সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরকারের ইচ্ছা নেই খালেদাকে গ্রেফতার করার

downloadডেস্ক রির্পোট : বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের ইচ্ছা সরকারে নেই। তবে মনে রাখতে হবে কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়। কেউ যদি মারাত্মক অপরাধে জড়িত হয়, সেটা প্রমাণ হয়, তার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে। নাশকতাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে ইইউ প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনাকালে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সংসদীয় প্রতিনিধি দলের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।
বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, প্রতিনিধি দলটি বিরাজমান রাজনৈতিক সংকট ও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগের সঙ্গে আলোচনা করে। দুপুরে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট ডেলিগেশনের প্রধান ক্রিশ্চিয়ান ড্যান প্রিডার নেতৃত্বে ১২ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। ইইউ প্রতিনিধি দলের প্রধান আইনমন্ত্রীকে বলেন, চারদিকের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে সরকার গ্রেফতার করবে। এ ক্ষেত্রে সরকারের অবস্থান কী? জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, তাকে (খালেদা জিয়াকে) গ্রেফতারের ‘ইনটেনশন’ সরকারে নেই। তবে কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। কেউ অপরাধ করলে ‘ল’ উইল টেক ইটস ওন কোর্স’। আলোচনার শুরুতেই ইইউ প্রতিনিধি দল পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সংবাদ মাধ্যমে দেয়া বক্তব্য তুলে ধরে। তারা বলেন, প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎকালে আমরা মানবাধিকার বিষয়ে কথা বলেছি। তিনি সংবাদ মাধ্যমের কাছে মানবাধিকার বিষয় নিয়ে আলোচনা করিনি বলে মন্তব্য করেছেন। বিষয়টি তিনি মিডিয়ার কাছে বেমালুম অস্বীকার করেছেন। এটা দুঃখজনক। তারা মন্ত্রীর সামনে ডেইলি স্টার পত্রিকার একটি কপি তুলে ধরেন।
এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, প্রতিমন্ত্রী কী বলেছেন, সেখানে আমি উপস্থিত ছিলাম না। তবে আমাদের কিছু পত্রিকা ঠিকমতো সব খবর দেয় না। তারা অনেক সময় নিজেদের মতো করে সংবাদ দেয়। অনেক ক্ষেত্রে তাদের ভুল হয়, কেউ বা দায়িত্বহীনভাবেও কাজ করে।
ইইউ প্রতিনিধিরা গার্মেন্টস শিল্পের শ্রমিক, রানা প্লাজা, রোহিঙ্গা ইস্যু ও পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসী ইস্যু নিয়ে আলোচনা করেন। আইনমন্ত্রী এসব বিষয়ের বিস্তারিত বর্ণনা দেন।
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ইইউ প্রতিনিধিদের বলেন, নিরপেক্ষ বিচারে মানবাধিকার বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থান অনেক ওপরে। মানবাধিকারের অনেক বিষয় নিয়ে আপনাদের (ইইউ) জানার আগ্রহ দেখলাম। কিন্তু পেট্রলবোমা নিয়ে আপনাদের জানার কোনো আগ্রহ দেখলাম না। পরে বিএনপি-জামায়াতের হরতাল-অবরোধ কর্মসূচির নামে পেট্রলবোমা নিক্ষেপ ও নাশকতার বর্ণনা দেন আনিসুল হক। পেট্রলবোমায় পুড়ে ও নাশকতায় প্রায় ৯০ জন নারী, শিশু ও শ্রমজীবী মানুষ নিহত হওয়ার চিত্র তুলে ধরেন মন্ত্রী।
ইইউ প্রতিনিধিরা বলেন, আমরা পেট্রলবোমা নিক্ষেপ ও নাশকতার তীব্র নিন্দা জানিয়েছি। এ থেকে তাদের (বিএনপি-জামায়াত) বিরত থাকতে বলা হয়েছে।
এদিকে ইইউ প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা শেষে চলমান হরতাল-অবরোধে নাশকতাকারীদের বিচারে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, সহিংসতা ও সন্ত্রাস দমনে ‘সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল’ গঠন করছে সরকার। এর পাশাপাশি প্রচলিত আইনে নাশকতা ও সহিংতার বিচার জেলা দায়রা জজ আদালতে চলবে। অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এ ধরনের অপরাধের বিচার চলবে বলে জানান তিনি।
হাইকোর্ট ‘হরতাল ও অবরোধের নামে নৈরাজ্য রোধে’ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারকে নির্দেশ দেয়ার তিন দিন পর গতকাল বৃহস্পতিবার আইনমন্ত্রী সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।
আইনমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে ইতিমধ্যে প্রত্যেক জেলা দায়রা জজের কাছে পত্র দিয়েছি যে একজন অতিরিক্ত দায়রা জজ যেন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এসব মামলার (নাশকতার ঘটনায়) বিচার করেন।
চলতি মাসের শুরুর দিকে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত জানিয়েছিলেন সরকার হরতাল-অবরোধের নামে রাজনৈতিক সহিংসতা বন্ধে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদ-ের বিধান রেখে নতুন আইন করার কথা ভাবছে।
এরপর গত ১৫ ফেব্র“য়ারি এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হরতাল ও অবরোধের নামে নৈরাজ্য বন্ধের ব্যবস্থা নিতে সরকারকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।
সরকারি হিসাবে গত ৫ জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত পেট্রলবোমা ও ককটেল হামলায় নিহত হয়েছেন অন্তত ৮৯ জন। এ সময় ৬৬৪টি যানবাহন পেট্রলবোমা দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে, ৪১০টি যানবাহন ভাঙচুর করেছে অবরোধ সমর্থকরা।
চলমান নাশকতার ঘটনায় সারাদেশে অসংখ্য মামলা হলেও এর বেশিরভাগের তদন্ত এখনো শেষ হয়নি বলে আনিসুল হক জানান।
স্পিকারের সঙ্গে ইইউ প্রতিনিধি দল: এদিকে স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছে ইইউ প্রতিনিধি দলটি। বাংলাদেশের অব্যাহত উন্নয়ন ও অগ্রগতিকে ত্বরান্বিত করতে আগের মতোই পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। বাংলাদেশে সফররত ইউরোপীয় পার্লামেন্টের একটি প্রতিনিধি দল গতকাল বৃহস্পতিবার স্পিকার ও সিপিএ চেয়ারপার্সন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে তার সংসদ ভবনের কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করে এ প্রত্যয় ব্যক্ত করে। ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মানবাধিকার বিষয়ক সাব-কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্রিশ্চিয়ান ড্যান প্রেদারের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ছিলেন দেশটির এমপি জোসেফ ওয়েডেইনহোলজার ও ক্যারল কারস্কি।
সাক্ষাৎকালে তারা ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও বাংলাদেশের বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও উন্নয়নের বিভিন্ন দিক নিয়েও আলোচনা করেন। এ সময় স্পিকার ইউরোপীয় ইউনিয়নকে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন অংশীদার হিসেবে অভিহিত করে বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও বাংলাদেশের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণের যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে।
মানবাধিকার বিষয়ে আলোচনা প্রসঙ্গে স্পিকার বলেন, সহিংসতা গণতন্ত্র বা রাজনীতির অংশ হতে পারে না। সহিংসতা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন।