বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘যা আছে লিখ, নম্বর দেওয়া হবে’

ssc4ক্যাম্পাস প্রতিবেদক : পরীক্ষার্থী বলল, ‘স্যার, অনেক প্রশ্ন আমরা বুঝতে পারছি না, একটু বুঝিয়ে দিন। অথবা একটি বাংলা প্রশ্নপত্র দিন, ওটা দেখেই উত্তর লিখব।’
স্যার বললেন, ‘এসব লাগবে না, যা আছে লিখ। সমস্যা হবে না, নম্বর দেওয়া হবে।’
শুক্রবারের ঘটনা। এসএসসির পদার্থবিজ্ঞানের নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষা চলাকালে এভাবেই কথোপকথন হচ্ছিল রাজধানীর সেন্ট জোসেফ স্কুলের ইংরেজি ভার্সনের এক শিক্ষার্থী ও কক্ষ-পরিদর্শকের সঙ্গে।
আমাদেরসময় ডটকমের কাছে শুক্রবারের পদার্থবিজ্ঞানের নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নপত্রের নানা অসঙ্গতি নিয়ে কথা বলেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক অভিভাবক। তিনি নৌবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।
তিনি বলেন, ‘পরীক্ষা শেষে অন্যদিন আমার ছেলে হাসতে হাসতে বের হলেও এদিন দেখলাম তার চোখ বেয়ে পানি পড়ছে। পরীক্ষা কেমন হয়েছে জিজ্ঞেস করতেই সে আরও আবেগাপ্লুত হয়ে প্রশ্নপত্রের কয়েকটি ভুলের কথা বলতে থাকে। প্রশ্নপত্রটি হাতে নিতেই ১১টি ভুল আমার নজরে আসে। এর মধ্যে ৫টি প্রশ্ন এমন ছিল, যার কোনো অর্থই হয় না। পদার্থবিজ্ঞানে যার ন্যূনতম জ্ঞান আছে, তার হাত দিয়ে এমন ভুল হতে পারে না। তবে, কে বানাল এই প্রশ্নপত্র। একটি জাতীয় পরীক্ষা নিয়ে সরকার এত উদাসীন কেন?’
শুধু ইংরেজি ভার্সনে নয়, বাংলা ভার্সনের প্রশ্নপত্রেও অনেক ভুল দেখা গেছে, যার ফলে সারাদেশের কয়েক লাখ পরীক্ষার্থীকে বিপাকে পড়তে হয়েছে। প্রশ্নপত্রের চার নম্বর প্রশ্নে বলা হয়েছে, শব্দের গতিবেগ ৩৫ মিটার। অথচ শব্দের গতিবেগ কখনো ৩৫ মিটার হতে পারে না। ওই প্রশ্নের সমাধান করতে পারেনি বেশিরভাগ পরীক্ষার্থী।
পদার্থবিজ্ঞানের কয়েকজন অভিজ্ঞ শিক্ষক বলেন, বায়ুম-লে শব্দের গতিবেগ প্রতি সেকেন্ডে ৩৩২ মিটার। এছাড়া মাধ্যমের ঘনত্ব যত বেশি হবে, গতিবেগ ততই বাড়বে।
পরীক্ষা শেষে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। তাদের অভিযোগ, অবরোধ-হরতালে একে তো তাদের সন্তানেরা পড়ায় মন বসাতে পারছে না, তার ওপর প্রশ্নপত্রে ভুলের কারণে মেধাবী ছাত্রদের পক্ষে ভালো রেজাল্ট করা কঠিন হবে।