বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কসবায় পাগলা কুকুরের কামড়ে অর্ধশতাধিক আহত

dogg-300x196কসবা প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় পাগলা কুকুরের কামড়ে দুই দিনে অর্ধশতাধিক নারী-পুরুষ আহত হয়েছে। কুকুরটি  কামড় দিয়ে মাংস মাংস তুলে নিয়ে গেছে। এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ছে।
 উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পৌরসভায় কুকুরের কামড়ের কোন টিকা না থাকায় ইনজেকশান দিতে পারছেন না আহতরা। স্থানীয়রা বলছেন; পৌরসভায় কুকুর নিধন না করায় কুকুর সংখ্যা বেড়েই চলছে।
হাসপাতাল ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে; সোমবার (২ মার্চ) সকালে উপজেলার তালতলা, আড়াইবাড়ি, আকছিনা, বিশারাবাড়ী, অনন্তপুর, ধর্মপুর, কেয়াইর এলাকায় বেশ কয়েকটি পাগলা কুকুর দৌঁড়াতে দৌঁড়াতে রাস্তার পথিকদের কামড়িয়েছে। গত রোববার কায়েমপুর, বায়েক ও আশ-পাশের এলাকায়ও বেশ কয়েকজনকে পাগলা কুকুর কামড়িয়েছে বলে জানা যায়।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্রে জানা গেছে; গতকাল সোমবার সকালে  আকছিনা গ্রামের মনতাজ মিয়া (৭৫), বিশারাবাড়ি গ্রামের ফরিদা বেগম (৪২), রানুয়ারা বেগম (৪০), রফিকুল ইসলাম (৬০), আড়াইবাড়ি গ্রামের নাজমা বেগম (৩৫), সাদেকা বেগম (৬০), জিয়াসমিন আক্তার (৩৫), শাহিন মিয়া (৩০), সামসুন্নাহার (৪২), রবিন মিয়া (৩২), শীতলপাড়া গ্রামের প্রদীপ দাস (৬৫), তালতলা গ্রামের আবদুচ ছালাম (৬৫), খোরশেদা বেগম (৪৫), হাসেম মিয়া (৮০), অনন্তপুর গ্রামের সাদেক চৌধুরী (৩৮), ধর্মপুর গ্রামের রিয়াদ হোসেন (১৭), তোতা মিয়া (৭০), অহিদ মিয়া (২৯), কেয়াইর গ্রামের আলমগীর মিয়া (৫৫),  গত রোববার বায়েক গ্রামের মুকবুল হোসেন (৬০), কাইমপুর গ্রামের রানা মিয়া (১১), মইনপুর গ্রামের কাউছার মিয়া (৩৫), মনিরা বেগম (৩০), কসবা গ্রামের ইফতিয়ার উদ্দিন (৪২) কে আহত অবস্থায় কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা শেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। অপর আহতদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সারাদিন এব্যাপারটি ছিল টক অব দ্যা কসবা।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর