রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপি নেত্রী মৃত্যুদণ্ডের অপরাধ করেছেন : প্রধানমন্ত্রী

59600_f3ডেস্ক রির্পোট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি নেত্রী প্রচলিত আইনে মৃত্যুদণ্ডের শাস্তি পাওয়ার মতো অপরাধ করেছেন। আন্দোলনের যে সাত দফা পেশ করেছেন তা ছিল ব্যক্তিস্বার্থের। এর মধ্যে জনগণের কল্যাণ ও মঙ্গলের কোনো দাবি নেই। আর এ কারণেই জনগণ তার সঙ্গে নেই। আমি বিএনপি নেত্রীকে বলতে চাই- যদি নাশকতা ও হত্যা বন্ধ না হয় সরকার সংশ্লিষ্ট সবার বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। তাই আমার অনুরোধ- বন্ধ করুন এই হত্যাকাণ্ড, বন্ধ করুন এই সন্ত্রাস।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদের অধিবেশনে প্রশ্নোত্তরে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।মো. মনিরুল ইসলামের (যশোর-২) এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী চলমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকারের পরিকল্পনা ও পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে বলেন, ২২ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি তারা দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দিয়েছিল। কিন্তু বিক্ষোভ হয়নি। বিএনপি ৫২ দিন ধরে অবরোধ দিয়েছে। প্রায় সব কার্যদিবসে হরতাল দিয়েছে। কিন্তু বাস্তব অবস্থা হচ্ছে, দেশব্যাপী যানবাহন চলছে, ঢাকা শহরে হরতাল-অবরোধে যানজট হচ্ছে, শুধু দূরপাল্লার যানবাহন কম চলছে। জনসম্পৃক্ততাবিহীন এ কার্যক্রমে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে জামায়াত-শিবিরের কর্মী, বিএনপির বিপথগামী কিছু লোক এবং সন্ত্রাসীদের দিয়ে এ নাশকতা চালানো হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৫ জানুয়ারি থেকে টানা ৫২ দিন ধরে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট হরতাল-অবরোধের নামে নৈরাজ্য করছে। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে খেটে খাওয়া মানুষ। পেটের তাগিদে কাজে বের হয়ে এ পর্যন্ত ১০১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশই আগুনে পুড়ে মারা যান। তিনি বলেন, পেট্রলবোমাসহ বিভিন্ন ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডে সহস্রাধিক মানুষ মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে। ১ হাজার ১৭৩টি যানবাহনে আগুন দেওয়া হয়েছে। ছয়টি লঞ্চে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে, ২৫ দফায় ট্রেনে নাশকতা করা হয়েছে। এ ধরনের ধ্বংসাত্মক কাজে ব্যবসা-বাণিজ্য, রপ্তানি ও অন্যান্যভাবে ১ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা জানে ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পর গঠিত সরকারের মেয়াদ পাঁচ বছর। তার পরও কেন এ নাশকতা? কেউ কেউ এ কার্যক্রমকে রাজনৈতিক কার্যক্রম বলতে চায়। শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াতের নাশকতার একটাই উদ্দেশ্য- যুদ্ধাপরাধীদের এবং খালেদা জিয়াকে তাদের অপরাধের মামলা থেকে রক্ষা করা। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে এ পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যুদণ্ড, দুজনের আমৃত্যু কারাবাস, একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। আন্তর্জতিক রীতিনীতি সম্পূর্ণ অনুসরণ করে এ বিচার সম্পন্ন হয়েছে। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে একজনের রায় কার্যকর করা হয়েছে। বাকিদের রায় আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে কার্যকর করা হবে। এ রায়গুলোর বাস্তবায়ন বন্ধ করা তাদের অন্যতম উদ্দেশ্য। বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া ও তার পুত্রের (তারেক রহমান) দুর্নীতির নয়টি মামলা আদালতে বিচারাধীন। এসব মামলার সাজা থেকে বাচার উদ্দেশ্যে বিএনপি-জামায়াত জোট নাশকতা করছে। এ ছাড়াও বিভিন্ন প্রকার দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাৎ বিষয়ক আরও অনেক মামলা বিএনপি জোটের নেতাদের বিরুদ্ধে রয়েছে। এ মামলাগুলো থেকে বাঁচার জন্য তারা পেট্রলবোমা মেরে মানুষ মারছে।