব না। পালানোর চেষ্টা করেছিলাম। জীবন বাঁচানোর জন্য অনেক যাত্রীর পায়ে ধরেছি। পরে ডাকাতরা আমরা দুই বোনকে ধরে নিয়ে হাওরের দিকে চলে যায়। সেখানে একটি ঘরে নিয়ে আমাদেরকে মারধর করে। অস্ত্র দেখায়। দুই হাজার টাকা ও মুঠোফোন দুটি নিয়ে যায়। টানা খেঁচড়া করে। তাদের নাম কাউকে বললে প্রাণ নাশের ও হুমকি দেয়। পুলিশ দেখেই তারা (দুই বোন) বলতে থাকে এখানে নিয়মিত ডাকাতি হয়। আপনারা পুলিশ কি করেন? রাতেই ঘটনা স্থলে ছুটে আসেন পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান পিপিএম (বার), সহকারি পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. শফিকুল ইসলাম, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মো. মাইনুর রহমান ও র‌্যাব-১৪-এর সদস্যরা। ডিবি ওসি মাইনুর রহমান বলেন, দুই যুবতির কাছ থেকে ডাকাতরা দুই হাজার টাকা ও একটি মুঠোফোন ছিনিয়ে নিয়েছে। আরেকটি মুঠোফোনের জন্য তাদেরকে টেনে খিঁচড়ে হাওরের দিকে নিয়ে যায়। তবে বেশী দূর নিতে পারেনি। তাদের শাররীক অবস্থা দেখে মনে হয়েছে নিজেরাই গাড়িতে করে আত্মীয়ের বাড়িতে চলে এসেছে। চালকের কাছ থেকে আড়াই শত টাকা নিয়েছে ডাকাতরা। তবে সরাইল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলী আরশাদ সাংবাদিকদের বলেন, ডাকাতির বিষয়ে কেউ কোন অভিযোগ করেনি। অপহরণের বিষয়টি মিথ্যা। তারা নিজেরাই সিএনজি অটোরিক্সায় করে ধরন্তি তাদের চাচার বাড়িতে এসেছে।