বুধবার, ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পুলিশ বনাম স্থানীয় প্রশাসন

Police-bd-300ডেস্ক রির্পোট:পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের মধ্যে সম্ভাব্য বিশৃঙ্খলা ও সংঘাত নিয়ে একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রকাশের পর এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে ইতিমধ্যে  পুলিশের আইজিপি ও লোক প্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবকে নির্দেশনা দিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। জেলা পর্যায়ে ডিসি ও এসপির দ্বন্দ্ব এবং উপজেলা পর্যায়ে ওসি ও ইউএনও এর মধ্যে দ্বন্দ্ব স্থানীয় প্রসাশনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে পারে-প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ বিষয়ে উদ্বেগ জানানোর এক সপ্তাহ পর এ পদক্ষেপ নেয়া হলো।

একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদনে পুলিশ ও স্থানীয় রাজনীতিকদের মধ্যে “অলিখিত বোঝাপড়া” এ বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে জানানো হয়।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মোজাম্মেল হক খান বলেন, “চিঠিতে আমরা আইজিপি ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিবের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি। আমরা তাদের পদক্ষেপ নিতে বলেছি কারণ স্থানীয় প্রশাসনে কোন সংঘাত বা বিশৃঙ্খলা হলে সরকার পরিচালনার ক্ষেত্রের বিরুপ প্রভাব পড়তে পারে।”
তিনি বলেন, এ বিষয়ে পূর্বের কিছু ঘটনা তুলে ধরা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, অনকূল কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করতে পুরো পুলিশ বিভাগকে সতর্ক করে দিতে পুলিশ প্রধানকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।” তিনি আরো বলেন, ডিসি যেন ঔপনিবেশিক যুগের মতো আচরণ না করেন বিষয়টি লোক প্রশাসন মন্ত্রণালয়কে নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, “প্রশাসনের এই দুই অংশের মধ্যে সমন্বয় করতে হবে।”
নির্দেশনাসহ গোয়েন্দা প্রতিবেদনটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে দেয়া হয়েছে। এরপর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সরকারি কর্মকর্তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন ও একে অন্যের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, এএসপি পদ থেকে এসপি পদে পদন্নোতির জন্য অনেক পুলিশ কর্মকর্তা রাজনৈতিক প্রভাব ও অর্থকে ব্যবহার করে। পদন্নোতি পেলে তারা রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতায় জনগণকে হয়রানি করে টাকা উপার্জনে লিপ্ত হয়।
প্রতিবেদনে বলা হয় উপজেলায় প্রায়ই ইউএনও’র কর্তৃত্বকে পাশ কাটিয়ে কাজ করে ওসি। প্রতিবেদনে উদ্বেগ জানিয়ে বলা হয়, ডিসি ও এসপির মধ্যে খারাপ সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ সরকারি কাজকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে, জনগণের মধ্যেও এর নেতিবাচিক প্রভাব পড়তে পারে এবং এতে সরকারের ভাবমূর্তি বিনষ্ট হতে পারে।
এতে কিছু উদাহরণ, বিশ্লেষণ ও সুপারিশ তুলে ধরা হয়েছে। এতে উল্লেখ করা হয় যে, ডিসি ও এসপিদের দায়িত্ব সুনির্দিষ্ট করে দিতে হবে এবং সবাইকে তাদের কাজের জন্য দায়ী থাকতে হবে।
প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, মাঠ পর্যায়ে ডিসি এবং এসপি দু’জনেই প্রমাণ করার চেষ্টা করে যে তারা একে অন্যের চেয়ে বেশি ক্ষমতাবান।
আইন প্রয়োগকারী সংস্থা হিসেবে রাজনীতিকদের সঙ্গে পুলিশর সম্পর্ক ঘনিষ্ট বলে উল্লেখ করে প্রতিবেদনে বলা হয়, রাজনীতিকদের সঙ্গে পুলিশের অলিখিত বোঝাপড়ার সুযোগে পুলিশ অনেক সময় যা ইচ্ছা তাই করে।
প্রতিবেদনে বলা হয়, আচরণের ক্ষেত্রে ডিসিদের এখনো ঔপনিবেশিক মানসিকতা রয়ে গেছে। জেলা পর্যায়ের দুই শীর্ষ কর্মকর্তার মধ্যে ব্যবধান কমিয়ে আনতে হবে।
ডেইলি স্টার থেকে অনুবাদ করেছেন রুবিনা আক্তার

এ জাতীয় আরও খবর

নাসিরনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩ পদে ১৪ জন প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ

শ্রম আইন নিয়ে টালবাহানা করছে যুক্তরাষ্ট্র : শ্রম প্রতিমন্ত্রী

সনদ জালিয়াতি: দায় এড়াতে পারেন না কারিগরির সাবেক চেয়ারম্যান, দিতে হবে ব্যাখ্যা

কেএনএফের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতাসহ ৭ জন কারাগারে

ঢাকা ছেড়েছেন কাতারের আমির

প্রথম ধাপের উপজেলা ভোটে ২৬ প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী

বাংলাদেশিদের রক্তে সীমান্ত সবসময়ই ভেজা থাকছে: রিজভী

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে খেলবেন না ফিজ

টি২০ সিরিজ খেলতে সিলেটে পৌঁছেছে হারমানপ্রীতরা

জিম্বাবুয়ে সিরিজের ক্যাম্পে সাইফউদ্দিন-আফিফ

পদ্মায় গোসলে নেমে ৩ কিশোরের মৃত্যু

মিয়ানমার থেকে ফিরছেন ১৭৩ বাংলাদেশি