বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বৈষম্য কমানোর ওপরই জোর দিতে হবে

d8d3b64a716115a56a259d633c094df3-20স্টাফ রিপোর্টার:সম্প্রতি সুইজারল্যান্ডের দাভোসে অবস্থিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের বার্ষিক প্রতিবেদন ‘আউটলুক অন দ্য গ্লোবাল এজেন্ডা ২০১৫’-এ আগামী বছরের ১০টি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক ইস্যুর একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে, যাতে বিশ্বের এক নম্বর অর্থনৈতিক সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে ক্রমবর্ধমান আয়বৈষম্য। উচ্চ বেকারত্ব চিহ্নিত হয়েছে দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা হিসেবে। অন্য ইস্যুগুলো হলো নেতৃত্বের অভাব, ভৌগোলিক কৌশলগত প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি, দুর্বল গণতন্ত্র, উন্নয়নশীল দেশগুলোয় পরিবেশ বিপর্যয়, আবহাওয়ার প্রতিকূলতা বৃদ্ধি, ক্রমবর্ধমান জাতীয়করণের হার ও পানির ওপর চাপ বৃদ্ধি।

বিলম্বে হলেও ক্রমবর্ধমান আয়বৈষম্য সম্পর্কে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের এই উপলব্ধি গুরুত্ববহ। কারণ, বিংশ শতাব্দীর আশির দশক থেকে ‘মুক্তবাজার অর্থনীতি’র ছদ্মনামধারী পুঁজিবাদের যে চরম দক্ষিণপন্থী ডামাডোলে বিশ্ব মেতে রয়েছে, তার অবশ্যম্ভাবী ফলাফলই হলো ক্রমবর্ধমান আয় ও সম্পদ বণ্টনের বৈষম্য। এর অন্যথা হওয়ার উপায় নেই। বাজারব্যবস্থাকে অর্থনীতির তাবৎ সিদ্ধান্ত গ্রহণের মূল সংকেতদাতার ভূমিকায় প্রতিষ্ঠিত করে ব্যক্তি খাতকে অর্থনীতির অনিয়ন্ত্রিত চালিকাশক্তির আসনে বসিয়ে দিলে এ রকম ফলাফল আসতে বাধ্য, এটা অর্থনীতির তাত্ত্বিক জ্ঞানের সঙ্গে পরিচিত যেকোনো ছাত্রছাত্রীরই উপলব্ধি করার কথা। শুধু পুঁজিবাদের জ্ঞানপাপী স্তাবকেরাই সেটা বুঝেও না বোঝার ভান করবে। প্রাথমিকভাবে পুঁজিবাদী দেশগুলোয় সামষ্টিক চাহিদা ব্যবস্থাপনায় সরকারি ভূমিকার অকার্যকারিতা ব্যাখ্যা করার জন্য এই ‘নিউ লিবারেল স্কুলের’ তাত্ত্বিক চিন্তাধারা বিকশিত হয়েছিল।

‘রাষ্ট্র ব্যর্থতা’ (স্টেট ফেইলিউর) এবং ‘শাসন ব্যর্থতা’কে (গভর্ন্যান্স ফেইলিউর) বিশ্লেষণের মূল ফোকাসে নিয়ে এসে এই ‘নিউ লিবারেল’ তাত্ত্বিকেরা অর্থনীতিতে রাষ্ট্রের ভূমিকা সংকোচনের মতাদর্শিক রাজনীতিকে উৎসাহিত করার নীতি গ্রহণ করে। ওই সময়ে এই তত্ত্বগুলোকে অভিহিত করা হতো ‘সাপ্লাই সাইড ইকোনমিকস’। ব্রিটেনে মার্গারেট থ্যাচার প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়ে তাঁর দেশে একের পর এক বাজারমুখী সংস্কারগুলো প্রবর্তন করতে শুরু করেন। একই সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও বেকারত্ব ও মুদ্রাস্ফীতির যুগল সংকট মোকাবিলায় সরকারি নীতির ব্যর্থতাকে টার্গেট করে নিউ লিবারেল অর্থনীতিবিদেরা তাঁদের সমর্থিত রাজনীতির জনপ্রিয়তা দ্রুত বাড়াতে সক্ষম হয়। ওই প্রেক্ষাপটেই সারা বিশ্বে ‘মুক্তবাজার অর্থনীতি’ প্রতিষ্ঠাকল্পে ১৯৭৯ সালে মার্কিন ট্রেজারি বিভাগ, আইএমএফ এবং বিশ্বব্যাংকের একটি ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা স্থাপিত হয়েছিল, যাকে খ্যাতিমান ব্রিটিশ অর্থনীতিবিদ উইলিয়ামসন ১৯৮৯ সালে ‘ওয়াশিংটন কনসেনসাস’ নামে অভিহিত করেছেন। ১৯৮০ সালের প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী রোনাল্ড রিগ্যানের প্রচারণার মূল বক্তব্যই ছিল ‘গেট দ্য গভর্নমেন্ট অফ দ্য ব্যাক অব দ্য পিপল’। রিগ্যান প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর সারা বিশ্বে ‘মুক্তবাজার অর্থনীতি’ প্রতিষ্ঠাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন এবং আইএমএফ ও বিশ্বব্যাংক তাদের মূল মিশনে পরিণত করে। সমাজতন্ত্র গড়ে তোলার নামে রাষ্ট্রতন্ত্র প্রতিষ্ঠাকারী রাষ্ট্রগুলো যখন বিংশ শতাব্দীর আশির দশকে জনগণ কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত হয়ে একের পর এক বিলুপ্ত হয়ে গেল তারই পরিপ্রেক্ষিতে মুক্তবাজার অর্থনীতির দর্শন গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করতে সমর্থ হয়েছিল বলা চলে।

বাংলাদেশের ১৯৭২ সালের সংবিধানে সমাজতন্ত্রকে অন্যতম রাষ্ট্রীয় নীতি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হলেও ১৯৭৫ সালের রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের আগেই সাহায্যদাতা দেশ ও সংস্থাগুলোর শর্তের চাপে ব্যক্তি খাতকে উৎসাহিত করার নীতি গ্রহণ করা হয়েছিল। ১৯৭৫ সালের রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের মাধ্যমে ক্ষমতাসীন খোন্দকার মোশতাক ও জিয়াউর রহমানের সরকার পাকিস্তানি স্টাইলে স্বজনতোষী পুঁজিবাদ প্রতিষ্ঠাকে আবার এই রাষ্ট্রের মূলনীতি হিসেবে ফিরিয়ে এনেছিল। ওই সময়ের সরকারি নীতিগুলোতে রাষ্ট্রের এই মতাদর্শিক দিক পরিবর্তনের অজস্র প্রমাণ রয়েছে। জিয়াউর রহমান সরকারের ১৯৭৮ সালের বিনিয়োগ নীতিমালা এ ব্যাপারে একটা মাইলস্টোন, যেখানে ব্যক্তি খাতের বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য অনেকগুলো নীতি ঘোষিত হয়েছিল। 

১৯৮২ সালে এরশাদ সরকার প্রবর্তিত ‘নয়া শিল্প নীতি’ এবং ১৯৮৬ সালে প্রবর্তিত ‘সংশোধিত শিল্প নীতি’ ও আমদানি উদারীকরণ নীতি আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ মোড় পরিবর্তনের প্রয়াস। আশির দশকে বাংলাদেশের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে আইএমএফ ও বিশ্বব্যাংকের ‘কাঠামোগত বিন্যাস কর্মসূচি’ ‘নিউ লিবারেল’ নীতিমালা সংস্কারের ধারাবাহিকতাকে জোরদার করার জন্যই পরিচালিত হয়েছিল। আমদানি উদারীকরণ, বিরাষ্ট্রীয়করণ, ব্যক্তি খাতে সরকারি নিয়ন্ত্রণ হ্রাস ও অর্থনীতিতে সরকারি ভূমিকার সংকোচন এবং বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণ তাদের প্রেসক্রিপশনগুলোর মূল ফোকাস ছিল। ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর এ দেশে ‘নিউ লিবারেল’ অর্থনৈতিক সংস্কারের গতি আরও ত্বরান্বিত হয়। 

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর আমদানি উদারীকরণের রাশ টেনে ধরার প্রয়াস নিলেও বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার বাধানিষেধের কারণে তারা তেমন সফল হয়নি। অন্যদিকে, ১৯৯০ সালে এরশাদের পতনের পর ১৯৯১ সাল থেকে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে নির্বাচিত সরকার পালাক্রমে এ দেশে গত ২৩ বছরের মধ্যে ২১ বছর সরকারে আসীন থাকলেও দেশে আয়বৈষম্য নিরসনে তাদের তেমন ভূমিকা ছিল না বললেই চলে।

২০১১ সালে রাষ্ট্রীয় নীতি হিসেবে সংবিধানে সমাজতন্ত্র ফেরত এসেছে। কিন্তু নামকাওয়াস্তে সমাজতন্ত্রকে সংবিধানে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করা হলেও ক্ষমতাসীন জোট অর্থনৈতিক নীতি পরিবর্তনে কোনো জোরালো পদক্ষেপ নেয়নি। এর দুটো কারণ আন্দাজ করা যায়: প্রথমত, আওয়ামী লীগ নব্বই দশকের শুরুতেই ‘মুক্তবাজার অর্থনীতি’ প্রতিষ্ঠাকে তাদের রাজনৈতিক দর্শন হিসেবে ঘোষণা করেছে। দ্বিতীয়ত, সমাজতন্ত্র এখন আর রাজনৈতিকভাবে জনপ্রিয় নয়। একটা বিষয় সবাইকেই মেনে নিতে হবে যে সোভিয়েত স্টাইলের সমাজতন্ত্রকে বিশ্বে আর ফেরত আনা যাবে না। কিন্তু তার মানে তো ‘মুক্তবাজার অর্থনীতি’ নামধারী পুঁজিবাদ প্রতিষ্ঠা লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক দর্শন হতে পারে না। কারণ, তা হবে এসব শহীদানের রক্তের সঙ্গে বেইমানি।

১৯৭০ সালের পাকিস্তানে ২২টি কোটিপতি পরিবারের কথা বলা হতো, যারা রাষ্ট্রের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকতায় পাকিস্তানের শিল্প-বাণিজ্যে আধিপত্য বিস্তার করেছিল। ওই ২২ পরিবারের মধ্যে দুটো পরিবার ছিল পূর্ব পাকিস্তানের, তা-ও একটি ছিল অবাঙালি। ওই বাংলাদেশেই ২০১২ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব মোতাবেক ২৩ হাজার ২১২ জন কোটিপতি ছিলেন। ২০১৪ সালে তারা ওই সংখ্যা ৫০ হাজার অতিক্রম করেছে বলে দাবি করেছে। 

কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কোটিপতির এহেন নাটকীয় প্রবৃদ্ধির হারকে কৃতিত্বপূর্ণ সাফল্য মনে করতে পারে, কিন্তু এর মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সুফল যে এই ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর কাছে গিয়ে পুঞ্জীভূত হয়ে যাওয়ার বিপৎসংকেত পাওয়া যাচ্ছে, সে ব্যাপারে ক্ষমতাসীনদের কি কোনো করণীয় নেই? আসলে এ দেশের শাসক মহলের কিন্তু ২০০৫ সালেই বিপৎসংকেত পাওয়ার কথা! 

আমরা অর্থনীতিতে আয়বৈষম্য বৃদ্ধি বা হ্রাস পরিমাপ করার জন্য নানা পরিমাপক ব্যবহার করে থাকি, যার মধ্যে লরেঞ্জ কার্ভ এবং গিনি সহগ অন্যতম। কোনো অর্থনীতির গিনি সহগ যখন দ্রুত বাড়তে থাকে এবং শূন্য দশমিক ৫-এর কাছাকাছি পৌঁছে যায় বা শূন্য দশমিক ৫ অতিক্রম করে, তখন নীতিনির্ধারকদের বোঝার কথা যে আয়বৈষম্য মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। 

১৯৭২ সালে বাংলাদেশের গিনি সহগ ছিল মাত্র শূন্য দশমিক ৩২, মানে প্রচণ্ড দারিদ্র্যকবলিত দেশ হলেও ওই পর্যায়ে এ দেশে আয়বৈষম্য তুলনামূলকভাবে সহনীয় ছিল। ২০০৫ সালে হাউসহোল্ড ইনকাম অ্যান্ড এক্সপেন্ডিচার সার্ভেতে ওই গিনি সহগ বেড়ে দাঁড়িয়েছিল শূন্য দশমিক ৪৭, মানে শূন্য দশমিক ৫-এর কাছাকাছি। ২০১০ সালেও গিনি সহগ শূন্য দশমিক ৪৬৫-এ রয়ে গেছে, কমানো যায়নি। সাধারণ মানুষের কাছে বোধগম্য যেসব বিষয় এই বিপদটার জানান দিচ্ছে সেগুলো হলো: ১) ব্যাংকের ঋণ সমাজের একটাÿ ক্ষুদ্র অংশের কাছে কুক্ষিগত হয়ে যাচ্ছে এবং ঋণখেলাপি বিপজ্জনকভাবে বাড়ছে; ২) দেশের জায়গা-জমি, অ্যাপার্টমেন্ট, প্লট, ফ্ল্যাট, মানে রিয়েল এস্টেটের দাম বেড়েছে; ৩) বিদেশে পুঁজি পাচার মারাত্মকভাবে বাড়ছে; ৪) দেশে গাড়ি, বিশেষ করে বিলাসবহুল গাড়ি আমদানি দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে; ৫) বিদেশে বাড়িঘর, ব্যবসাপাতি কেনার হিড়িক পড়েছে; ৬) ধনাঢ্য পরিবারগুলোর বিদেশভ্রমণ বাড়ছে; ৭) উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানদের বিদেশে পড়তে যাওয়ার খায়েশ বাড়ছে; ৮) উচ্চবিত্ত পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসার জন্য ঘন ঘন বিদেশে যাওয়ার খাসলত বাড়ছে; ৯) প্রাইভেট হাসপাতাল ও বিলাসবহুল ক্লিনিক দ্রুত বাড়ছে; এবং ১০) ঢাকা ও চট্টগ্রামের ট্রাফিক জ্যাম নাগরিক জীবনকে বিপর্যস্ত করছে।

আয়বৈষম্যের লাগাম টেনে ধরতে চাইলে ‘বাজার ব্যর্থতা’ কেন হয়, তা ভালোভাবে বুঝে রাষ্ট্রের ভূমিকাকে যৌক্তিকভাবে পুনর্বিন্যস্ত করতে হবে। বাজার ব্যর্থ হয় গরিবের মানসম্মত শিক্ষা ও স্বাস্থ্যব্যবস্থা গড়ে তুলতে, ব্যর্থ হয় পরিবেশদূষণ ঠেকাতে, ব্যর্থ হয় অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবকাঠামো গড়ে তোলায়, ব্যর্থ হয় নানা রকম মনোপলি ও অলিগোপলির কারণে, ব্যর্থ হয় গণদ্রব্য জোগান দিতে। সংক্ষেপে বলব, রাষ্ট্রকে বৈষম্য নিরসনকারীর ভূমিকা নিতেই হবে, যে রকম করা হয়েছে ইউরোপের কল্যাণ রাষ্ট্রগুলোতে। 

সরকারের রাজস্ব সংগ্রহ করতে হবে প্রধানত সমাজের উচ্চবিত্ত ও উচ্চমধ্যবিত্তদের আয়কর ও সম্পত্তি কর থেকে। সরকারি ব্যয়ের প্রধান অগ্রাধিকার দিতে হবে বৈষম্যহীন ও মানসম্পন্ন প্রাথমিক শিক্ষায়, গরিবের জন্য ভালো মানের স্বাস্থ্যব্যবস্থা গড়ে তোলায়, মানসম্পন্ন ভৌত অবকাঠামো নির্মাণে, পরিবেশদূষণ নিয়ন্ত্রণে, গরিবের খাদ্যনিরাপত্তা বিধানে। কৃষককে তাঁদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্য দাম পাওয়ার ব্যবস্থা করে দিতে হবে। শ্রমজীবী জনগণকে ন্যায্য মজুরি পাওয়ার ব্যবস্থা করে দিতে রাষ্ট্র কঠোর অভিভাবকের ভূমিকা নেবে। ব্যক্তি খাতের বিক্রেতারা যাতে জনগণকে মুনাফাবাজির শিকার করতে না পারে, সে জন্য রাষ্ট্রকে কঠোর নিয়ন্ত্রকের ভূমিকা পালন করতে হবে। 

নিউ লিবারেলিজমের মৌতাতে মশগুল হয়ে রাষ্ট্রের ভূমিকা যেনতেনভাবে সংকোচন মোটেও যৌক্তিক হতে পারে না। আবার, রাষ্ট্রের ভূমিকা বাড়লে দুর্নীতি যাতে না বাড়ে, সে জন্য স্বাধীন ও শক্তিশালী দুর্নীতি দমনব্যবস্থাও গড়ে তুলতে হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

৮৭ হাজার টাকার মদ খান পরীমণি, পার্সেল না দেওয়ায় চালান তাণ্ডব

যুদ্ধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব ঢাকায় আসছেন শনিবার

পি কে হালদারের বিরুদ্ধে প্রথম চার্জশিট দিচ্ছে দুদক

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

ইসরায়েলে ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর, ১৪ সেনাসদস্য আহত

হাথুরুকে নিয়ে ধোঁয়াশা নেই, ২১ এপ্রিল রাতে ফিরছেন ঢাকায়

উপজেলা নির্বাচন সরকারের আরেকটা ভাওতাবাজি : আমীর খসরু

গরমে গতি কমিয়ে ট্রেন চালানোর নির্দেশ

পশ্চিমবঙ্গে ৪৬ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে তাপমাত্রা

গুলশানে চুলোচুলি করা সেই ৩ নারী গ্রেপ্তার

দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর